এই ওয়েবসাইটে আর আপডেট হবে না। আমাদের নতুন সাইট Parstoday Bangla
রবিবার, 13 ডিসেম্বর 2015 15:38

'সর্বোচ্চ নেতার চিঠি হৃদয়ে শিহরণ সৃষ্টি করেছে '

'সর্বোচ্চ নেতার চিঠি হৃদয়ে শিহরণ সৃষ্টি করেছে '

১৩ ডিসেম্বর (রেডিও তেহরান):পশ্চিমা যুব সমাজের উদ্দেশে ইরানের সর্বোচ্চ নেতার দ্বিতীয় ঐতিহাসিক চিঠির ব্যাপারে ইতিবাচক প্রতিক্রিয়া প্রকাশ অব্যাহত রয়েছে।

 

কানাডার সাবেক অধ্যাপক ডেনিস রেনকোর্ট মনে করেন পশ্চিমা যুব সমাজের উদ্দেশে দেয়া তার দ্বিতীয় খোলা চিঠিতে ইরানের ইসলামী বিপ্লবের বর্তমান প্রধান নেতা বিশ্ব-সন্ত্রাসবাদের গভীর মনস্তাত্ত্বিক ও ভূ-রাজনৈতিক শেকড়গুলোর বিশ্লেষণ করেছেন।

 

তিনি এ চিঠির প্রতিক্রিয়ায় ইরানের সর্বোচ্চ নেতাকে ফেসবুকে লিখেছেন, ‘এই চিঠি আমার বুদ্ধিবৃত্তি ও হৃদয়ে শিহরণ জাগিয়েছে। আমি বিশ্বাস করি আপনার ব্যাখ্যা অত্যন্ত মৌলিকভাবে সঠিক এবং এ সত্যকে তুলে ধরার জন্য আপনার যোগাযোগে আমি মুগ্ধ হয়েছি। এ চিঠি পশ্চিমাদের হৃদয় ও মনকে জাগিয়ে তুলতে সহায়তা করবে বলে আমি আশা করছি।’


আয়াতুল্লাহিল উজমা খামেনেয়ীর মত নেতার অধিকারী হওয়া ইরানি জাতির জন্য সত্যিকার অর্থেই আল্লাহর অনুগ্রহ বলে কানাডীয় অধ্যাপক ডেনিস মন্তব্য করেছেন। 


পশ্চিমা যুব সমাজের উদ্দেশে দেয়া ইরানের ইসলামী বিপ্লবের বর্তমান প্রধান নেতার দ্বিতীয় খোলা চিঠি সম্পর্কে মন্তব্য করতে গিয়ে কানাডীয় অধ্যাপক ডেনিস আরও বলেছেন, ‘কানাডাতে আমাদের রাজনীতিবিদরা হলেন কেবলই দেশীয় বিষয় ও আত্ম-স্বার্থকেন্দ্রীক। তারা মার্কিন অনুগ্রহ ও গোষ্ঠীগত স্বার্থ রক্ষার জন্য প্রতিযোগিতা করেন। তারা দেশীয় গণমাধ্যমে পুরনো চর্বিত চর্বণই উগরে দেন।’


অটোয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের পদার্থবিজ্ঞানের অধ্যাপক ডেনিস রেনকোর্ট এই বিশ্ববিদ্যালয়ে জাতিগত বৈষম্য বিরাজ সংক্রান্ত এক ছাত্রের অভিযোগকে সমর্থন জানিয়েছিলেন বলে তাকে বরখাস্ত করা হয়।

 

মার্কিন শিল্পী ও রাজনৈতিক কর্মী ক্রিস এল্ডরিজ ইরানের সর্বোচ্চ নেতার এই চিঠি পড়ে বলেছেন, সুন্দর ও জোরালো এই চিঠিতে সব দরকারি আর বাস্তব কথা উঠে এসেছে। এতে রয়েছে হত্যাযজ্ঞ বন্ধের নানা অভিনব যুক্তি যা সবখানেই বলা উচিত। এ চিঠি থেকে বোঝা যায় মানুষ ও শান্তির প্রতি শ্রদ্ধা মুসলমানদের ধর্মীয় বিশ্বাসের অংশ। 

 

ইরানের সর্বোচ্চ নেতার এই চিঠির সম্ভাব্য প্রভাব পাশ্চাত্যকে দুশ্চিন্তাগ্রস্ত করেছে। তাই টুইটারে এই চিঠি শেয়ারের উদ্যোগ গ্রহণকারী অনেকেরই একাউন্ট বন্ধ করে দিয়েছে সংশ্লিষ্ট পশ্চিমা কর্তৃপক্ষ। কিন্তু  বিশ্লেষকরা বলছেন, এর ফলে পশ্চিমা যুব সমাজ আরও বেশি আকৃষ্ট হবে এই চিঠির প্রতি।

 

সম্প্রতি প্যারিসে পশ্চিমা মদদপুষ্ট তাকফিরি-ওয়াহাবি গোষ্ঠী দায়েশ বা আইএসআইএল-এর সাম্প্রতিক সন্ত্রাসী হামলার প্রেক্ষাপটে আবারও ইসলাম-বিরোধী প্রচারণা জোরদার করেছে পাশ্চাত্য।  এ অবস্থায় পশ্চিমা যুব সমাজের উদ্দেশে দ্বিতীয় চিঠিতে ইরানের সর্বোচ্চ নেতা লিখেছেন:

 

'প্রিয় তরুণ সমাজ! আমি আশা করি বর্তমানে কিংবা ভবিষ্যতে তোমরা সেই কপট ও দূষিত মানসিকতায় পরিবর্তন আনবে যে মানসিকতার শিল্প হচ্ছে সুদূরপ্রসারী লক্ষ্য গোপন করা এবং ধোঁকাবাজি আর দুরভিসন্ধিকে রঙীন অলংকারে সাজানো। ....

 

আমি তোমাদের কাছে প্রত্যাশা করব, তোমরা গভীর দৃষ্টি দিয়ে ইসলাম সম্পর্কে একটি স্বচ্ছ ধারণা লাভ করার পাশাপাশি অতীত অভিজ্ঞতাকে কাজে লাগিয়ে মুসলিম বিশ্বের ব্যাপারে একটি সঠিক ও সম্মানজনক পন্থা অবলম্বন করবে। তখন দেখবে, অচিরেই এই ভিত্তির ওপর প্রতিষ্ঠিত ভবনটি তার নির্মাতাদের ওপর বিশ্বাস ও আস্থা সৃষ্টিকারী ছায়া বিস্তার করবে, তাদেরকে শান্তি ও নিরাপত্তা উপহার দেবে এবং বিশ্ব অঙ্গনে উজ্জ্বল ভবিষ্যতের প্রতি আশার আলোর সঞ্চার করবে।' # 

 

রেডিও তেহরান/এএইচ/১৩

 

 

 

 

 

 

 

 

 

মন্তব্য লিখুন


Security code
রিফ্রেস দিন