এই ওয়েবসাইটে আর আপডেট হবে না। আমাদের নতুন সাইট Parstoday Bangla
সোমবার, 13 জুলাই 2015 14:04

রমজান: খোদা-প্রেমের অসীম সাগর-২৬

মহান আল্লাহর অশেষ প্রশংসা করছি এবং বিশ্বনবী হযরত মুহাম্মাদ (সা.) ও তাঁর পবিত্র আহলে বাইত ও ন্যায়পরায়ণ সাহাবিদের শানে অশেষ দরুদ আর সালাম জানাচ্ছি। 


পবিত্র রমজানের প্রাণ বা হৃদয় হলো শবে কদর। আরবিতে 'কাদর' শব্দটির অর্থ হচ্ছে পরিমাপ। এই রাতে কি পরিমাপ করা হয়? এর উত্তর হল: কতটা সৌভাগ্য বা বরকত বণ্টন করা হবে সারা বছরের জন্য- তাই পরিমাপ করা হয় সৌভাগ্যের এই রাতে। কতটা সৌভাগ্য বা বরকত বরাদ্দ করা হয়? এর উত্তর হল: আপনি যতটা চান ততটাই বরাদ্দ করা হয়। কারণ, এই রাতে যিনি দান করেন তিনি হলেন অফুরন্ত কল্যাণ ও বরকতের অধিকারী অসীম দয়ালু ও দাতা মহান আল্লাহ। কেউ যদি কম চায় তাহলে তো কেউই তাকে বেশি দেয় না। মহান আল্লাহর কাছে কেউ যদি কম চায় তাহলে তা আল্লাহর জন্য এক ধরণের অবমাননাকর বিষয়। ধরুন একজন মহারাজা এক বিশেষ দিনে বলছেন, আজ যে যা চাইবে তাকে তা-ই দেয়া হবে। শত শত বা হাজার হাজার স্বর্ণমুদ্রা ও হীরা-জহরত দেয়া হবে চাওয়া মাত্রই। এ অবস্থায় কেউ যদি বলেন আমাকে কয়টা রূপার মুদ্রা দেন। রাজা তাকে অপমান করা হচ্ছে ভেবে তাড়িয়ে দিতে পারেন প্রাসাদ থেকে অনেক দূরে।


শবে কদরের রাতে কেউ যদি প্রতিজ্ঞা করে, হে আল্লাহ আমি আর মিথ্যা কথা বলবো না, আমি আর গিবত করবো না। তাহলে মহান আল্লাহ তার এই সৎ সিদ্ধান্তের আলোকে তাকে সারা বছর ধরে সম্মান ও মর্যাদা দানের ব্যবস্থা করবেন এবং তার রুটি-রুজিতেও দেবেন বরকত। কেউ যদি এ রাতে সিদ্ধান্ত নেয় যে আমি যথাসম্ভব দরিদ্র ও ইয়াতিমদের সহায়তা করবো এবং দূরে সরে যাওয়া আত্মীয়-স্বজনের খোঁজ-খবর নেব, তাহলে আল্লাহও তাকে এই সট সিদ্ধান্তের আলোকে সারা বছর ধরে নানা পুরস্কার দেবেন। মোট কথা এই রাতে যে যত বেশি ভাল কাজ করার ও পাপাচার বা বদ-অভ্যাস বর্জনের সিদ্ধান্ত নেবে আল্লাহ তাকে ততই বরকত দেবেন গোটা এক বছর ধরে। তবে এ রাতে বড় বড় সৎকর্মের বা মহত কাজের সিদ্ধান্ত নেয়ার পরও যদি কেউ হাত গুটিয়ে বসে থাকে এবং এইসব সিদ্ধান্ত বাস্তবায়নের জন্য বাস্তব কোনো পদক্ষেপ না নেয় তাহলে কাঙ্ক্ষিত পুরস্কার বা উন্নতি তার ভাগ্যে জুটবে না। শবে কদরের রাতে কেউ অতীতের পাপের জন্য ক্ষমা চাইলে আল্লাহ তা ক্ষমা করেন। কিন্তু এরপর আবার পরের দিন থেকে একই বা নতুন নতুন নানা পাপে জড়িয়ে পড়লে বাস্তবে শবে কদর থেকে সে কিছুই অর্জন করতে সক্ষম হল না।  


রমজানের আর মাত্র অল্প ক'টি দিন বাকি রয়েছে। এ মাস হল দান খয়রাতের মাস। জাকাত ও খুমস পরিশোধের জন্যও সবচেয়ে ভালো সময়। পবিত্র কুরআনে ৭০ বারেও বেশি ধৈর্যের কথা উল্লেখ করা হয়েছে। ধৈর্য ধারণের ১৬টিরও বেশি উপায়ের কথা বলা হয়েছে। ধৈর্য ও সহিষ্ণুতা শেখার সবচেয়ে ভাল সময় হল পবিত্র রমজান মাস। বরকতময় এই দিন ও রাতগুলোয় আমরা কি অর্জন করতে পেরেছি জানি না হে প্রভু। একমাত্র আল্লাহই জানেন আমাদের প্রকৃত অবস্থা সম্পর্কে। তাই আসুন আমরা হাত তুলি তাঁর দরবারে ও সমস্বরে বলি:

  

'মহান ফেরেশতাকুল ও নবী-রাসুল এবং তোমার প্রিয় বান্দাহ ও বিশেষ করে বিশ্বনবী হযরত মুহাম্মাদ (সা.) ও তাঁর পবিত্র আহলে বাইতের উসিলায় তোমার কাছে প্রার্থন করছি হে আল্লাহ!- তাঁদের প্রতি তোমার অসীম শান্তি ও রহমত বর্ষিত হোক- আমাদেরকে রক্ষ কর দোযখের আগুন থেকে ও দান কর বেহেশত। তোমার অপার করুণায় আমাদেরকে তুমি ক্ষমা কর ও দান কর তোমার নৈকট্য। কবুল কর আমাদের মুনাজাত ও দান কর বিচার দিবসের নিরাপত্তা। তোমার মহিমান্বিত সত্তা ও তোমার প্রবল প্রতাপের উসিলায় তোমার কাছে আশ্রয় প্রার্থনা করছি এমন অবস্থা থেকে যে রমজান শেষ হয়ে যাওয়ার পরও আমাদের গোনাহর খাতায় এমন কোনো পাপ ও ত্রুটি থেকে গেছে যা তুমি ক্ষমা করনি। হে আমাদের প্রভু, প্রভু হে, প্রভু হে! এ মাসে যদি তুমি আমাদের ওপর সন্তুষ্ট হয়ে থাক তাহলে আরও বেশি সন্তুষ্ট হও, আর যদি সন্তুষ্ট না হয়ে থাক তাহলে এখন থেকে সন্তুষ্ট হও। হে তুমি যে দয়ালুদের মধ্যে সবচেয়ে বেশি দয়ালু। যে তুমি এক ও অমুখাপেক্ষী, যে সন্তান জন্ম দেয় না ও নিজেও জন্ম নেয়নি এবং কোনো কিছুই তাঁর সমকক্ষ ও সমতুল্য নয়।' 

 

' হে তুমি যে দাউদ নবীর (আ.) জন্য লোহাকে নরম করেছ, হে তুমি যে আইয়ুব নবী (আ.) হতে দুঃখ-দুর্দশা ও কষ্ট দূর করেছ, হে তুমি যে দূর করেছ ইয়াকুব নবীর (আ.) বেদনা, যে তুমি নিবারণ করেছ ইউসুফ নবীর (আ.) যাতনা; মুহাম্মাদ (সা.) ও তাঁর আহলে বাইতের ওপর বর্ষণ কর সেই পরিমাণ দরুদ, রহমত ও শান্তি যতটা তাঁরা এর উপযুক্ত। আমাদের সঙ্গে সেরকম আচরণ কর যেরকম আচরণ করা তোমার মহানুভবতার সঙ্গে মানানসই; আমরা যার যোগ্য তার আলোকে আচরণ করো না আমাদের সঙ্গে।'


'হে আল্লাহ আমাদেরকে প্রস্তুতিবিহীন মৃত্যু দান করো না। আমাদেরকে প্রকৃত মানুষের মত মানুষ তথা তোমার প্রিয় নবী ও তাঁর পবিত্র আহলে বাইতের অনুসারী হওয়ার তৌফিক দান কর।'


এবারে পড়া যাক অর্থসহ ২৬ রোজার দোয়া: 

 


اليوم السّادس والعشرون : اَللّـهُمَّ اجْعَلْ سَعْيي فيهِ مَشْكُوراً، وَذَنْبي فيهِ مَغْفُوراً وَعَمَلي فيهِ مَقْبُولاً، وَعَيْبي فيهِ مَسْتُوراً، يا اَسْمَعَ السّامِعينَ .
হে আল্লাহ ! এ দিনে আমার প্রচেষ্টাকে গ্রহণ করে নাও। আমার সব গুনাহ মাফ করে দাও। আমার সব আমল কাজ কবুল করো এবং সব দোষ-ত্রু টি ঢেকে রাখ। হে সর্বশ্রেষ্ঠ শ্রোতা। # 

 

রেডিও তেহরান

 

 

 

মন্তব্য লিখুন


Security code
রিফ্রেস দিন