এই ওয়েবসাইটে আর আপডেট হবে না। আমাদের নতুন সাইট Parstoday Bangla
মঙ্গলবার, 15 সেপ্টেম্বর 2009 17:14

আল কুদস দিবসের মাধ্যমে বিশ্বে সচেতনতা গড়ে তোলা যাবে : বৃটেনের প্রবীণ ইহুদি নেতা

Sample Image১৫ সেপ্টেম্বর (রেডিও তেহরান): ফিলিস্তিনীদের ওপর যে মর্মান্তিক নির্যাতন চলছে বিশ্ব মনে হয় সে দিক থেকে দৃষ্টি ফিরিয়ে নিয়েছে, আল কুদস দিবসের মাধ্যমে অধিকৃত ফিলিস্তিনে যে ঔপনিবেশিক তৎপরতা চলছে তা বিরুদ্ধে বিশ্বে সচেতনতা গড়ে তোলা যাবে - এই মন্তব্য করেছেন বৃটেনের একজন প্রবীণ ইহুদি নেতা।
ম্যানচেস্টারের ইহুদি ধর্মগুরু রাব্বি আহরন কোহেন ইরানের বার্তা সংস্থা ইরনাকে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে আরো বলেছেন, নিজ ভূমিতে ফিলিস্তিনিরা অপরিসীম অন্যায়ের শিকারে পরিণত হচ্ছে। এ আল কুদস দিবস উদযাপনের মাধ্যমে যায়নিজম বা ইহুদীবাদের মোকাবেলা করার কাজ এগিয়ে নেয়া সম্ভব হবে। ফিলিস্তিনের কথা আসলেই তারা ইহুদি ধর্ম এবং ইহুদীবাদকে এক করে ফেলে। কাজেই আল কুদস দিবসের প্রধান বৈশিষ্ট্য হলো, ফিলিস্তিনিরা যে অন্যায়ের বলি হচ্ছে এবং তাদের উপর সীমাহীন নির্যাতন চলছে তা তুলে ধরা। লন্ডনে আল কুদস দিবস উপলক্ষ্যে যে শোভাযাত্রা হবে তাতে ইহুদি এই পুরোহিত যোগ দিবেন কিনা জানতে চাওয়া হলে রাব্বি আহরন কোহেন তার হ্যা সূচক জবাব দেন। তিনি বলেন, প্রাচীন ইহুদি ধর্ম বলতে কি বোঝান হয় তা দেখিয়ে দেয়া এখন খুবই প্রয়োজনীয় হয়ে দাঁড়িয়েছে। তিনি বলেন, বিশ্বকে বিভ্রান্ত করার কাজে ইহুদিবাদী বা যায়নিষ্টরা সফল হয়েছে এবং ইহুদিবাদ ও ইহুদিধর্ম এক ও অভিন্ন চাতুরির মাধ্যমে বিশ্বের কাছে তা তুলে ধরেছে। অথচ বাস্তব বিষয় হলো আধুনিককালে ইহুদিবাদের উদ্ভব ঘটেছে। অনান্য জনগোষ্ঠির উপর ঔপনিবেশিক তৎপরতা চালানোর মাধ্যমে তাদেরকে নির্যাতন করাই এই উগ্র এবং জঙ্গী মতবাদের লক্ষ্য। এই মতবাদের সাথে ইহুদিধর্ম মতের ব্যাপক পার্থক্য রয়েছে। ইহুদিধর্ম অন্য মানুষের প্রতি ভালোবাসা এবং সহিষ্ণুতা প্রদর্শন করে। গত একশ বছরে যায়নিজম বা ইহুদিবাদের উদ্ভব ও বিকাশ ঘটেছে এ কথা উল্লেখ করে রাব্বি আহরন কোহেন আরো বলেন, ধর্মপ্রাণ ইহুদিরা এই মতবাদের বিরোধিতা করছে। তবে ইহুদিবাদ জনগণেকে বিভ্রান্ত করতে পেরেছে। বিশ্বকে বিভ্রান্ত করতে পেরেছে। ইহুদিবাদ ও ইহুদিধর্ম একই- এ কথা মানুষকে বিশ্বাস করাতে তারা সক্ষম হয়েছে। অথচ প্রকৃতপক্ষে ইহুদিবাদ ও ইহুদিধর্ম দুইটির অবস্থান দুই মেরুতে। তিনি বলেন, বিশ্ব কুদস দিবস উদযাপনের মধ্য দিয়ে বিশ্বে সচেতনতা বৃদ্ধি পায়, ফিলিস্তিনের যথার্থ পরিস্থিতি এবং ইহুদিবাদের আমল প্রকৃতি তুলে ধরা যায়।

মধ্যপ্রাচ্যে শান্তি প্রতিষ্ঠার ব্যাপারে প্রশ্ন করা হলে বৃটেনের প্রবীণ এই ইহুদি ধর্মযাজক বলেন, ইহুদিবাদ যে একটি বিভ্রান্ত মতবাদ সে সম্পর্কে বিশ্বের ধারণা পরিস্কার না হওয়া পর্যন্ত কোনো সংহতি হবে না। তিনি বলেন, পাশ্চাত্য গত কয়েক দশক ধরে মধ্যপ্রাচ্যে শান্তি প্রতিষ্ঠার চেষ্টা করছে তবে তাদের সে প্রচেষ্টা সফল হয়নি। তিনি এর কারণ ব্যাখ্যা করতে যেয়ে বলেন, কারণ তারা দুইটি পরস্পরবিরোধী বিষয় অর্থাৎ ইহুদিবাদ ও ফিলিস্তিনিদের অধিকারের মধ্যে সংহতি স্থাপনের চেষ্টা করছে। আল কুদস দিবসে যে শোভাযাত্রা করা হয় সে রকম প্রতিবাদ শোভাযাত্রার মধ্য দিয়ে ফিলিস্তিদের দুঃখ-দুর্দশা লাঘব হতে পারে বলে তিনি জানান। ফিলিস্তিনিরা চরম এক অন্যায়ের শিকারে পরিণত হয়েছে সবাইকে আজ এ কথা স্বীকার করতে হবে বলে তিনি জানান।#


মন্তব্য লিখুন


Security code
রিফ্রেস দিন