এই ওয়েবসাইটে আর আপডেট হবে না। আমাদের নতুন সাইট Parstoday Bangla
বৃহস্পতিবার, 03 ডিসেম্বর 2015 15:12

ইরানে পরমাণু কর্মসূচি নিয়ে আমানোর প্রতিবেদন: সংকট নিরসনে আশাবাদ

ইরানে পরমাণু কর্মসূচি নিয়ে আমানোর প্রতিবেদন: সংকট নিরসনে আশাবাদ

৩ ডিসেম্বর (রেডিও তেহরান): আন্তর্জাতিক পরমাণু শক্তি সংস্থা বা আইএইএ’র প্রধান ইউকিয়া আমানো এক প্রতিবেদনে ইরানের পরমাণু কর্মসূচির ব্যাপারে অতীত ও বর্তমান কর্মকাণ্ড তুলে ধরেছেন। তিনি বলেছেন, ইরানের পরমাণু কর্মসূচিতে বিচ্যুতি বা এটির লক্ষ্য উদ্দেশ্য যে সামরিক তার কোনো প্রমাণ পাওয়া যায়নি। আইএইএ’র সদস্য ৩৫টি দেশের কাছে প্রতিবেদন তুলে ধরে আমানো বলেছেন, পরমাণু বিষয়ে অতীত ও বর্তমান কর্মকাণ্ডের বিষয়ে যাবতীয় তথ্য লিখিতভাবে ইরান সরবরাহ করেছে।

 

প্রতিবেদনের প্রথম অংশে আমানো ২০০২ সাল থেকে ইরানের পরমাণু কর্মসূচির ব্যাপারে তদন্ত প্রক্রিয়া, এ বিষয়ে জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদে প্রতিবেদন পাঠানো এবং এ পরিষদে ইরান বিরোধী প্রস্তাব গ্রহণের বিষয়ে সংক্ষিপ্ত বর্ণনা তুলে ধরেছেন। প্রতিবেদনের দ্বিতীয় অংশে আইএইএ’র সঙ্গে ইরানের গঠনমূলক সহযোগিতা, ছয় জাতিগোষ্ঠীর সঙ্গে ইরানের দফায় দফায় পরমাণু আলোচনা ও শেষ পর্যন্ত ২০১৩ সালের নভেম্বরে সহযোগিতা বিষয়ে চুক্তি সই এবং নিরাপত্তা পরিষদে ২২৩১ নম্বর প্রস্তাব পাশের কথা উল্লেখ করেছেন।
ইউকিয়া আমানো তার প্রতিবেদনের তৃতীয় অংশে চলতি বছরের জুলাইয়ে আইএইএ’র সঙ্গে ইরানের আরো কিছু বিষয়ে সমঝোতার কথা উল্লেখ করেছেন যেখানে এ বছরের শেষ নাগাদ পরমাণু নিয়ে বিতর্কের পুরোপুরি অবসান ঘটানোর কথা বলা হয়েছে।

 

ইউকিয়া আমানো তার প্রতিবেদনে আরো বলেছেন, ২০০৯ সালের পর ইরান পরমাণু বিস্ফোরণের সরঞ্জাম তৈরির কাজ করেনি। এ ছাড়া, দেশটির পরমাণু জ্বালানি চক্র এবং দেশটির পরমাণু কর্মসূচির লক্ষ্য সামরিক হওয়ার বিষয়েও কোনো প্রমাণ পাওয়া যায়নি। ইউকিয়া আমানো তার প্রতিবেদনের প্রথম অংশে ইরানের পরমাণু কর্মসূচির ব্যাপারে দাবি করেছেন, দেশটি ২০০৩ সালে পরমাণু বিস্ফোরণের সরঞ্জাম তৈরির কাজ করেছে এমন কি ২০০৩ সালের পরও এ ব্যাপারে কিছু কিছু তৎপরতা চালিয়েছে।

 

ইরানের পরমাণু কর্মসূচির ব্যাপারে ইউকিয়া আমানোর প্রতিবেদনের বিষয়ে আগামী ১৫ তারিখে ভিয়েনায় এ সংস্থার নির্বাহী বোর্ডের বৈঠকে পর্যালোচনা হবে এবং ওই বৈঠকেই বোর্ডের সদস্য দেশগুলো ইরানের ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নেবে। ইউকিয়া আমানোর প্রতিবেদন প্রকাশের পর এক প্রতিক্রিয়ায় ইরানের উপ পররাষ্ট্রমন্ত্রী এবং শীর্ষ পরমাণু আলোচক আব্বাস আরাকচি বলেছেন, আমানোর প্রতিবেদন থেকে প্রমাণিত হয়েছে ইরানের পরমাণু কর্মসূচিতে বিচ্যুতির কোনো প্রমাণ পাওয়া যায়নি এবং দেশটির পরমাণু কর্মসূচি সম্পূর্ণ শান্তিপূর্ণ। তিনি বলেন, প্রতিবেদনে এটাও স্বীকার করা হয়েছে যে, ইরান সব প্রতিশ্রুতি পালন করেছে। এ অবস্থায় ছয় জাতিগোষ্ঠী এবং আইএইএ’র নির্বাহী বোর্ডেরও উচিৎ পরমাণু সমঝোতা অনুযায়ী ইরানের পরমাণু কর্মসূচি নিয়ে বিতর্কের অবসান ঘটানোর জন্য পদক্ষেপ নেয়া।

 

আইএইএতে নিযুক্ত ইরানের প্রতিনিধি রেজা নাজাফিও আমানোর প্রতিবেদনকে না সাদা না কালো বলে অভিমত ব্যক্ত করেছেন। তিনি বলেন, প্রতিবেদনের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বিষয়টি হচ্ছে, ইরানের পরমাণু কর্মসূচিতে বিচ্যুতির কোনো প্রমাণ পাওয়া যায়নি এবং দেশটি সব প্রতিশ্রুতি পালন করেছে বলে স্বীকার করে নেয়া হয়েছে।

 

ইরানের পরমাণু কর্মসূচির ব্যাপারে আইএইএ’র প্রতিবেদন প্রকাশের পর মার্কিন সরকারও একে স্বাগত জানিয়ে বলেছে, এ প্রতিবেদন ইরানের ওপর থেকে নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহারে ভূমিকা রাখবে। মার্কিন পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র মার্ক টোনার বলেছেন, আমানোর প্রতিবেদন ইরানের পরমাণু কর্মসূচির ব্যাপারে সব সন্দেহের অবসান ঘটাবে। মার্কিন কর্মকর্তাদের উদ্ধৃতি দিয়ে বিবিসি ফার্সি চ্যানেলও মন্তব্য করেছে, আইএইএ’র নির্বাহী বোর্ড ইরানের বিষয়ে বিতর্ক অবসানে সিদ্ধান্ত নেবে। #

 

রেডিও তেহরান/আরএইচ/৩

 

 

 

মন্তব্য লিখুন


Security code
রিফ্রেস দিন