এই ওয়েবসাইটে আর আপডেট হবে না। আমাদের নতুন সাইট Parstoday Bangla

ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী ডেভিড ক্যামেরন বলেছেন, ২৮ জাতির জোট ইউরোপীয় ইউনিয়ন বা ইইউ থেকে বেরিয়ে গেলে আরেকটি বিশ্বযুদ্ধের ঝুঁকি বেড়ে যাবে। তিনি আজ (সোমবার) আরো পরে এ বিষয়ে ব্রিটিশ নাগরিকদের সতর্ক করে বক্তৃতা করবেন। ইইউ থেকে ব্রিটেনের বের হয়ে যাওয়া ঠেকাতে তিনি সম্ভাব্য সব প্রচেষ্টা চালাবেন বলে মনে করা হচ্ছে।

ভারতের উত্তর প্রদেশের অযোধ্যায় রাম মন্দির নির্মাণের ঘোষণা দেয়ায় সাধু-সন্তদের ওপর তীব্র অসন্তোষ প্রকাশ করেছেন বাবরী মসজিদ মামলার প্রধান বাদী হাশিম আনসারী। তিনি হুঁশিয়ারি দিয়ে বলেছেন, ‘কেউ যেন আইনকে বিদ্রূপ না করে, তাহলে দেশ ধ্বংস হয়ে যাবে।’

 

হাশিম আনসারী বলেছেন, ‘মসজিদকে তো ধ্বংস করে দেয়া হয়েছে। কিন্তু এবার যদি মন্দির তৈরি করার চেষ্টা করা হয় তাহলে মন্দিরও তৈরি হয়ে যাবে। কিন্তু দেশ বিধ্বস্ত এবং ধ্বংস হয়ে যাবে।’

 

শনিবার সাধু-সন্তদের একটি দল উজ্জয়নীতে অখিল ভারতীয় সাধু সম্মেলন এবং ধর্ম সংসদে ঘোষণা করেছেন, আগামী ৯ নভেম্বর থেকে অযোধ্যায় রাম মন্দির নির্মাণের কাজ শুরু হবে। সাধুদের দাবি, ‘রাম মন্দির নির্মাণের সঙ্গে কেন্দ্রীয় মোদি সরকারের কোনো সম্পর্ক নেই। মানুষের সহযোগিতাতেই মন্দির নির্মাণ করা হবে।’

 

ধর্ম সংসদের ওই সভায় সাধু-সন্তদের মধ্যে সাধু আত্মানন্দ, শাশ্বতানন্দ, নরেন্দ্রানন্দ, সুদর্শন মহারাজ, শ্রীমহন্ত অবধ কিশোর দাস, চন্দ্রদেব দাসসহ অন্যান্যরা উপস্থিত ছিলেন।

 

উত্তর প্রদেশের বিজেপি প্রেসিডেন্ট কেশব প্রসাদ মৌর্য সাধু-সন্তদের সিদ্ধান্তকে স্বাগত জানিয়েছেন। তিনি বলেছেন, আমরা সুপ্রিম কোর্টের সিদ্ধান্তকে স্বাগত জানাই, কিন্তু সাধুদেরও শ্রদ্ধা করি। তিনি বলেন, ‘আমি চাই আজই নির্মাণ কাজ শুরু হোক। কিন্তু সুপ্রিম কোর্টে বিষয়টি বিচারাধীন রয়েছে। সেখান থেকে সিদ্ধান্ত এলে তখন নির্মাণ করা হবে। যদিও সাধুরা যা বলেছেন, আমরা তাকে সম্মান জানাই।’

 

গত ৫ মে বৃহস্পতিবার সংসদের উচ্চকক্ষ রাজ্যসভায় রাম মন্দির নির্মাণ প্রসঙ্গ তুলে ধরেন বিজেপি সংসদ সদস্য সুব্রমনিয়াম স্বামী। তিনি সুপ্রিম কোর্টে দৈনিক এ সংক্রান্ত মামলার শুনানির দাবিতে জোরালো সাফাই দেন। এ নিয়ে সরকারের বিবৃতিও দাবি করেন তিনি।

 

উত্তর প্রদেশে আসন্ন নির্বাচনের মুখে হিন্দুত্ববাদীদের মুখে রাম মন্দির নির্মাণের জিগির তোলা আসলে বিজেপি’র পক্ষে হাওয়া তুলে নির্বাচনি বৈতরণী পার হওয়ার কৌশল বলে মনে করছেন বিশ্লেষকরা। #

 

এমএএইচ/এআর/৯

 

 

 

 

রাজধানীর পল্টন থানায় দায়ের করা নাশকতা ও বোমা বিস্ফোরণের মামলায় জামিন পেয়েছেন বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

 

আজ (সোমবার) ঢাকা মহানগর হাকিম মারুফ হোসেনের আদালতে আইনজীবী সানাউল্লাহ মিয়া ও জয়নুল আবেদীনের মেজবার মাধ্যমে আত্মসমর্পণ করে জামিনের আবেদন করেন মির্জা ফখরুল। শুনানি শেষে আদালত তার জামিন আবেদন মঞ্জুর করেন।

 

এ মামলার চার্জশিট আসা পর্যন্ত তিনি হাইকোর্টে জামিনে ছিলেন। গত ৩ মে মামলাটিতে দণ্ডবিধি ও বিস্ফোরক আইনে পৃথক পৃথকভাবে দু’টি চার্জশিট আদালতে দাখিল করেছে পল্টন থানা পুলিশ। ফলে আইন অনুসারে আজ সকালে নতুন করে বিচারিক আদালতে আত্মসমর্পণ করে জামিন চেয়েছেন তিনি। পরে নাশকতার এক মামলায় তিনি জামিন পান।

 

২০১৪ সালের ২৯ ডিসেম্বর নাশকতা ও বোমা বিস্ফোরণের অভিযোগ এনে মামলাটি দায়ের করা হয়েছিল। বিএনপির হরতাল-অবরোধ চলাকালে আগেরদিন পল্টনে গাড়ি ভাঙচুর ও পেট্রোল বোমা নিক্ষেপের অভিযোগে মামলাটি (নং: ৪৬(১২/১৪) করে পল্টন থানা পুলিশ।

 

গত ৩ মে বিকালে সিএমএম আদালতে মামলার তদন্ত কর্মকর্তা পল্টন থানার এসআই তবিবুর রহমান দণ্ডবিধি ও বিস্ফোরক আইনে পৃথক পৃথকভাবে চার্জশিট দু’টি দাখিল করেন। চার্জশিটে মির্জা ফখরুল ইসলাম ছাড়াও রুহুল কবির রিজভী, মির্জা আব্বাস, ব্যারিস্টার রফিকুল ইসলাম মিয়া, আমানউল্লাহ আমান, শহিদ উদ্দিন চৌধুরী এ্যানিসহ বিএনপির ৪৩ জন নেতাকর্মীকে আসামি করা হয়েছে। #

 

এআর/৯

 

 

 

 

ইরাকের উত্তরাঞ্চলীয় কিরকুক শহরের দক্ষিণে দায়েশ সন্ত্রাসীরা রাসায়নিক হামলা চালিয়েছে। আলিউম আস্‌ সাবা বার্তা সংস্থা জানিয়েছে, গতরাতের ওই হামলায় কুর্দি পিশমার্গা বাহিনীর বেশ ক’জন সদস্য আহত হয়েছে।

দায়েশ বা আইএসআইএলের ওপর আঘাতের ক্ষেত্রে তুরস্ককে অন্যদের চেয়ে অগ্রগামী হিসেবে দাবি করেছেন তুর্কি প্রেসিডেন্ট রজব তাইয়্যেব এরদোগান। সিরিয়ায় তৎপর দায়েশ বা আইএসআইএলের প্রতি তুর্কি সরকারের ব্যাপক সমর্থনের বিষয়টি যখন প্রায় সবার কাছে প্রমাণিত ঠিক তখনই তিনি এ দাবি করলেন।