এই ওয়েবসাইটে আর আপডেট হবে না। আমাদের নতুন সাইট Parstoday Bangla
শনিবার, 07 মে 2016 11:11

'ইসরাইলকে পুরোপুরি ধ্বংসের ক্ষমতা রাখে হিজবুল্লাহ'

'ইসরাইলকে পুরোপুরি ধ্বংসের ক্ষমতা রাখে হিজবুল্লাহ'

লেবাননের জনপ্রিয় ইসলামী প্রতিরোধ আন্দোলন হিজবুল্লাহর উপমহাসচিব শেইখ নায়িম কাসিম বলেছেন, ইহুদিবাদী ইসরাইলকে পুরোপুরি ধ্বংস করে দেয়ার মত সামগ্রী বা উপায়-উপকরণ আমাদের হাতে রয়েছে। 

 

হিজবুল্লাহ দখলদার ইসরাইলকে মোকাবেলার জন্য সর্বোচ্চ মাত্রায় প্রস্তুত রয়েছে বলে তিনি জানান। বিশ্ব সংগ্রামী ওলামা ইউনিয়নের এক বৈঠকে শেইখ নায়িম কাসিম এসব কথা বলেছেন। 

 

হিজবুল্লাহর উপমহাসচিব বলেন, আমরা বিজয়ের ব্যাপারে নিশ্চিত। সংগ্রামী মুজাহিদদের পবিত্র রক্তের সুবাদে লেবানন ও ফিলিস্তিনে ইসরাইল কখনও শান্তি আর স্থিতিশীলতা দেখতে পাবে না বলে তিনি মন্তব্য করেন। 

 

হিজবুল্লাহর উপমহাসচিব ইহুদিবাদী ইসরাইলের প্রতি সৌদি সরকারের সেবাদাসত্বের নিন্দা জানিয়ে বলেছেন, সৌদি সরকার প্রকাশ্যেই ঘোষণা করেছে যে তারা ইসরাইলি পরিকল্পনার সমর্থক ও সহযোগী এবং তারা ফিলিস্তিনে ফিলিস্তিনি জনগণের ফিরে আসার এবং তাদের অধিকার ফিরিয়ে দেয়ার বিরোধী। 

 

শেইখ নায়িম কাসিম ফিলিস্তিনে ইসরাইল ও ফিলিস্তিন নামক দুই রাষ্ট্র গড়ে তোলার আপোষ প্রস্তাবের বিরোধিতা করে বলেন, এই প্রস্তাব ফিলিস্তিনে ইসরাইলি দখলদারিত্বকে বৈধতা দেবে। আমরা সর্বশক্তি দিয়ে তা মোকাবেলা করব।

 

সৌদি সরকার গাজা ও পশ্চিম তীরের ওপর ফিলিস্তিনি কর্তৃত্ব প্রতিষ্ঠার বিনিময়ে ইসরাইলকে স্বীকৃতি দেয়ার একটি প্রস্তাব উত্থাপন করেছে প্রায় দুই দশক আগে। কিন্তু সংগ্রামী ফিলিস্তিনি দলগুলো ও ইসরাইল ওই প্রস্তাবে সাড়া দেয়নি।

 

হিজবুল্লাহর উপমহাসচিব আরও বলেন, বর্তমানে পশ্চিম এশিয়া ও মধ্যপ্রাচ্যে মুসলিম উম্মাহর বিরুদ্ধে হিংস্র পরিকল্পনা বাস্তবায়নের জন্য ময়দানে সক্রিয় রয়েছে মার্কিন সরকার, ইসরাইল এবং তাকফিরি-ওয়াহাবি সন্ত্রাসীরা। তিনি বলেন, এ অঞ্চলের সব যুদ্ধে লাভ হচ্ছে ইসরাইলের, আর সৌদি সরকারও ইসরাইল ও তাকফিরিদের সহায়তা দিচ্ছে।

 

ইহুদিবাদী ইসরাইল এক সময় মধ্যপ্রাচ্যে অপরাজেয় শক্তি বলে দাবি করলেও হিজবুল্লাহর সঙ্গে দু'টি বড় যুদ্ধে মারাত্মকভাবে বিপর্যস্ত হয়। এর আগে ইসরাইল মাত্র কয়েক ঘণ্টার মধ্যে ৬ টি শক্তিশালী আরব দেশের জোটকে পরাজিত করেছিল।  #

 

মু. আমির হুসাইন/৭

 

 

 

 

মন্তব্য লিখুন


Security code
রিফ্রেস দিন