এই ওয়েবসাইটে আর আপডেট হবে না। আমাদের নতুন সাইট Parstoday Bangla
শনিবার, 30 এপ্রিল 2016 19:21

তীব্র দাবদাহ ও বিদ্যুতের লোডশেডিং; চরম দুর্ভোগে সাধারণ মানুষ

তীব্র দাবদাহ ও বিদ্যুতের লোডশেডিং; চরম দুর্ভোগে সাধারণ মানুষ

বাংলাদেশের ওপর দিয়ে বয়ে যাচ্ছে তীব্র দাবদাহ। বৈশাখ মাসের অর্ধেক পার হতে চললেও দেখা নেই কালবৈশাখীর। চলছে রেকর্ড একটানা তাপপ্রবাহ, যা গত ৩০ বছরের মধ্যে ঘটেনি। শুক্রবার এ মৌসুমের সর্বোচ্চ তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয় রাজশাহীতে, ৪০.২ ডিগ্রি সেলসিয়াস। ঢাকাতেও ৩৫ থেকে ৩৬ ডিগ্রির মধ্যে থাকছে দিনের তাপমাত্রা।

 

তীব্র এই গরমে বিদ্যুতের লোডশেডিং যোগ করেছে বাড়তি ভোগান্তি। বিদ্যুৎ উৎপাদন সক্ষমতা বাড়লেও চাহিদা অনুযায়ী সরবরাহ না হওয়ায়, এখাতের সাফল্য নিয়ে প্রশ্ন তুলছেন অনেক।

 

এ নিয়ে বগুড়ার স্থানীয় সাংবাদিক মহসীন আলী রাজু জানান, উত্তরাঞ্চলে তীব্র তাপদাহের এ চিত্র মানুষ গেল ৩০ বছরে দেখেনি। এমন পরিস্থিতিতে বিদ্যুতের সরবরাহও চাহিদার তুলনায় কম। স্থানীয় বিদ্যুৎ বিভাগের কর্মকর্তারা জানান, প্রচণ্ড গরমে উৎপাদন যন্ত্রগুলো অনেকটা অচল হয়ে পড়ায় সক্ষমতা অনুযায়ী বিদ্যুৎ উৎপাদন সম্ভব হচ্ছে না। যার কারণে মানুষের ভোগান্তি কমছে না।

 

বেনাপোল স্থল বন্দর এলাকায় সকাল থেকে বিকেল সাড়ে চারটা পর্যন্ত বিদ্যুৎ ছিল না বলে জানিয়েছেন স্থানীয় সাংবাদিক মহসীন মিলন। এ পরিস্থিতিতে একান্ত বাধ্য না হলে সাধারণ মানুষ ঘরেই অবস্থান করছে এবং মাঠে ঘাটে খেটে খাওয়া মানুষের উপস্থিতিও কম বলে জানান তিনি।

 

জ্বালানি বিশেষজ্ঞ ড. শামসুল আলম বলেন, মানুষের চাহিদা অনুযায়ী বিদ্যুৎ সরবরাহ করতে পারাটাই আসলে সার্বিক সাফল্য। উৎপাদন সক্ষমতা যতই বাড়ুক, মানুষ তা না পেলে সাফল্য নিয়ে প্রশ্ন উঠবেই। তাছাড়া এ সংকটকে যথাযথভাবে গুরুত্ব দেয়া হয়নি। উৎপাদন সক্ষমতা বা সরবরাহ ব্যবস্থার সঙ্গে চাহিদার সামঞ্জস্য আনা যায়নি। যার কারণে সরকারের সাফল্যকে বর্তমান পরিস্থিতি অনেকটাই ম্লান করে দেয়। এ বিষয়ে সরকারকে নজর দিতে হবে।

 

পাওয়ার গ্রিড কোম্পানি অব বাংলাদেশের তথ্য অনুযায়ী, বৃহস্পতিবার সারাদেশে বিদ্যুতের চাহিদা ছিল ৭ হাজার ৯৯০ মেগাওয়াট। কিন্তু সে অনুযায়ী সরবরাহ করা যাচ্ছে না। চলতি মাসের শুরুতে ৮৩৪৮ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ উৎপাদনের রেকর্ড হয়, সক্ষমতা আরও বেশি। কিন্তু সঞ্চালন ও সরবরাহ ব্যবস্থার কারণে মানুষ বিদ্যুৎ পাচ্ছে না বলে জানিয়েছে বিদ্যুৎ বিভাগ। শুক্রবারের মধ্যে পরিস্থিতি স্বাভাবিক হবে বলে মন্ত্রণালয় থেকে সংবাদ বিজ্ঞপ্তি দেয়া হলেও শনিবারেও ভোগান্তি কমেনি।#

 

শামস মণ্ডল/আশরাফুর রহমান/৩০

 

মাধ্যম

মন্তব্য লিখুন


Security code
রিফ্রেস দিন