এই ওয়েবসাইটে আর আপডেট হবে না। আমাদের নতুন সাইট Parstoday Bangla
শনিবার, 07 মে 2016 17:42

যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয় বিশৃঙ্খলার কেন্দ্রে পরিণত হয়েছে: গভর্নর ত্রিপাঠি

যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয় বিশৃঙ্খলার কেন্দ্রে পরিণত হয়েছে: গভর্নর ত্রিপাঠি

ভারতের কোলকাতার যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয় বিশৃঙ্খলার কেন্দ্রে পরিণত হয়েছে বলে মন্তব্য করলেন গভর্নর কেশরী নাথ ত্রিপাঠি। তিনি আজ (শনিবার) সংবাদ সংস্থা পিটিআইকে দেয়া সাক্ষাৎকারে বলেন, ‘যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয় একসময় ছিল জ্ঞানচর্চা এবং উৎকর্ষতার কেন্দ্র। কিন্তু দ্রুত তা বিশৃঙ্খলার কেন্দ্র হয়ে উঠছে। এর মোকাবিলায় কঠোর ব্যবস্থা নিতে হবে কর্তৃপক্ষকে।’

 

এদিকে, রাজ্য বিজেপি প্রেসিডেন্ট দিলীপ ঘোষের অভিযোগ, যাদবপুর দেশবিরোধীদের আখড়া হয়ে উঠেছে। সেখানকার বাম ছাত্র ইউনিয়নগুলো দেশবিরোধী শক্তির আঁতুরঘর। সেজন্য কিছুদিন আগে সেখানে এক শ্রেণির পড়ুয়া দেশবিরোধী স্লোগান দিয়েছিল।’

 

গতকাল রাতে পরিচালক বিবেক অগ্নিহোত্রীর ‘বুদ্ধ ইন এ ট্র্যাফিক জ্যাম’ নামে একটি ছবি যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ের হলে দেখানোর অনুমতি বাতিল হওয়ার পর আরএসএস-বিজেপি’র পাশাপাশি তাদের ছাত্র সংগঠন এবিভিপি সদস্যদের সঙ্গে সেখানকার ছাত্রদের হাতাহাতি এবং বাকবিতণ্ডা হয়। বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে এবিভিপি’র ৪ বহিরাগত সদস্যকে ছাত্রীদের শ্লীলতাহানির অভিযোগে আটকে রাখা হয় এবং তাদের মারধর করা হয়। পরে তাদের বিরুদ্ধে যাদবপুর থানায় এফআইআর করা হয়।

 

এ দিন বিকেলে বিবেক অগ্নিহোত্রী ক্যাম্পাসে ঢুকলে ছাত্ররা তাকে কালো পতাকা দেখিয়ে তার গাড়ি ঘিরে ধরে বিক্ষোভ দেখায়। পরে এবিভিপি’র রাজ্য প্রেসিডেন্ট সুবীর হালদার, ভাইস-প্রেসিডেন্ট অভিজিৎ বিশ্বাসসহ স্থানীয় বিজেপি এবং আরএসএস সমর্থকরা ক্যাম্পাসে প্রবেশ করেন। তখন তাদের সঙ্গে ছাত্রদের বচসা বাধে এবং তা হাতাহাতিতে পৌঁছায়। এ ঘটনাকে কেন্দ্র করে তীব্র উত্তেজনা সৃষ্টি হয়েছে।

 

যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ে হাতাহাতি এবং অশান্তির আবহ সৃষ্টি হওয়ার ঘটনাকে স্টুডেন্টস ইসলামিক অর্গানাইজেশন বা এসআইও তীব্র নিন্দা জানিয়েছে। এ নিয়ে এসআইও’র পশ্চিমবঙ্গের জনসংযোগ সম্পাদক আব্দুল আলিম শেখ আজ এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে জানিয়েছেন সংগঠনের রাজ্য প্রেসিডেন্ট মাফিকুল ইসলাম প্রশ্ন তুলে বলেছেন, যাদবপুরের মতো একটি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে বহিরাগতরা এসে কীভাবে দাপিয়ে বেড়াতে পারে? বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রীদের শ্লীলতাহানিরও নিন্দা করেন তিনি। এসআইও’র পক্ষ থেকে বিশ্ববিদ্যালয় কতৃপক্ষকে দোষীদের দ্রুত দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দেয়ার আহ্বান জানানো হয়েছে।#

 

এমএএইচ/জিএআর/৭

 

মন্তব্য লিখুন


Security code
রিফ্রেস দিন