এই ওয়েবসাইটে আর আপডেট হবে না। আমাদের নতুন সাইট Parstoday Bangla
বুধবার, 09 সেপ্টেম্বর 2009 20:26

বিশ্ব কুদস দিবস : নব্য ক্রুসেডের বিরুদ্ধে মুসলমানদের মহাজাগরণের দিন

পবিত্র রমযানের শেষ শুক্রবার বিশ্ব কুদস দিবস। ইরানের ইসলামী বিপ্লবের রূপকার মরহুম ইমাম খোমেনী (রঃ) এ দিবস পালনের আহবান জানিয়েছিলেন। ফিলিস্তিন ও পবিত্র বায়তুল মোকাদ্দাস দখলদার ইহুদিবাদীদের হাত থেকে মুসলমানদের প্রথম কেবলা আল আকসা মসজিদকে মূক্ত করার জন্যে মুসলমানদের জাগিয়ে তোলাই এ দিবসের অন্যতম প্রধান লক্ষ্য। এ ছাড়াও মজলুম ফিলিস্তিনী জাতির ওপর জগদ্দল পাথরের মতো চেপে বসা ইহুদিবাদী শাসন, শোষণ, নিপীড়ন ও তাদের নৃশংস হত্যাযজ্ঞের অবসান ঘটানো এবং বায়তুল মোকাদ্দাসকে রাজধানী করে ফিলিস্তিনী জাতির নিজস্ব রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠাও এ দিবসের আরেকটি বড় লক্ষ্য। মুসলমানদের বিরুদ্ধে ইহুদি ও খ্রিস্টান ধর্মের পোশাকধারী সাম্রাজ্যবাদী শক্তিগুলোর নব্য ক্রুসেড মোকাবেলার জন্যে মুসলমানদের ঐক্যবদ্ধ করা এবং মুসলিম উম্মাহর ঐক্যবদ্ধ সংগ্রাম বা প্রচেষ্টার মাধ্যমে বিশ্বব্যাপী ইসলামী শাসন ও ন্যায়বিচার প্রতিষ্ঠার জন্যেও এ দিবস কার্যকরি ভূমিকা রাখতে পারে। কিন্তু প্রশ্ন উঠতে পারে কেন আল আকসা মসজিদ এবং ফিলিস্তিনকে স্বাধীন করা মুসলমানদের জন্যে এতো গুরুত্বপূর্ণ?
আমরা যদি একটু গভীরভাবে চিন্তা করি তাহলেই বুঝতে পারবো বায়তুল মোকাদ্দাস, আল আকসা মসজিদ এবং ফিলিস্তিনকে স্বাধীন করা মুসলমানদের জন্যে সবচেয়ে বড় ও সর্ব প্রধান দায়িত্ব। এটা শুধু মুসলিম উম্মাহর হারানো গৌরব বা মান সম্মান ফিরিয়ে আনার প্রশ্ন নয়। বিশ্বব্যাপী সত্য ও ন্যায় বিচার প্রতিষ্ঠার জন্যেও এটা জরুরী। কারণ,বায়তুল মোকাদ্দাস ও ফিলিস্তিন হচ্ছে রাজনৈতিক এবং ভৌগোলিক কৌশলগত দিক থেকে ইউরোপ, এশিয়া ও আফ্রিকা- এই গুরুত্বপূর্ণ তিন মহাদেশের প্রবেশ দ্বার। তাই এ গুরুত্বপূর্ণ অঞ্চলটি যদি সাম্রাজ্যবাদীদের নিয়ন্ত্রণে থাকে তাহলে তেল সমৃদ্ধ
মধ্যপ্রাচ্যসহ বিশ্বের প্রধান তিন মহাদেশের ওপর কর্তৃত্ব করা সাম্রাজ্যবাদীদের জন্যে সহজ হবে। এরপর রয়েছে পবিত্র বায়তুল মোকাদ্দাস শহর ও আল আকসার ওপর নিয়ন্ত্রণের প্রশ্ন। এ প্রশ্নের উত্তর দেয়ার আগে ঐ অঞ্চলের খুব সংক্ষিপ্ত ইতিহাস তুলে ধরছি।
বায়তুল মোকাদ্দাস শহর নির্মিত হয়েছিল হযরত ইব্রাহীম (আঃ)'র মাধ্যমে কাবা শরীফ নির্মাণের ১১০০ বছর পর তথা হযরত ঈসা (আঃ)'র জন্মের ৯৭০ বছর আগে। তাই ইব্রাহীম (আঃ)র বংশধর হযরত দাউদ (আঃ)'র মাধ্যমে নির্মিত আল আকসা মসজিদ তৌহিদপন্থীদের দ্বিতীয় হারামে পরিণত হয়।

হযরত মূসা (আঃ)'র জীবদ্দশাতেই ইহুদিরা তৌহিদবাদ বা আল্লাহর একত্বের প্রতি বিশ্বাস হারিয়ে মূর্তিপূজা শুরু করেছিল এবং আল্লাহর শাস্তি হিসেবে তারা বিভিন্ন অঞ্চলে ছড়িয়ে ছিটিয়ে পড়েছিল। এরপর ইহুদিরা অনেক নবীকে হত্যা করেছিল। ইহুদিবাদীরা দাবী করে যে বায়তুল মোকাদ্দসে হযরত সোলায়মান (আঃ)এর তৈরি ইবাদত ঘরটি রয়েছে । অথচ খৃষ্টপূর্ব ৭০ সালেই রোমান সেনারা সেটি ধ্বংস করে দিয়েছিল এবং বর্তমান আল আকসা মসজিদ থেকে তার অবস্থান ছিল অনেক দূরে। ফিলিস্তিন রোমানদের কর্তৃত্ব থাকার সময়ে সে অঞ্চলের জনগণের মুক্তিদাতা হিসেবে হযরত ঈসা (আঃ)'র জন্ম হয়। কিন্তু তৎকালীন ইহুদি পুরোহিতরা বায়তুল মোকাদ্দাসের ইবাদত ঘরে হযরত ঈসার যাতায়াতে ক্ষুব্ধ হয়েছিল। কারণ, তিনি জনগণের কাছে একত্ববাদী শিক্ষা প্রচার করতেন। ক্ষুব্ধ ও পথভ্রষ্ট ইহুদি পুরোহিতরা রোমান শাসককে হযরত ঈসার বিরুদ্ধে ক্ষিপ্ত করে এবং তাঁকে ক্রুশে বিদ্ধ করে হত্যার ষড়যন্ত্র করে। মহান আল্লাহ হযরত ঈসা (আঃ)কে রক্ষা করেন এবং তাঁকে এখন পর্যন্ত গায়েবী বা অদৃশ্য অবস্থায় জীবিত রেখেছেন। কিন্তু খ্রিস্টানরা মনে করে হযরত ঈসা ক্রুশে বিদ্ধ হয়ে মারা যান। আর এ জন্যে তারা ইহুদিদের ওপর ক্ষিপ্ত হয়। হযরত ঈসা (আঃ) অদৃশ্য হবার পর খৃষ্টীয় ৭০ সনে রোমানদের হামলায় বিপর্যস্ত ইহুদিরা আশ্রয়হীন ও শরণার্থীতে পরিণত হয়। খৃষ্টীয় তৃতীয় শতকে রোম সম্রাট কনষ্টানটিন নিজে খৃষ্ট ধর্ম গ্রহণ করেন এবং এ সময় তাদের বিশ্বাস অনুযায়ী বেথেলহামে ঈসার মাজার থাকায় এবং এ শহরটি তাঁর জন্ম স্থান হওয়ায় বায়তুল মোকাদ্দাস খ্রিস্টানদের কেন্দ্রীয় শহর হিসেবে বিবেচিত হতে থাকে। খৃষ্টীয় ১৩৫ সন থেকে ৫০০ সন পর্যন্ত বায়তুল মোকাদ্দসে হাতে গোনা অল্প ক'জন ইহুদি বসবাস করতো।

এরপর মসজিদুল আকসা ছিল বিশ্বনবী (সাঃ)'র নবুওতের প্রথম চৌদ্দ বছর পর্যন্ত মুসলমানদের প্রথম কেবলা। ইহুদিদের কেবলার দিকে মুখ করে মুসলমানরা নামাজ আদায় করতো বলে ইহুদিরা মুসলমানদের উপহাস করতো। শেষ নবী (সাঃ) কেন ইহুদি বংশে জন্ম নিলেন না এটাই ছিল ইসলামের বিরুদ্ধে ইহুদিদের ক্ষোভের একটা বড় কারণ! এ অবস্থায় হিজরতের দ্বিতীয় বছরে আল্লাহর নির্দেশে মুসলমানরা পবিত্র কাবাকে নামাজের কেবলায় পরিণত করে। দ্বিতীয় খলিফার সময় বা ১৫ হিজরীতে বায়তুল মোকাদ্দাস মুসলমানদের হস্তগত হয়। পরবর্তিতে এ শহরের বেশীর ভাগ বাসিন্দাই ছিলেন আরব মুসলমান। আর তাঁদেরই বংশধর হলেন আজকের ফিলিস্তিনী মুসলমান। এরপর খৃষ্টীয় ১০৯৫ সালে ইউরোপীয়রা বায়তুল মোকাদ্দাস দখলের জন্যে মুসলমানদের বিরুদ্ধে ক্রুসেড শুরু করে। প্রায় দু'শ বছর পর্যন্ত ইউরোপীয় খ্রিস্টানরা মুসলমানদের বিরুদ্ধে সাত আটটি ক্রুসেড যুদ্ধ পরিচালনা করে। সালাহউদ্দিন আইয়ুবীর হাতে ক্রুসেডাররা শোচনীয়ভাবে পরাজিত হয়েছিল।

আইয়ুবী বংশের পর মামলুক এবং এরপর উসমানী খেলাফতের আয়ত্বে ছিল বায়তুল মোকাদ্দাস। ওসমানী শাসনাধীন তুরস্ক প্রথম মহাযুদ্ধে পরাজিত হলে বিংশ শতাব্দীর দ্বিতীয় দশকে ফিলিস্তিন বৃটেনের দখলে চলে আসে। এ সময় ফিলিস্তিনে ইহুদিদের সংখ্যা ছিল মাত্র পঞ্চাশ হাজার। এ সংখ্যা ছিল ফিলিস্তিনের মোট জনসংখ্যার মাত্র সাত শতাংশ। এরপর সারা বিশ্বে ছড়িয়ে ছিটিয়ে থাকা বহিরাগত ইহুদিদেরকে কিভাবে ছলে বলে কৌশলে ফিলিস্তিনে জড়ো করে এবং ফিলিস্তিনীদের ওপর সন্ত্রাসী হামলা ও গণহত্যা চালিয়ে সেখানে জোর করে ইসরাইল নামের একটি অবৈধ রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠা করা হয়েছে তা সবারই জানা। ইতিহাসের পরিহাস হলো যে খ্রিস্টানরা দাবী করে থাকে তাদের ধর্মের প্রবর্তক হযরত ঈসা (আঃ)'কে কুচক্রী ইহুদি পুরোহিতরাই হত্যা করেছিল বা হত্যার ষড়যন্ত্র করেছিল, পরবর্তীকালে তাদেরই উত্তরসূরি ইহুদিবাদীদেরকে খ্রিস্টান নামধারী সাম্রাজ্যবাদীরাই ফিলিস্তিনে কর্তৃত্ব প্রতিষ্ঠার সুযোগ করে দিল । এ সংক্ষিপ্ত ইতিহাস থেকে আমরা বলতে পারি যে, প্রকৃত ইহুদি ও প্রকৃত খ্রিস্টানরা বায়তুল মোকাদ্দাস শহরকে তাদের জন্যে পবিত্র শহর বলে দাবী করতে পারে, কিন্তু তারা এটা বলতে পারে না যে এ শহর বা গোটা ফিলিস্তিন একমাত্র তাদেরই অধিকারে থাকবে।

বিশেষ করে, ইহুদিরা সব সময় ফিলিস্তিনে সংখ্যালঘু ছিল এবং ফিলিস্তিনের দ্বিতীয় সংখ্যালঘু সম্প্রদায় তথা খ্রিস্টানদের চেয়েও তাদের সংখ্যা কম হওয়ায় তারা এ শহর বা অঞ্চলের ওপর কর্তৃত্বের দাবী করার কোনো অধিকারই রাখে না। অন্যদিকে, কয়েকহাজার বছর ধরে ফিলিস্তিনে বসবাসরত সেখানকার সংখ্যাগরিষ্ঠ জাতি হিসেবে ফিলিস্তিনীরাই এ অঞ্চলের প্রকৃত আদিবাসী হিসেবে পবিত্র বায়তুল মোকাদ্দাসহ গোটা ফিলিস্তিনের ওপর শাসন প্রতিষ্ঠার অধিকার রাখেন। এ ছাড়াও মুসলমানদের জন্যে কাবা ঘর ও মহানবীর রওজা মোবারকের পর আল আকসা মসজিদ সবচেয়ে পবিত্রতম ধর্মীয় স্থান। পবিত্র কোরআনে বলা হয়েছে, "পবিত্র ও মহিমাময় তিনি যিনি তাঁর দাসকে তাঁর নিদর্শন দেখাবার জন্য রাতে সফর করিয়েছিলেন মসজিদুল হারাম বা কাবাঘর থেকে মসজিদুল আকসায়, যার সীমাকে আমি সৌভাগ্যযুক্ত করেছি, যেন আমি তাকে কতিপয় নিদর্শন প্রদর্শন করি। তিনি তো সব শোনেন, সব দেখেন।"
পবিত্র কোরআনের এ আয়াত অনুযায়ী বায়তুল মোকাদ্দাস শহরে অবস্থিত আল কুদস বা আল আকসা মসজিদ ছিল বিশ্বনবী হযরত মুহাম্মাদ (সাঃ)'র মেরাজ গমন বা আল্লাহর সাথে সাক্ষাৎ ও উর্ধ্বলোক ভ্রমণের দ্বিতীয় ষ্টেশন। তাই বায়তুল মোকাদ্দাসকে সাম্রাজ্যবাদীদের হাত থেকে মুক্ত করার জন্য সচেষ্ট হওয়া ধর্মীয় দিক থেকেও প্রত্যেক মুসলমানের কর্তব্য।

ইরানের ইসলামী বিপ্লব ও ইমাম খোমেনী ( রঃ) এর বিপ্লবী আহবান ফিলিস্তিনীদের মধ্যে নতুন প্রাণের সঞ্চার করে। ১৯৮৭ সালে ফিলিস্তিনীরা খালি হাতে শুধু পাথর নিয়ে পরমাণূ শক্তিধর ইসরাইলের বিরুদ্ধে গণবিক্ষোভ শুরু করে। দখলদার ইসরাইল গাজ্বা ও পশ্চিম তীরের সীমিত এলাকায় ফিলিস্তিনীদের স্বায়ত্তশাসন দিয়ে এ বিক্ষোভের আগুন নেভানোর চেষ্টা করে। কিন্তু নামমাত্র স্বায়ত্ত্বশাসনে ফিলিস্তিনের জনগণ সন্তুষ্ট হয়নি, তাঁরা এখনও প্রকৃত ও পূর্ণাঙ্গ স্বাধীনতার জন্যে গণ আন্দোলন অব্যাহত রেখেছে। এ অবস্থায় ইসরাইল গাজা থেকে সেনা প্রত্যাহারের ঘোষণা দিতে বাধ্য হয়েছে। এর আগে ইরানের মুসলিম জাতির মতো একই ধরনের ঈমানী শক্তির বলে বলিয়ান লেবাননের মুসলিম যোদ্ধারা সাম্রাজ্যবাদীদের সর্বাত্মক সমর্থনপুষ্ট ইহুদিবাদী ইসরাইলকে লেবানন থেকে বিতাড়িত করতে সক্ষম হয়। মুসলমানরা ঐক্যবদ্ধ হলেই যে মধ্যপ্রাচ্যের বিষাক্ত ক্যান্সার ইসরাইলকে পরাজিত করা সম্ভব তা মরহুম ইমাম খোমেনী তাঁর বিভিন্ন ভাষণে বার বার বোঝানোর চেষ্টা করেছেন। তিনি বলেছিলেন, আরব দেশগুলোর জনগণ যদি এক বালতি করেও পানি ঢালতো, তাহলে ইসরাইল ভেসে যেতো। তিনি তাঁর এক ভাষণে কুদস দিবসের করণীয় কাজ সম্পর্কে বলেছেন, বিশ্ব কুদস দিবসে জাতিসমূহের কর্তব্য হচ্ছে বিক্ষোভ মিছিল ও সভা-সমাবেশের আয়োজন করে নিজ নিজ সরকারগুলোর কাছে শক্তভাবে এ দাবী জানানো যাতে তারা অস্ত্র শক্তি ও তেল অস্ত্র নিয়ে আমেরিকা এবং ইসরাইলের বিরুদ্ধে সংগ্রামে নামে। যদি তা না করে তবে চাপ প্রয়োগ, ধর্মঘট পালন ও হুমকি প্রদর্শন করে তাদেরকে সে কাজে বাধ্য করতে হবে। কারণ, ইহুদিবাদী ইসরাইল সমগ্র আরব বিশ্ব, এমনকি মক্কা ও মদীনা শরীফকেও দখলের হুমকি দিচ্ছে।

ইসলামী ইরানের সর্বোচ্চ নেতা হযরত আয়াতুল্লাহ উজমা খামেনেয়ী এক ভাষণে কুদস দিবসের বিশেষ গুরুত্বের কথা বা কুদস দিবস ভালোভাবে পালনের গুরুত্ব তুলে ধরেছেন। এর কারণ হিসেবে তিনি বলেছেন, বর্ণবাদী ইসরাইল গাজা থেকে সরে আসার অজুহাত দেখিয়ে মুসলিম দেশগুলোর সাথে কূটনৈতিক সম্পর্ক জোরদারের চেষ্টা করছে। ইসরাইল যে মুসলমানদের কাছে অপছন্দনীয় ও ঘৃণিত তা ইসরাইলের শাসকরা নিজেরাও বোঝেন। আর এ কারণেই মুসলিম দেশগুলোর সাথে সম্পর্ক প্রতিষ্ঠার ব্যাপারে তারা গোপনীয়তা বা গোপন আলোচনার আশ্রয় নিয়েছে। দুঃখজনক বিষয় হলো যারা আল কূদসকে এবং ফিলিস্তিনকে দখলদারদের হাত থেকে স্বাধীন করার কথা বলছে ও এ জন্যে সংগ্রাম করছে পশ্চিমা গণমাধ্যমসহ পশ্চিমা নেতারা তাদের সন্ত্রাসী বলছেন এবং নিজেদের শান্তিকামী বলে দাবী করছেন। এটা আসলে পবিত্র কোরআনের সে আয়াতেরই প্রমাণ যে আয়াতে কাফের, মুশরিক ও মোনাফেকদের লক্ষ্য করে বলা হয়েছে, যখন ওদের বলা হয় পৃথিবীতে অশান্তি বা সন্ত্রাস সৃষ্টি করো না, তখন ওরা বলে আমরাই তো পৃথিবীতে শান্তি প্রতিষ্ঠাকারী। অথচ আজ বিশ্বের মানুষের কাছে এটা স্পষ্ট সাম্রাজ্যবাদী আমেরিকা, ইসরাইল ও তাদের ইউরোপীয় এবং অন্যান্য সাম্রাজ্যবাদী সহযোগীরাই বিশ্বে যুদ্ধ, সন্ত্রাস ও অশান্তি সৃষ্টির প্রধান হোতা হিসেবে সক্রীয়। এটা স্পষ্ট যে ইহুদিবাদী দখলদারদের নাগপাশ থেকে ফিলিস্তিন ও আল আকসাকে মুক্ত না করা পর্যন্ত মধ্যপ্রাচ্যসহ বিশ্বে শান্তি প্রতিষ্ঠা সম্ভব নয়। তাই আমাদের উচিত কুদস মুক্তির জন্যে সংগ্রামরত ফিলিস্তিনী ভাইবোনদেরকে এবং অন্যান্য সংগ্রামীদেরকে নৈতিক সমর্থনসহ সব ধরনের সাহায্য-সমর্থন দেয়া। এ ছাড়াও আমেরিকা ও ইসরাইলের মতো যেসব দেশ বিশ্বে রাষ্ট্রীয় সন্ত্রাস চালিয়ে যাচ্ছে এবং মুসলমানদের বিরুদ্ধে সামরিক, রাজনৈতিক, সাংস্কৃতিক, অর্থনৈতিক ও প্রচারণাগত ক্রুসেড তথা সর্বাত্মক ক্রুসেড চালিয়ে যাচ্ছে তা মোকাবেলার জন্যে মুসলমানদেরকে ঐক্যবদ্ধ পদক্ষেপ নিতে হবে। অনেকেই এ জন্যে পশ্চিমাদের ভোগ্যপণ্য ও জরুরী নয় এমন অন্যান্য পশ্চিমা পণ্য বর্জন করাসহ তাদের বিরুদ্ধে বিভিন্ন ধরনের অবরোধ আরোপের যেসব কথা বলছেন তা বাস্তবায়নের উপায় নিয়েও কুদস দিবসে মুসলমানদেরকে সুচিন্তিত সিদ্ধান্ত নিতে হবে।#

 

মন্তব্য লিখুন


Security code
রিফ্রেস দিন