এই ওয়েবসাইটে আর আপডেট হবে না। আমাদের নতুন সাইট Parstoday Bangla
শনিবার, 23 এপ্রিল 2016 14:30

নারদ স্টিং কেলেঙ্কারি নিয়ে অস্বস্তিতে তৃণমূল, সুপ্রিম কোর্টে মামলা

মমতা বন্দোপাধ্যায়- ম্যাথু স্যামুয়েল মমতা বন্দোপাধ্যায়- ম্যাথু স্যামুয়েল

পশ্চিমবঙ্গে ক্ষমতাসীন তৃণমূলের মধ্যে নারদ স্টিং কেলেঙ্কারি নিয়ে নতুন করে ব্যাপক অস্বস্তি শুরু হয়েছে। আগেই এই বিষয়টি কোলকাতা হাই কোর্টে উঠেছে এবং এ নিয়ে শুনানি শুরু হয়েছে। অন্যদিকে, সংসদের এথিক্স কমিটিতেও উঠেছে এই বিষয়টি। এবার এই ইস্যুতে সুপ্রিম কোর্টে জনস্বার্থ মামলা দায়ের করেছেন কোলকাতার বিপ্লব কুমার চৌধুরী নামে এক ব্যক্তি।

 

আগামী মাসের প্রথম সপ্তাহে এ নিয়ে শুনানি হতে পারে বলে মামলাকারী পক্ষের আইনজীবী শুভাশিস ভৌমিক জানান। তিনি বলেন, ‘সুপ্রিম কোর্টে দায়ের করা জনস্বার্থ মামলায় অভিযুক্ত তৃণমূল সংসদ সদস্য এবং বিধায়কদের গণতান্ত্রিক পদ থেকে বহিষ্কার করতে আদালতের হস্তক্ষেপ দাবি করা হয়েছে।’

 

অন্যদিকে, রাজ্যে নির্বাচন চলাকালীন নারদ নিউজের সিইও ম্যাথু স্যামুয়েল শুক্রবার কোলকাতা প্রেস ক্লাবে এক সাংবাদিক সম্মেলন করে নতুন করে অস্বস্তি বাড়িয়েছেন। তিনি বলেছেন, তার কাছ থেকে তৃণমূল নেতারা ঘুষের টাকা নিয়েছিলেন; এটা কোনো অনুদানের টাকা নয়।

 

তৃণমূলের পক্ষ থেকে অবশ্য সাংবাদিক সম্মেলন নিয়ে তীব্র আপত্তি তোলা হয়েছে। দলটির মহাসচিব পার্থ চট্টোপাধ্যায় বলেন, ‘নারদ নিয়ে ব্ল্যাকমেল করা হচ্ছে। এ নিয়ে হাই কোর্টে মামলা চলার পাশাপাশি লোকসভার এথিক্স কমিটিও বিষয়টি খতিয়ে দেখছে। তা সত্ত্বেও কোলকাতায় সাংবাদিক সম্মেলন করে মানুষকে বিভ্রান্ত করার চেষ্টা হচ্ছে।’

 

পরিস্থিতি সামাল দিতে নির্বাচন শেষ না হওয়া পর্যন্ত ম্যাথু স্যামুয়েল যাতে সাংবাদিক সম্মেলন না করতে পারেন সেজন্য তৃণমূলের পক্ষ থেকে নির্বাচন কমিশনের কাছে আবেদন জানানো হয়েছে।

 

নারদ স্টিংয়ের এক ভিডিও চিত্রে তৃণমূলের শীর্ষ নেতাদের কয়েক লাখ টাকা করে ঘুষ নিতে দেখা যাওয়ায় রাজনৈতিক মহলে ব্যাপক আলোড়ন সৃষ্টি হয়েছে। রাজ্য বিধানসভা নির্বাচনে এই ইস্যুতে বিরোধীরা চেপে ধরায় কার্যত মহাফাঁপরে পড়েছে তৃণমূল।

 

অন্যদিকে, নারদ স্টিং কেলেঙ্কারি নিয়ে প্রবল চাপের মুখে পড়েছেন তৃণমূল নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। শুক্রবার তিনি এক নির্বাচনি সভায় বলেন, ‘নির্বাচনের সময় টাকা খাইয়ে ঘটনা সাজিয়ে সব ঢঙ করা হচ্ছে?’ বৃহস্পতিবার তিনি এই ইস্যুতে বলেছিলেন, ‘সব সংসারেই কিছু না কিছু ঘটে থাকে। মায়ের পাঁচটা ছেলে থাকলে এক-আধটা দুষ্টু হয়।’

 

শুক্রবারও কার্যত এই মন্তব্যের পুনরাবৃত্তি করে মমতা বলেন, ‘সংসারে ২০ টা ছেলে থাকলে দু’একজন দুষ্টু হতে পারে। সংসারে সবাই এক হয় না। তাদের আমরা নিয়ন্ত্রণে রেখে দিয়েছি।’

 

এই সব মিলিয়ে নির্বাচনের মুখে নারদ স্টিং কেলেঙ্কারি নিয়ে ঘটনা প্রবাহের জেরে রাজ্যে ক্ষমতাসীন তৃণমূল কংগ্রেস ব্যাপক অস্বস্তিতে পড়েছে বলে রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা মনে করছেন।# (এমএএইচ/এআর)

 

 

মন্তব্য লিখুন


Security code
রিফ্রেস দিন