এই ওয়েবসাইটে আর আপডেট হবে না। আমাদের নতুন সাইট Parstoday Bangla
রবিবার, 24 এপ্রিল 2016 19:19

দুই তৃণমূল নেতার বিরুদ্ধে এফআইআর দায়ের করলেন সিপিএম নেতা

দুই তৃণমূল নেতার বিরুদ্ধে এফআইআর দায়ের করলেন সিপিএম নেতা

ভুয়ো এবং কারসাজি করা ছবি প্রচার করার অভিযোগে পশ্চিমবঙ্গের তৃণমূল নেতা ডেরেক ও ব্রায়েনের বিরুদ্ধে এফআইআর করলেন সিপিএম নেতা প্রকাশ কারাত। পার্লামেন্টের উচ্চকক্ষ রাজ্যসভায় তৃণমূলের দলনেতা এবং জাতীয় মুখপাত্র ডেরেক ও ব্রায়েনের বিরুদ্ধে আজ (রোববার) দিল্লির মন্দির মার্গ থানায় অভিযোগ দায়ের হয়েছে।

 

বাম-কংগ্রেস জোট এবং বিজেপিকে বিপাকে ফেলতে এবং সিপিএমের সঙ্গে বিজেপি’র ঘনিষ্ঠতা বোঝাতে গিয়ে শনিবার কয়েকটি ছবি দেখিয়ে সাংবাদিক বৈঠক করেন তৃণমূল নেতা ডেরেক ও’ব্রায়েন। ছবিতে দেখানো হয়েছে, দিল্লিতে বিজেপির সদর দপ্তরে রাজনাথ সিং সিপিএমের সাবেক সাধারণ সম্পাদক প্রকাশ কারাতকে লাড্ডু খাওয়াচ্ছেন! তৃণমূলের ওয়েবসাইটেও ওই ছবি দেয়া হয়। এরপরেই এ নিয়ে রাজ্য রাজনৈতিক মহলে তীব্র আলোড়ন সৃষ্টি হয়।

 

বিজেপির পক্ষ থেকে পাল্টা একটি ছবি পেশ করে বলা হয়, তৃণমূলের প্রকাশিত ছবিটি ভুয়ো। আসল ছবিতে প্রকাশ কারাতের জায়গায় রয়েছেন নরেন্দ্র মোদি। গত লোকসভা ভোটে নরেন্দ্র মোদির নাম প্রধানমন্ত্রীর পদপ্রার্থী ঘোষিত হওয়ার পর রাজনাথ সিং মোদিকে লাড্ডু খাওয়াচ্ছেন। সেই ছবি ‘সুপার ইমপোজ’ করে নরেন্দ্র মোদির জায়গায় সিপিএম নেতা প্রকাশ কারাতকে বসানো হয়েছে।

 

এ নিয়ে সিপিএম, কংগ্রেস এবং বিজেপি’র পক্ষ থেকে তীব্র ক্ষোভ প্রকাশ করে বিবৃতি দেয়া হয় এবং কারসাজি’র অভিযোগে ডেরেকের বিরুদ্ধে পদক্ষেপ নেয়ার হুঁশিয়ারি দেয়া হয়।

 

আজ প্রকাশ কারাত বলেন, তাকে এবং তার দলের মর্যাদাহানির জন্য এই কাজ করা হয়েছে। এ জন্য দিল্লি পুলিশের কাছে অভিযোগ করা হয়েছে। সাইবার ক্রাইম অ্যাক্টে অবিলম্বে ডেরেক ও ব্রায়েনের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ারও দাবি করেছেন কারাত। কখনো রাজনাথ সিংয়ের সঙ্গে তার সাক্ষাৎ হয়নি বলেও কারাত জানিয়েছেন।

 

এভাবে মূলত বাম-কংগ্রেস জোট এবং বিজেপিকে বিপাকে ফেলতে কারসাজি করা ছবি প্রচার করতে গিয়ে তৃণমূল তথা ডেরেক ও ব্রায়েন নিজেই বিপাকে পড়েছেন।

 

বিপদ বুঝেই অবশ্য শনিবার তড়িঘড়ি করে নিজেদের ওয়েবসাইট থেকে ওই ভুয়ো ছবি সরিয়ে নিয়ে ভুল স্বীকার করে তৃণমূল। ডেরেক ও ব্রায়েন সাফাই দিয়ে বলেন, সাংবাদিক বৈঠকে ২টি ভিডিও এবং ৬টি ছবি দেখানো হয়েছিল। যার মধ্যে একটিতে কারসাজি করা হয়েছে বুঝতে পেরেই আমাদের রিসার্চ টিম সেটি সরিয়ে দিয়েছে। আমাদের এটা ভুল হয়েছে। যদিও এই বিতর্ক যে থামছে না তা আজকের এফআইআর দায়েরের মধ্য দিয়েই স্পষ্ট হয়েছে।#

 

এমএএইচ/জিএআর/২৪

 

মন্তব্য লিখুন


Security code
রিফ্রেস দিন