এই ওয়েবসাইটে আর আপডেট হবে না। আমাদের নতুন সাইট Parstoday Bangla
বুধবার, 24 ফেব্রুয়ারী 2016 11:38

সুরা হুদের সংক্ষিপ্ত পরিচিতি ও দু-একটি আয়াতের ব্যাখ্যা

সুরা হুদের সংক্ষিপ্ত পরিচিতি ও দু-একটি আয়াতের ব্যাখ্যা
সুরা হুদ পবিত্র কুরআনের ১১ নম্বর সুরা। সুরা হুদের সব আয়াতই পবিত্র মক্কায় নাজিল হয়েছিল। বিশ্বনবী (সা.)’র চাচা হযরত আবু তালিব (আ.) ও হযরত খাদিজা (সা. আ.)’র ইন্তেকালের পর এই সুরা নাজিল হয়।

মক্কায় মহানবী (সা.)’র অবস্থানের শেষের বছরগুলোতে যখন এই সুরা নাজিল হচ্ছিল তখন মুসলমানদের ওপর শত্রুদের চাপ চরম পর্যায়ে উন্নীত হয়েছিল। সুরা হুদে রয়েছে ১২৩ আয়াত ও দশটি রুকু।

এই সুরার বেশিরভাগ অংশেই এসেছে ইসলামের নানা মূল নীতি ও বিশেষ করে, হযরত নুহ (আ.)’র ঘটনাসহ শির্ক আর মূর্তি পূজার বিরুদ্ধে সংগ্রামে জড়িত অতীতের অনেক নবী-রাসূলের জীবনের ঘটনা ।

সূরা হুদের ক’টি গুরুত্বপূর্ণ বিষয়ের শিরোনাম হল: আল্লাহই জীবিকাদাতা, আকাশ ও পৃথিবীর ছয় দিনে সৃষ্টি হওয়া, মনুষের অবস্থা বা বৈশিষ্ট্য, রাসূল (সা.)-এর উপদেশ, কুরআনের বাস্তবতার প্রমাণ, রাসূলের সাক্ষী কে, হযরত নুহ (আ.)-এর ঘটনা, অবাধ্যতার কারণে তাঁর সন্তানের বংশচ্যুত হওয়া, হুদ (আ.)’র জাতির ঘটনা, তওবা ও ইস্তিগফারের উপকারিতা, হযরত সালেহ (আ.)-এর ঘটনা, হযরত ইসহাক (আ.)-এর জন্মগ্রহণ, হযরত লূত (আ.)-এর ঘটনা, হযরত শোয়াইব (আ.)-এর ঘটনা, আখেরি ইমাম হযরত ইমাম মাহদি (আ.)- সম্পর্কে ভবিষ্যদ্বাণী, হযরত মুসা (আ.)-এর ঘটনা, মু’মিনদের জন্য দৃঢ়তার উপদেশ এবং শত্রুর ব্যাপক ঘৃণা ও তীব্র হামলা সত্ত্বেও ময়দান খালি করে না দেয়া, মৃত্যু-পরবর্তী জীবন, কিয়ামতের দিন মানুষের দু’ধরনের শ্রেণী-বিভাগ, জালিমকে সাহায্য করাও জুলুম এবং পাঁচ ওয়াক্তের নামায ইত্যাদি।

এই সুরার নাম হুদ রাখা হয়েছে। কারণ, এ সুরার ৫০ থেকে ৬০ নম্বর আয়াতে খুব সুন্দরভাবে হুদ (আ.)’র জীবনের ঘটনা বর্ণনা করা হয়েছে।

সুরা হুদের ৬ নম্বর আয়াতে মহান আল্লাহকে রিজিকদাতা ও সব বিষয়ে জ্ঞাত হিসেবে উল্লেখ করে বলা হয়েছে:

'আর পৃথিবীতে কোনো জীব বা প্রাণী নেই, যার জীবিকার দায়িত্ব আল্লাহ নেননি, তিনি তাদের স্থায়ী ও অস্থায়ী আবাসস্থল সম্পর্কেও জানেন। সবকিছুই সুস্পষ্ট কিতাবে (সংরক্ষিত)রয়েছে।'

মহান আল্লাহ সব জীবের কেবল স্রস্টাই নন, তাদের জীবিকাও দিয়ে থাকেন। এ ছাড়াও আল্লাহ আলো, পানি, অক্সিজেন, তাপ ও বাতাসসহ এমন সব উপকরণ যুগিয়ে দেন যাতে তারা জীবিত থাকে নির্দিষ্ট মেয়াদ পর্যন্ত। মায়ের গর্ভের শিশু ও গহীন অরণ্যের ক্ষুদ্র জীব এবং গভীর সাগরের প্রাণী থেকে শুরু করে সব জীবই জীবনের এইসব উপকরণ পেয়ে থাকে। অবশ্য আল্লাহর পক্ষ থেকে জীবিকা দান ও মানুষের প্রচেষ্টা সাংঘর্ষিক কোনো বিষয় নয়। হালাল ও পবিত্র রিজিক প্রচেষ্টা ছাড়া অর্জিত হয় না।

সুরা হুদের ২৬টি আয়াতে হযরত নুহ (আ.) জীবনের শিক্ষণীয় কিছু দিক তুলে ধরা হয়েছে। নুহ (আ.)'র জাতি ছিল অত্যন্ত দুর্বিনীত ও অত্যাচারী। সুরা হুদের ২৫ ও ২৬ নম্বর আয়াতে বলা হয়েছে:

'আর অবশ্যই আমি নূহ (আঃ) কে তাঁর জাতির কাছে পাঠিয়েছি, (তিনি বললেন) নিশ্চয়ই আমি তোমাদের জন্য প্রকাশ্য সতর্ককারী।

তোমরা আল্লাহ ছাড়া কারো ইবাদত করবে না। নিশ্চয়ই আমি তোমাদের ব্যাপারে এক যন্ত্রণাদায়ক দিনের আজাবের ভয় করছি।'

হযরত নুহ (আ.)'র যুগে তার জাতির মধ্যে নৈরাজ্য ও অনাচার ছড়িয়ে পড়েছিল। লোকেরা ন্যায়বিচার ও একত্ববাদের ধার ধারতো না এবং মূর্তি পূজা করতো। সে সময় ধনী ও দরিদ্রদের ব্যবধান দিনকে দিন বাড়ছিল। সবলরা দুর্বলদের অধিকার পদদলিত করতো। আর এ অবস্থায় নুহ (আ.)-কে নবী হিসেবে মনোনীত করেন মহান আল্লাহ এবং তাঁকে দান করেন ধর্মগ্রন্থ ও খোদায়ী বিধান তথা শারিয়াত। কিন্তু নুহ (আ.)'র জাতির লোকেরা এই মহান নবীর আহ্বানগুলো প্রত্যাখ্যান করে। শুধু তাই নয়, তাদের নেতৃস্থানীয়রাও নুহ নবীর বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ায়। তারা বলে যে, হে নুহ! তুমি তো আমাদের মতই একজন মানুষ। যারা তোমার অনুসারী তারা সরলমনা বা বোকা মানুষ ও বিভ্রান্ত। আমাদের চেয়ে তোমার মধ্যে বেশি কিছু তো দেখছি না। আমরা তোমাকে মিথ্যাবাদী বলেই মনে করছি।

নুহ (আ.) তার জাতির লোকদেরকে খোদায়ী শাস্তির ভয় দেখালেন এবং তাদেরকে সঠিক পথের দিশা দিয়ে যেতে লাগলেন। শাস্তির ভয় দেখানোর কারণ হলো এটা যে, মানুষ যতক্ষণ না বিপদ অনুভব করে ততক্ষণ পর্যন্ত নিজ অবস্থানে অনড় থাকে। যারা সচেতন তারা এইসব সতর্কবাণীর মুখে নিজেদের সংশোধনের চেষ্টা করে। কিন্তু যারা অচেতন ও বস্তুবাদী কিংবা সম্পদ ও ক্ষমতার কারণে দাম্ভিকে পরিণত হয়েছে তারা এইসব সতর্কবাণীকে গুরুত্ব দেয় না।

এ অবস্থায় নুহ (আ.) তাদের উদ্দেশে বললেন: ‘হে আমার সম্প্রদায়! তোমরা কি ধারণা কর, আমি যদি আমার প্রতিপালকের পক্ষ থেকে স্পষ্ট প্রমাণের ওপর প্রতিষ্ঠিত হয়ে থাকি এবং

তিনি যদি আমাকে তাঁর পক্ষ হতে এমন অনুগ্রহ দান করেন যা তোমাদের দৃষ্টিগোচর নয়, (তবুও কি তোমরা আমাকে প্রত্যাখ্যান করবে?) আমি কি এ বিষয়ে তোমাদের বাধ্য করতে পারি যখন তোমরা তা অপছন্দ কর?' (হুদ-২৮)

এরপরও হযরত নুহ (আ.) খোদাদ্রোহী এই জাতিকে সুপথ দেখানোর জন্য এবং তাদেরকে বিভ্রান্তির ঘুম থেকে জাগিয়ে তোলার জন্য সব ধরনের চেষ্টা চালানো ও যুক্তি তুলে ধরা অব্যাহত রাখেন। কিন্তু তারা বিভ্রান্তিতে অবিচল থাকে। তারা বললো:

'হে নুহ! তুমি আমাদের সঙ্গে অনেক কথা বলেছো। আর তর্ক করতে চাই না। যদি যা বলছো তা সত্যিই হয়ে থাকে তাহলে তোমার কথিত সেই খোদায়ী শাস্তি আমাদের ওপর প্রয়োগ করো!' এভাবে তারা হযরত নুহ (আ.) আন্তরিক ও ভালবাসাপূর্ণ দাওয়াতের জবাব দিতে থাকে চরম দম্ভ, বিদ্বেষ ও অজ্ঞতা প্রকাশের মাধ্যমে। নুহ (আ.)'র জাতির খুব কম মানুষই তাঁর আহ্বানে সাড়া দিয়েছিল।

এ পর্যায়ে মহান আল্লাহ ওহির মাধ্যমে নুহ নবীকে (আ.) জানিয়ে দেন, অল্প যে কয়জন তোমার প্রতি ঈমান এনেছে তারা ছাড়া আর কেউ ঈমান আনবে না। অর্থাৎ ওদেরকে সতর্ক করে বা সত্যের দাওয়াত দিয়ে আর লাভ নেই। ওরা সুপথে আসবে না। তাই দরকার পরিশুদ্ধি ও বিপ্লব। এর পরে কি হয়েছিল তা আমরা তুলে ধরবো আমাদের আলোচনার আগামী পর্বে। আশা করছি তখনও আপনাদের সঙ্গ পাব।#

মন্তব্য লিখুন


Security code
রিফ্রেস দিন