এই ওয়েবসাইটে আর আপডেট হবে না। আমাদের নতুন সাইট Parstoday Bangla

হিজরি চতুর্থ সনের তৃতীয় শা’বান মানবজাতি ও বিশেষ করে, ইসলামের ইতিহাসের এক অনন্য ও অফুরন্ত খুশির দিন। কারণ, এই দিনে জন্ম নিয়েছিলেন বিশ্বনবী হযরত মুহাম্মাদ (সা.)’র প্রাণপ্রিয় দ্বিতীয় নাতি তথা বেহেশতী নারীদের নেত্রী হযরত ফাতিমা (সা.) ও বিশ্বাসীদের নেতা তথা আমীরুল মুমিনিন হযরত আলী (আ.)’র সুযোগ্য দ্বিতীয় পুত্র এবং ইসলামের চরম দূর্দিনের ত্রাণকর্তা ও শহীদদের নেতা হযরত ইমাম হুসাইন (আ.)। তাঁর পবিত্র শুভ জন্মদিন উপলক্ষে সবাইকে জানাচ্ছি প্রাণঢালা মুবারকবাদ।

 

বিশ্বনবী হযরত মুহাম্মাদ (সা.) তাঁর প্রাণপ্রিয় নাতী হযরত হাসান ও হুসাইন (আ.)-কে নিজের সন্তান বলে অভিহিত করতেন। এ ছাড়াও তিনি বলেছেন, "নিশ্চয়ই হাসান ও হুসাইন জান্নাতে যুবকদের সর্দার।" (জামে আত-তিরমিজি, হাদিস নং-৩৭২০)

 

ইমাম হুসাইন (আ.)'র জন্মলগ্নে তাঁর মায়ের সেবা করছিলেন বিশ্বনবী (সা.)'র ফুপু সাফিয়া বিনতে আবদুল মোত্তালিব। রাসূল সে সময় তাঁর ফুপুর কাছে এসে বলেন, হে ফুপু, আমার ছেলেকে আমার কাছে কাছে আনুন। তখন সাফিয়া বললেন, আমি তাঁকে এখনও পবিত্র করিনি। বিশ্বনবী (সা.) বললেন, "তাঁকে তুমি পবিত্র করবে? বরং আল্লাহই তাঁকে পরিষ্কার ও পবিত্র করেছেন।" ইমাম হুসাইন (আ.)’র জন্মের পর তাঁর ডান কানে আজান ও বাম কানে ইক্বামত পাঠ করেছিলেন স্বয়ং বিশ্বনবী (সা.)। মহান আল্লাহর নির্দেশে তিনি এই শিশুর নাম রাখেন হুসাইন। এ শব্দের অর্থ সুন্দর, সত, ভালো ইত্যাদি।

 

হযরত ইমাম হুসাইন বিন আলী (আ.) ছয় বছরেরও কিছু বেশি সময় পর্যন্ত নানা বিশ্বনবী (সা.)'র সান্নিধ্য পেয়েছিলেন। হযরত সালমান ফারস (রা.) বলেছেন, একদিন দেখলাম যে, রাসূল (সা.) হুসাইন (আ.)-কে নিজের জানুর ওপর বসালেন ও তাঁকে চুমু দিলেন এবং বললেন,

 

" তুমি এক মহান ব্যক্তি ও মহান ব্যক্তির সন্তান এবং মহান ব্যক্তিদের পিতা। তুমি নিজে ইমাম ও ইমামের পুত্র এবং ইমামদের পিতা। তুমি আল্লাহর দলিল বা হুজ্জাত ও আল্লাহর হুজ্জাতের পুত্র এবং আল্লাহর নয় হুজ্জাতের (বা নয় ইমামের) পিতা, আর তাঁদের সর্বশেষজন হলেন হযরত ইমাম মাহদী (আ.)"  

 

বিশ্বনবী হযরত মুহাম্মাদ (সা.) ও ইমাম হুসাইনের মধ্যে আধ্যাত্মিকও খোদায়ী সম্পর্কের সর্বোচ্চ বর্ণনা ও সবচেয়ে আন্তরিকতার বহিঃপ্রকাশ ঘটেছে মহানবীর এই হাদিসে: হুসাইন আমা থেকে এবং আমি হুসাইন থেকে।

 

বিশ্বনবী হযরত মুহাম্মাদ (সা.) বলেছেন, যে-ই চায় আকাশগুলোর বাসিন্দা ও পৃথিবীর বাসিন্দাদের কাছে সবচেয়ে প্রিয় ব্যক্তিকে দেখতে, তাহলে তার উচিত হুসাইনের দিকে তাকানো। (মিজান আল হিকমাহ, হাদীস নং ৪৩২)

 

রাসূল (সা.) বলেছেন, " আর হুসাইনের (আ.) বিষয়ে—সে আমার থেকে, সে আমার সন্তান, আমার বংশ, মানবজাতির মধ্যে তার ভাইয়ের পরে শ্রেষ্ঠ। সে মুসলমানদের ইমাম, মুমিনদের অভিভাবক, জগতসমূহের রবের প্রতিনিধি, তাদের সাহায্যকারী যারা সাহায্য চায়, তাদের আশ্রয় যারা আশ্রয় খোঁজে, সে আল্লাহর দলিল বা প্রমাণ গোটা সৃষ্টিজগতের জন্য, সে বেহেশতের যুবকদের সর্দার, উম্মতের নাজাতের দরজা। তার আদেশই হল আমার আদেশ, তার আনুগত্য করা হল আমারই আনুগত্য করা। যে-ই তাকে অনুসরণ করে সে আমার সাথে যুক্ত হয় এবং যে তার অবাধ্য হয় সে আমার সাথে যুক্ত হতে পারে না।" (মিজান আল হিকমাহ, হাদিস নম্বর-৪২৮)

 

বারাআ ইবনে আযিব বলেছেন, আমি রাসুলুল্লাহ (সা.)-কে দেখেছি ইমাম হুসাইন (আ.)-কে বহন করছেন এবং বলছেন, " হে আল্লাহ, নিশ্চয়ই আমি তাকে ভালবাসি, তাই আপনিও তাকে ভালবাসুন।" (মিজান আল হিকমাহ, হাদীস-৪২৯; বুখারি, হাদিস-২১৫০; মুসলিম, হাদিস-৬০৭৭)

 

হাকিমের 'আমালি'-এর সূত্রে নাক্কাশের তাফসির থেকে ইবনে আব্বাসের বর্ণনা এসেছে যে, তিনি বলেছেন, একদিন আমি রাসূল (সা.)'র সামনে বসা ছিলাম। এ সময় তাঁর ছেলে ইবরাহীম তাঁর বাম উরুর ওপরে এবং ইমাম হুসাইন (আ.) তাঁর ডান উরুর ওপরে বসা ছিলেন। রাসূল (সা.) তাঁদের একজনের পর আরেকজনকে চুমু দিলেন। হঠাত জিবরাইল অবতরণ করলেন ওহি নিয়ে। যখন ওহি প্রকাশ শেষ হল তখন রাসূলুল্লাহ (সা.) বললেন, " আমার রবের কাছ থেকে জিবরাইল এসেছিল এবং আমাকে জানায় যে সর্বশক্তিমান আল্লাহ আমাকে শুভেচ্ছা জানিয়েছেন এবং বলেছেন যে, তিনি এ দুই শিশুকে একত্রে থাকতে দিবেন না এবং একজনকে অপরজনের মুক্তিপণ (বিনিময়) করবেন।"

 

রাসূল (সা.) ইবরাহীমের দিকে তাকালেন এবং কাঁদতে শুরু করলেন এবং বললেন, " তার মা একজন দাসী (মারইয়াম-মিশরীয় কিবতি বা কপ্টিক), যদি সে মারা যায় আমি ছাড়া কেউ বেদনা অনুভব করবে না, কিন্তু হুসাইন হল ফাতিমা এবং আমার চাচাতো ভাই আলীর সন্তান এবং আমার রক্ত-মাংস। যদি সে মারা যায় শুধু আলী এবং ফাতিমা নয় আমিও ভীষণ ব্যথা অনুভব করব। তাই আলী ও ফাতিমার শোকের চেয়ে আমি আমার শোককে বেছে নিচ্ছি। তাই হে জিবরাইল ইমাম হুসাইন (আ.) বলেছেন, আমি রাসুলাল্লাহ (সা.)'র সাক্ষাতে গিয়েছিলাম যেখানে উবাই বিন কা'ব তার সঙ্গে ছিলেন। রাসূল (সা.) আমাকে বললেন, 'স্বাগতম! হে আবা আবদিল্লাহ, হে আকাশগুলো ও পৃথিবীগুলোর সৌন্দর্য।' এতে উবাই বলল, হে আল্লাহর রাসূল (সা.)! আপনি ছাড়া অন্য কারো জন্য এটি কি করে সম্ভব যে সে আকাশগুলো ও পৃথিবীগুলোর সৌন্দর্য হবে? তিনি বললেন, হে উবাই, আমি তাঁর শপথ করে বলছি যিনি আমাকে তাঁর অধিকার বলে রাসূল হিসেবে পাঠিয়েছেন, নিশ্চিতভাবেই হুসাইন বিন আলী'র মূল্য আকাশগুলো ও পৃথিবীগুলোর চেয়ে বেশি এবং নিশ্চয়ই (তাঁর বিষয়ে) আল্লাহর আরশের ডান দিকে লেখা আছে : হেদায়াতের আলো, নাজাতের তরী, একজন ইমাম, দুর্বল নন, মর্যাদা ও গৌরবের (উতস), এক সুউচ্চ বাতিঘর এবং মহামূল্যবান সম্পদ।' (মিজান আল হিকমাহ, হাদিস নম্বর ৪৩৩)

 

হযরত ইমাম হুসাইন (আ.) ছিলেন সম্মান, দয়া, বীরত্ব, শাহাদত, মুক্তি ও মহানুভবতার আদর্শ। তাঁর আদর্শ মানবজাতির জন্য এমন এক ঝর্ণাধারা বা বৃষ্টির মত যা তাদের দেয় মহত্ত্বম জীবন, গতি ও আনন্দ। মানুষের জীবনের প্রকৃত মর্যাদা ও প্রকৃত মৃত্যুর সংজ্ঞাকে কেবল কথা নয় বাস্তবতার মাধ্যমে দেখিয়ে দিয়ে অমরত্ব দান করে গেছেন এই মহাপুরুষ। বিশেষ করে আল্লাহর পথে সর্বোচ্চ ত্যাগ ও শাহাদাতকে তিনি দিয়ে গেছেন অসীম সৌন্দর্য। তাই যুগে যুগে বিশ্বের কোটি কোটি মানুষের কাছে হুসাইন (আ.) হয়ে আছেন গৌরবময় জীবন ও মৃত্যুর আদর্শ এবং আল্লাহর পথে শাহাদতের সংস্কৃতির সবচেয়ে বড় রূপকার। আধুনিক যুগের বিস্ময় ইরানের ইসলামী বিপ্লবসহ যুগে যুগে ন্যায়বিচারকামী বহু বিপ্লব ও জুলুম বিরোধী আন্দোলনের মূল প্রেরণা হল ইমামের রেখে যাওয়া কারবালা বিপ্লব। বিশ্বের প্রকৃত মুমিন ও বিপ্লবীদের একটি প্রধান শ্লোগান হল, প্রতিটি ময়দান কারবালা ও প্রতিটি দিনই আশুরা; কিংবা প্রতিটি কারবালার পরই পুনুরুজ্জীবিত হয় ইসলাম।

 

কারবালার মহাবিপ্লবের রূপকার ইমাম হুসাইন (আ.) মানবজাতির ওপর ও বিশেষ করে  প্রকৃত মুমিন মুসলমানদের ওপর যে গভীর প্রভাব রাখবেন সে সম্পর্কে ভবিষ্যদ্বাণী করে গেছেন স্বয়ং বিশ্বনবী (সা.)। তিনি বলেছেন, " নিশ্চয়ই প্রত্যেক মু'মিনের হৃদয়ে হুসাইনের শাহাদতের ব্যাপারে এমন ভালবাসা আছে যে, তার উত্তাপ কখনো প্রশমিত হয় না। " (মুস্তাদরাক আল-ওয়াসাইল, খণ্ড-১০, পৃষ্ঠা-৩১৮)

 

ইমাম জাফর আসসাদিক্ব (আ.) বলেছেন, "আমাদের তথা রাসূল (সা.)'র আহলে বাইতের ওপর যে জুলুম করা হয়েছে তার কারণে যে শোকার্ত, তার দীর্ঘশ্বাস হল তাসবীহ এবং আমাদের বিষয়ে তার দুশ্চিন্তা হল ইবাদত এবং আমাদের রহস্যগুলো গোপন রাখা আল্লাহর পথে জিহাদের পুরস্কার বহন করে।" এরপর তিনি বললেন, 'নিশ্চয়ই এ হাদীসটি স্বর্ণাক্ষরে লিখে রাখা উচিত।'

 

হযরত ইমাম হুসাইন (আ.) কেবল জুলুমের বিরুদ্ধে সংগ্রাম ও মুক্তিকামী মানুষেরই আদর্শ ছিলেন না, সর্বোত্তম জিহাদ তথা আত্ম-সংশোধন ও পরিশুদ্ধিরও মূর্ত প্রতীক। অন্যদেরকে সতকাজের দিকে ডাকার ও অসত কাজে নিষেধ বা প্রতিরোধের শর্ত হল, সবার আগে নিজেকেই পরিশুদ্ধ করা।

 

হযরত ইমাম হুসাইন (আ.)'র সাতান্ন বছরের জীবনের প্রতি সংক্ষিপ্ত দৃষ্টি দিলে দেখা যায়, ইমাম ছিলেন সর্বোচ্চ পর্যায়ের বিনম্রতা, দয়া, ক্ষমাশীলতা, পরোপকার এবং খোদাভীরুতা ও খোদাপ্রেমের ক্ষেত্রেও মানবজাতির জন্য শীর্ষস্থানীয় আদর্শ। নামাজ আদায়, কুরআন তিলাওয়াত এবং দোয়া ও ইস্তিগফারের ক্ষেত্রেও তিনি ছিলেন পিতা ও বিশ্বনবী(সা.)'র ধারার স্বচ্ছ প্রতিচ্ছবি। হযরত ইমাম হুসাইন (আ.)  দিন ও রাতে কয়েক শত রাকাত নামাজ আদায় করতেন। এমনকি জীবনের শেষ রাতেও তিনি দোয়া ও প্রার্থনা থেকে হাত গুটিয়ে নেননি। কারবালায় শত্রুদের কাছ থেকে সময় চেয়েছিলেন যাতে মহান প্রভুর সান্নিধ্যে একাকী প্রার্থনায় বসতে পারেন। তিনি বলেছিলেন, আল্লাহই ভাল জানেন যে, আমি নামাজ, কুরআন তিলাওয়াত, অত্যধিক দোয়া-মুনাজাত ও ইস্তিগফারকে কত ভালবাসি।

 

ইমাম হুসাইন (আ.) অনেকবার পদব্রজে কা'বা গৃহে ছুটে গেছেন এবং হজ্বব্রত পালন করেছেন। ইমাম শাহাদত বরণ করলে জনগণ তার পবিত্র পিঠে কিছু পুরনো দাগ বা ছাপ দেখতে পায়। এর কারণ সম্পর্কে ইমাম সাজ্জাদ তথা আলী বিন হুসাইন (আ.)-কে প্রশ্ন করা হলে তিনি বলেন, এগুলো হল সেইসব খাদ্যের বস্তার ছাপ যা আমার পিতা রাতের বেলায় কাঁধে করে বিধবা মহিলা ও ইয়াতিম শিশুদের ঘরে পৌঁছে দিতেন।

 

ইমাম হুসাইন (আ.)'র চারিত্রিক গুণাবলীর পূর্ণতা ও সার্বিকতা প্রসঙ্গে মিশরিয় চিন্তাবিদ আবদুল্লাহ আলায়েলি বলেছেন, "ইমাম হুসাইন (আ.)'র মহত্ত্ব ও মর্যাদা এক বিশাল জগত জুড়ে ঘিরে আছে যার নানা দিক এতই ব্যাপক ও অশেষ যে এর প্রতিটি দিকই ইতিহাসে শীর্ষস্থান দখল করে আছে। তাই মনে হয়, তিনিই সব উচ্চ মর্যাদা ও শীর্ষস্থানের সমষ্টি।"

 

মহান আল্লাহর কাছে অশেষ কৃতজ্ঞতা জ্ঞাপন করছি যে তিনি মানব জাতিকে এমন একজন মহামানব উপহার দিয়েছেন। এবারে, ইমাম হুসাইন (আ.)'র কয়েকটি অমর বাণী তুলে ধরব:

 

-বেহেশত ছাড়া অন্য কিছু মানুষের জীবনের মূল্য হওয়া উচিত নয়। তাই জান্নাত ছাড়া অন্য কিছুর বিনিময়ে নিজেকে বিক্রি কোরো না।

 

-শাস্তির ভয়ে বা পুরস্কারের লোভে যে ইবাদত তা ব্যবসায়ীর বা দাসত্বের ইবাদত। সর্বোত্তম ইবাদত হল শোকর আদায়ের ইবাদত এবং এই ইবাদত হল মুক্ত মানুষের ইবাদত।

 

- পরীক্ষা বা ক্ষতির মুখোমুখি হলে খুবই কম মানুষই ধর্মের পথে অবিচল থাকে।#

প্রশ্ন: বিশ্বের মুসলমানরা এতে বেশি নির্যাতিত কেন? শুধুমাত্র ইরানকে মুসলমানদের পক্ষে কথা বলতে দেখা যায়; অন্য মুসলিম দেশগুলো কেন এক্ষেত্রে ইরানের সঙ্গে এগিয়ে আসে না?


উত্তর: এ প্রশ্নের উত্তর আমরা দুই ভাগে ভাগ করেছি:


ক) বিশ্বের মুসলমানরা কেন এত বেশি নির্যাতিত এবং তাদের  দুর্দশা ও দুর্বলতার কারণ কি?


এ বিষয়ে জানতে হলে আমাদেরকে প্রথমে মুসলিম বিশ্বের ইতিহাস জানতে হবে। মুসলিম সভ্যতার সোনালি যুগের পতনের পর গত কয়েক শতাব্দিতে মুসলিম দেশগুলো  কথিত পশ্চিমা সভ্যতার (শিক্ষা, সংস্কৃতি, রাজনৈতিক ও সামরিক ক্ষেত্রে)  সর্বোপরি আগ্রাসনের শিকার হয়। এর ফলে জ্ঞান-বিজ্ঞান, রাজনীতি, অর্থনীতি ও সামাজিক দিক দিয়ে এ দেশগুলোর অবস্থা শোচনীয় পর্যায়ে পৌঁছে যায়। এ কারণে মুসলিম দেশগুলোর অবস্থা আগের তুলনায় অনেক দুর্বল হয়ে পড়ে।

 

স্বাভাবিকভাবেই, মুসলিম দেশগুলোর দুর্বলতার কারণে এসব দেশের সাধারণ মানুষও দুর্বল হয়ে পড়ে এবং তাদের ওপর নির্যাতনের প্রেক্ষাপট তৈরি হয়। কাজেই মুসলমানদের নির্যাতিত হওয়ার জন্য প্রথমেই আমাদেরকে মুসলিম সভ্যতার পতনের দিকে দৃষ্টি দিতে হবে। যেসব কারণে এ সভ্যতার পতন হয় তার কয়েকটি হচ্ছে:  


১. পূর্ণাঙ্গ জীবন বিধান ইসলামের শিক্ষা থেকে দূরে সরে যাওয়া;


২. মুসলিম দেশগুলোর সরকার ও জনগণের মধ্যে দ্বন্দ্ব ও বিভেদ ছড়িয়ে পড়া;


৩. মুসলিম দেশগুলোর পরস্পরের মধ্যে দ্বন্দ্ব-সংঘাত সৃষ্টি;


৪. মুসলমানদের মধ্যে কুসংস্কার ও বেদাত ছড়িয়ে পড়া ও তাদের মধ্যে জ্ঞান-বিজ্ঞান ও নতুন নতুন প্রযুক্তি উদ্ভাবনের আগ্রহ কমে যাওয়া;


৫. মুসলিম দেশগুলোতে উপনিবেশবাদী শক্তিগুলোর সর্বব্যাপী আগ্রাসন;


৬. মুসলমানদের মধ্যে ব্যাপকভাবে আস্থা ও আত্মবিশ্বাসের অভাব ছড়িয়ে পড়া;


অতীতের ঘটনাবলী বিশ্লেষণ করে বলা যায়, মুসলিম দেশগুলোর বর্তমান দুরবস্থার জন্য কিছু অভ্যন্তরীণ কারণ ছিল। অর্থাৎ মুসলমানরাই প্রথমত তাদের দুর্দশার জন্য দায়ী। সেইসঙ্গে যোগ হয়েছে আন্তর্জাতিক প্রেক্ষাপট ও সাম্রাজ্যবাদী শক্তিগুলোর আগ্রাসন ও ষড়যন্ত্র।


খ) মুসলিম বিশ্বের পৃষ্ঠপোষকতায় ইসলামি প্রজাতন্ত্র ইরান যেসব পদক্ষেপ নিচ্ছে তার সমর্থনে অন্যান্য মুসলিম দেশ এগিয়ে আসছে না কেন? এর কারণ হল :


ইরানের সংবিধানের তিনটি মূলনীতি হচ্ছে-

 

১. বিশ্বের যেকোনো স্থানে আধিপত্যবাদীদের মোকাবিলায় নির্যাতিত জনগোষ্ঠীর সংগ্রামের প্রতি সমর্থন;

 

২. বিশ্বের সব মুসলমানের অধিকার রক্ষা;

 

৩. বিশ্বের প্রতিটি মুসলমানের প্রয়োজনে ভ্রাতৃত্বের হাত বাড়িয়ে দেয়া। এ ছাড়া, ইরানের পররাষ্ট্রনীতির অন্যতম বৈশিষ্ট্য হচ্ছে বিশ্বের নির্যাতিত মুসলমানদের পাশে দাঁড়াবে ইরান।


এসব কাজে অন্যান্য দেশের পক্ষ থেকে ইরানকে সহযোগিতা না করার অনেকগুলো কারণ রয়েছে, তার মধ্য থেকে দুটি কারণ তুলে ধরা হলো:


১) কিছু দেশের সংবিধান ও আইনি কাঠামো এমনভাবে তৈরি করা হয়েছে যার ফলে তারা ইরানকে সহযোগিতা করতে পারে না।


২)  ইরানের সঙ্গে কিছু দেশের সম্পর্কে আস্থাহীনতার পরিবেশ বিরাজ করায় তারা এ কাজে এগিয়ে আসতে পারছে না।#


রেডিও তেহরান/এএস/এমআই/২

২৫ রজব ইসলামের ইতিহাসের গভীর শোকাবহ দিন। কারণ ১৮৩ হিজরির এই দিনে (খ্রিস্টিয় ৭৯৯ সনে) বিশ্বনবী হযরত মুহাম্মাদ (সা.)'র পবিত্র আহলে বাইত (আ.) ও নিষ্পাপ ইমামকুলের সদস্য, সৎকর্মশীলদের অন্যতম নেতা, নবী-রাসূলদের উত্তরসূরি ও পরিপূর্ণ মহামানব হযরত ইমাম মুসা কাযিম (আ.) শাহাদাত বরণ করেন।


হযরত ইমাম মুসা কাযিম (আ.)'র শাহাদাত বার্ষিকী উপলক্ষে তাঁর শানে পেশ করছি অসংখ্য সালাম ও দরুদ এবং সবাইকে জানাচ্ছি গভীর সমবেদনা।

 

ইমাম মুসা ইবনে জাফর আল কাযিম (আ.)'র জন্ম নিয়েছিলেন ১২৮ হিজরির ৭ ই সফর তথা খ্রিস্টিয় ৭৪৫ সনের দশই নভেম্বর মক্কা ও মদীনার মধ্যবর্তী ‘আবওয়া’ এলাকায়। তাঁর পিতা ছিলেন বিশ্ববিশ্রুত ইমাম হযরত জাফর সাদিক (আ.); আর মায়ের নাম ছিল হামিদাহ (সালামুল্লাহি আলাইহা)। রাগ দমনে এবং ধৈর্য ধারণের ক্ষেত্রে ইমাম মুসা কাযিম (আ.)'র অশেষ ক্ষমতা দেখে স্তম্ভিত হত তৎকালীন জালেম শাসকগোষ্ঠী। অশেষ ধৈর্যের জন্যই এই মহান ইমামকে বল হত কাযিম। তিনি ছিলেন পিতা ইমাম জাফর সাদিক (আ.)'র মতই নির্ভীক ও ন্যায়পরায়ণ এবং জুলুমের বিরুদ্ধে সোচ্চার। পিতার মহত গুণগুলোর সবই অর্জন করেছিলেন ইমাম মুসা কাযিম (আ.)। তাঁর ৩৫ বছরের ইমামতির জীবনের প্রায় পুরোটাই কেটেছে কারাগারে ও নির্বাসনে।

  

ইমাম মুসা কাযিম (আ.) আব্বাসীয় শাসকদের শত অত্যাচার ও নিপীড়ন এবং কারাদণ্ড ও নির্বাসন সত্ত্বেও ইসলামের সঠিক শিক্ষা প্রচারের আন্দোলন অব্যাহত রাখেন। এ আন্দোলনের যে বিশেষ ধারা তাঁর মহান পিতা ইমাম জাফর সাদিক (আ.) শুরু করেছিলেন তা আরও বিকশিত হয়েছিল পুত্রের প্রজ্ঞা, কৌশল ও ত্যাগ-তিতিক্ষাপূর্ণ অধ্যবসায়ের সুবাদে। বিশেষ করে পবিত্র কুরআনের প্রকৃত তাফসির ও হাদীস বর্ণনা তাঁর মাধ্যমে আরও বিকশিত হয়। ইমাম তাঁর অনুসারীদেরকে জ্ঞান অর্জনের জন্য অশেষ অনুপ্রেরণা যোগাতেন। তিনি বলতেন, জ্ঞান মৃত আত্মাকে জীবিত করে যেমনটি বৃষ্টি জীবিত করে মৃত ভূমিকে।

 

আব্বাসীয় শাসকদের বিভ্রান্ত ও দুর্নীতিগ্রস্ত চাল-চলন যে ইসলামের সম্পূর্ণ বিপরীত ধারা পিতার মতই তা তুলে ধরেছিলেন ইমাম মুসা কাযিম (আ.) । তাই ভীত-সন্ত্রস্ত আব্বাসীয় শাসকরা চাইতেন না জনগণের সঙ্গে ইমামের যোগাযোগ বৃদ্ধি পাক। তারা জনগণের ওপর নবী বংশের ক্রমবর্ধমান প্রভাব ঠেকানোর জন্য যে কোনো ধরনের প্রতারণ, প্রচারণা, বর্বরতা ও নৃশংসতার আশ্রয় নিতে দ্বিধা বোধ করত না। এমনকি বিশ্বনবী (সা.)'র আহলে বাইত এবং তাঁদের অনুসারীদের ওপর জুলুম ও নৃশংস আচরণের ক্ষেত্রে আব্বাসীয়রা উমাইয়াদের চেয়েও বেশি অগ্রসর হয়েছিল, যদিও তাদের নেতৃত্বে সংঘটিত উমাইয়া বিরোধী আন্দোলন জন-সমর্থন পেয়েছিল এই প্রতিশ্রুতির কারণে যে ইসলামী খেলাফতে সমাসীন করা হবে বিশ্বনবী (সা.)'র আহলে বাইতকে। আব্বাসীয়রা ইমাম জাফর সাদিক ও ইমাম মুসা কাযিম (আ.) সহ নবী বংশের বেশ কয়েকজন ইমামকে শহীদ করেছিল।


ইমাম মুসা কাযিম (আ.) তাঁর বন্দী অবস্থার কঠিনতম সময়েও বিচক্ষণতা, বীরত্ব এবং সংগ্রামী ও আপোষহীন মনোভাব ত্যাগ করেননি। এদিকে হারুন এটা বুঝতে পেরেছিল যে ইমাম যখনই উপযুক্ত সুযোগ পাবেন তখনই স্বয়ং বিপ্লব করবেন কিংবা তাঁর সঙ্গীদেরকে আন্দোলনের নির্দেশ দেবেন, ফলে তার হুকুমতের পতন হবে অনিবার্য। তাই আপোষহীন এই ইমামের প্রাণনাশের সিদ্ধান্ত নেয়। 


ইমাম মুসা ইবনে জাফর (আ.)-কে বসরায় ঈসা ইবনে জাফর নামক এক জল্লাদের কারাগারে এক বছর বন্দী রাখা হয়। সেখানে ইমামের উত্তম চরিত্র জাফরের ওপর এমন প্রভাব রাখে যে ওই জল্লাদ হারুনের কাছে এক লিখিত বার্তায় জানিয়ে দেয় যে: তাঁকে আমার কাছ থেকে ফিরিয়ে নাও, নতুবা আমি তাঁকে মুক্ত করে দেব।

 

এরপর ইমাম কাযিম (আ.)-কে এক কারাগার থেকে বার বার অন্য কারাগারে স্থানান্তর করা হয়। এর কারণ ছিল এটা যে হারুন প্রতিবারই কারা প্রহরীকে নির্দেশ দিত ইমামকে গোপনে হত্যা করার। কিন্তু তাদের কেউই রাজি হয়নি এ কাজ করতে। অবশেষে সানদি নামের এক ইহুদি ৫৫ বছর বয়স্ক ইমামকে বিষ প্রয়োগ করতে রাজি হয়। বিষ প্রয়োগের তিন দিন পর তিনি শাহাদত বরণ করেন। 

 

হারুন ইমামকে শহীদ করার আগে একদল গণ্যমান্য ব্যক্তিকে কারাগারে উপস্থিত করেছিল যাতে তারা সাক্ষ্য দেয় যে ইমাম কাযিম (আ.) স্বাভাবিকভাবেই মারা গেছেন। কিন্তু ওই সাক্ষীরা যখন ইমামের দিকে তাকিয়েছিল তখন তিনি বিষের তীব্রতা ও বিপন্ন অবস্থা সত্ত্বেও তাদেরকে বললেন: আমাকে নয়টি বিষযুক্ত খুরমা দিয়ে বিষ প্রয়োগ করা হয়েছে, আগামীকাল আমার শরীর সবুজ হয়ে যাবে এবং তার পরদিন আমি ইহজগৎ থেকে বিদায় নেব।

 

ইমাম মুসা কাযিম (আ.)’র মহানুভবতা, নম্রতা, সহিষ্ণুতা ও দানশীলতা ছিল শত্রুদের কাছেও সুবিদিত। তত্ত্বীয় ও জ্ঞানগর্ভ বিতর্কে ইমামের ঐশী জ্ঞান, বিস্তৃত চিন্তাশক্তি ও সংশ্লিষ্ট বিষয়ের ওপর পরিপূর্ণ দখল ফুটে উঠত। তিনি যে কোনো প্রশ্নের সঠিক, পরিপূর্ণ এবং প্রশ্নকারীর বোধগম্যতার আলোকে জবাব দিতেন। তাঁর প্রেমময় ইবাদত ছিল সাধকদের জন্য আদর্শ। 



মদীনার অধিবাসীরা ইমাম মুসা কাযিম (আ.)-কে যাইনুল মুতাহাজ্জেদীন অর্থাৎ রাত্রি জাগরণকারীদের সৌন্দর্য উপাধিতে ভূষিত করেছিল। এই মহান ইমাম এত সুন্দর ও সুললিত কণ্ঠে কুরআন তিলাওয়াত করতেন যে, যে কেউ তা শুনে কেঁদে ফেলত।  


ইমাম মুসা কাযিম (আ.)'র মাধ্যমে অনেক মু'জেজা বা অলৌকিক ঘটনা সংঘটিত হয়েছে। যেমন, একবার এক বিধবা মারা গেলে তার শিশুরা যখন কাঁদতে থাকে তখন এই মহান ইমাম আল্লাহর কাছে প্রার্থনার মাধ্যম ওই বিধবাকে জীবিত করেন।


ইমামের কারারক্ষী মুসাইব বলেছে: 

 

“শাহাদতের তিন দিন আগে ইমাম আমাকে ডাকিয়ে এনে বলেন: আমি আজ রাতে মদীনা যাব যাতে আমার পুত্র আলীর ( ইমাম আলী ইবনে মুসা রেজা-আ.) কাছে ইমামতের দায়িত্ব দিয়ে যেতে পারি। 


আমি বললাম: এতসব প্রহরী বা কারারক্ষী, তালা ও শেকল (যা দিয়ে ইমামকে বেঁধে রাখা হয়েছিল) থাকার পরও কি আপনি আশা করেন যে এখান থেকে আপনাকে বের হতে দেয়ার সুযোগ করে দেব!!!? ইমাম বললেন: হে মুসাইব, তুমি কি মনে কর আমাদের ঐশী বা খোদায়ী শক্তি কম? আমি ঠিক সেই ‘ইসমে আযমে ইলাহি’ দিয়ে- যা দিয়ে আসফ বিন বারখিয়া (হযরত সুলায়মান-আ’র মন্ত্রী) বিলকিসের (সাবার রানী) প্রাসাদকে চোখের এক পলক ফেলার সময়ের মধ্যেই ইয়েমেন থেকে ফিলিস্তিনে নিয়ে এসেছিল- আল্লাহকে ডাকব ও মদীনায় যাব। হঠাৎ দেখলাম যে ইমাম একটি দোয়া পড়লেন ও অদৃশ্য হয়ে গেলেন। আর কিছুক্ষণ পর ফিরে এলেন এবং নিজের হাতেই কারাগারের শেকলগুলো দিয়ে নিজের পা মুবারক বাঁধলেন। এরপর ইমাম মুসা কাযিম (আ.) বললেন: আমি তিন দিন পর দুনিয়া থেকে বিদায় (শহীদ) হব। শুনে আমি কাঁদতে লাগলাম। ইমাম বললেন: কেঁদো না, জেনে রাখ, আমার পর আমার ছেলে আলী ইবনে মুসা রেজা (আ.) তোমাদের ইমাম বা নেতা।


ইমাম মুসা কাযিম (আ.)’র বরকতময় একটি বাণী শুনিয়ে শেষ করব আজকের এই আলোচনা।
খোদা পরিচিতির পরই আল্লাহর নৈকট্য লাভের সর্বোত্তম পন্থা হল নামাজ, / বাবা মায়ের প্রতি সদাচরণ /এবং হিংসা,স্বেচ্ছাচার,অহংকার ও দাম্ভিকতা পরিহার করা। #

 

 

 

 

রুশ নওমুসলিম 'সের্গেই অফানাসিভ' কোনো ধর্মেই বিশ্বাস করতেন না। কিন্তু ন্যায়বিচার ও স্বাধীনতার প্রতি তার ভালবাসা এবং দারিদ্র, জুলুম ও বৈষম্যের বিরোধিতা তার মন-প্রাণকে টেনে আনে আধ্যাত্মিকতার জগতে। একটা দীর্ঘ সময় ধরে গবেষণার পর এইসব প্রশংসনীয় আদর্শ তথা সত্য ও বাস্তবতা প্রোজ্জ্বল হয়ে ওঠে তার কাছে।

 

'সের্গেই অফানাসিভ' ইতিহাস গবেষণা করে দেখতে পান যে মানুষের গড়া সরকারগুলো যুগে যুগে উচ্চতর আদর্শগুলোকে বাস্তবায়ন করতে পারেনি। তিনি এ প্রসঙ্গে বলেছেন: মানব সমাজ সৃষ্টির সূচনা-লগ্ন থেকেই মানুষ ন্যায়বিচারকে ভালবেসেছে। যুগে যুগে মানুষের প্রতিবাদ বা বিদ্রোহগুলোর মূল কারণই ছিল ন্যায়বিচারের প্রতি ভালবাসা। কিন্তু আমরা সব সময়ই দুর্বলের ওপর সবলের অত্যাচার প্রত্যক্ষ করছি। তাই মানব সমাজে এমন রাষ্ট্র ও শাসন-ব্যবস্থা গড়ে তোলা জরুরি যেখানে উচ্চতর আদর্শ বাস্তবায়নের গ্যারান্টি থাকে।

 

ইতিহাস বিশ্লেষণ করলে দেখা যায় মানব সমাজ অল্প কিছু সময়ের জন্য হলেও ন্যায়বিচারের স্বাদ আস্বাদন করেছে। আর এই যুগটি হল বিশ্বনবী (সা.)'র শাসনামল। এ কারণেই 'সের্গেই অফানাসিভ' ধর্ম সম্পর্কে জানতে আগ্রহী হয়ে ওঠেন।

 

আসলে সব ধরনের অন্যায়, অনাচার, বৈষম্য, জুলুম, কুপ্রথা, কুসংস্কার, অশ্লীলতা ও শির্কের বিরুদ্ধে সংগ্রাম এবং সত্য, সৎ কাজ আর সততা ও এক আল্লাহর দিকে তথা মানুষকে মুক্তি ও সৌভাগ্যের দিকে পরিচালিত করাই ছিল যুগে যুগে নবী-রাসূলদের মিশনের মূল উদ্দেশ্য।  রুশ নওমুসলিম 'সের্গেই অফানাসিভ' এ প্রসঙ্গে বলেছেন: 'খোদায়ী ধর্মগুলোর মধ্যেই আমি পেয়েছি সুন্দরতম রাষ্ট্র ও শাসন-ব্যবস্থা। নবী-রাসূলরা স্বৈরশাসন, জুলুম ও অবিচারের বিরুদ্ধে সংগ্রামে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখেছেন। তারা একত্ববাদী হিসেবে যে দু'টি বড় লক্ষ্য অর্জনের চেষ্টা করেছেন তা হল: আল্লাহর দিকে আহ্বান ও তাঁর নৈকট্য অর্জন এবং ন্যায়বিচার প্রতিষ্ঠা। আর তাই আমরা দেখি যে ন্যায়বিচার, স্বাধীনতা ও সাম্যের মত মূল্যবোধগুলো নবী-রাসূলদের প্রচারিত শিক্ষাগুলোয় এবং তাদের জীবনে অত্যন্ত সুন্দরভাবে ফুটে উঠেছে।'

 

রুশ নওমুসলিম 'সের্গেই অফানাসিভ' একই প্রসঙ্গে আরো বলেছেন: 'নবী-রাসূলরা মানুষের সৌভাগ্য চাইতেন বলেই মানুষকে শান্তি ও পবিত্রতার দিকে আহ্বান জানিয়েছেন এবং মানুষকে মূর্তি আর বলদর্পীদের আনুগত্য করা থেকে রক্ষা করেছেন। আমার মতে মহান আল্লাহর এই প্রিয় বান্দারা  ব্যক্তিগত ও বস্তুগত  স্বার্থ হাসিলের পেছনে ছুটেননি। বরং তারা কেবল মানুষের মুক্তির জন্য সচেষ্ট ছিলেন। আমি নবী-রাসূলদের শিক্ষাগুলো গভীর মনোযোগ দিয়ে লক্ষ্য করেছি। এই শিক্ষাগুলোর সুবাদে আমি মহান আল্লাহর বেশি কাছে পৌঁছতে পেরেছি ও তাঁর অস্তিত্ব অনুভব করতে পেরেছি। মহান আল্লাহ জীবন যাপনের সঠিক পদ্ধতি ও আদর্শই মানুষের কাছে তুলে ধরেছেন নবী-রাসূলদের মাধ্যমে।'

 

রুশ নওমুসলিম 'সের্গেই অফানাসিভ' মনে করেন একত্ববাদ মানুষের আত্মা ও প্রাণকে দেয় অপার সৌন্দর্য। তিনি বলেছেন:

'আমাদের চারপাশে রয়েছে মহান আল্লাহর অনেক নিদর্শন। যদি আমরা খুব ভালভাবে চিন্তা-ভাবনা করি তাহলে দেখব যে জ্ঞান আমাদেরকে মহান আল্লাহর প্রতি বিশ্বাসের দিকে পরিচালিত করে। কারণ, প্রতিদিনই বাড়ছে বিজ্ঞানের আবিষ্কারের পরিধি। প্রতিদিনই সৃষ্টি জগতের বা সৃষ্টি-রহস্যের নানা দিক আগের চেয়েও স্পষ্ট হচ্ছে। আর এ থেকেই এ বাস্তবতা ফুটে উঠে যে কোনো জড় বস্তুই নিজ থেকেই অস্তিত্ব লাভ করতে পারে না।'

 

জীবনের সব দিকের জন্য ইসলামের বিধান থাকা তথা ধর্ম হিসেবে ইসলামের পরিপূর্ণতা মুগ্ধ করেছে 'সের্গেই অফানাসিভ'-কে। বিশ্বনবী (সা.) যে রাষ্ট্র ব্যবস্থা প্রতিষ্ঠা করেছিলেন তার উদ্দেশ্য ছিল খোদায়ী বিধান প্রতিষ্ঠার মাধ্যমে সমাজে নিরাপত্তা প্রতিষ্ঠাসহ সম্পদের সুষম বণ্টন, সৎ কাজে উৎসাহ দেয়া ও অসৎ কাজ প্রতিরোধের মত উচ্চতর নানা লক্ষ্য বাস্তবায়ন করা। ঈমান, আধ্যাত্মিকতা, ন্যায়বিচার, পরিপূর্ণ পক্ষপাতহীন আইনের শাসন, চারিত্রিক উন্নয়ন, আন্তরিকতা, পবিত্রতা, ভ্রাতৃত্ব, জ্ঞান-বিজ্ঞান ও সচেতনতা জোরদার ছিল বিশ্বনবী (সা.)'র রাষ্ট্র ব্যবস্থার কয়েকটি প্রধান বৈশিষ্ট্য।

 

ব্যক্তি-স্বার্থকেন্দ্রীক দলাদলি, মুনাফা ও সম্পদের লালসা-এইসবের কোনো স্থান ছিল না বিশ্বনবী (সা.)'র রাষ্ট্র-ব্যবস্থায়। আর এইসব কারণেই বিশ্বনবী (সা.)'র  প্রবর্তিত ইসলামী রাষ্ট্র-ব্যবস্থা মানব জাতির জন্য সবচেয়ে উন্নত রাষ্ট্র ব্যবস্থা।  তাওহিদ বা একত্ববাদ-ভিত্তিক এই রাষ্ট্র ব্যবস্থায় ছিল ইহকালীন ও পরকালীন তথা আধ্যাত্মিক এবং বস্তুগত ক্ষেত্রে সার্বিক উন্নয়ন বা চিরস্থায়ী সৌভাগ্য অর্জনের গ্যারান্টি।

 

রুশ নওমুসলিম 'সের্গেই অফানাসিভ' ইসলামের এইসব শ্রেষ্ঠ বৈশিষ্ট্যের প্রেক্ষাপটে বলেছেন: 'আমি সৌভাগ্যময় জীবনের অধিকারী হওয়ার ক্ষেত্রে ইসলামের চেয়ে পরিপূর্ণ ও সর্বাঙ্গীন  কোনো ধর্ম বা মতবাদের অস্তিত্ব দেখিনি। মানবজাতির উচ্চতর নানা লক্ষ্য পূরণের জন্য সবচেয়ে ভালো মডেল হল ইসলাম। মহান আল্লাহ মানুষকে দিয়েছেন বিবেক-বুদ্ধি ও জীবনাদর্শ বেছে নেয়ার স্বাধীনতা। আর এইসব ক্ষমতা ব্যবহার করে ন্যায়বিচার, মুক্তি ও শান্তির খোদায়ী পথ তথা ইসলামকেই বেছে নেয়া উচিত।' 

রুশ নওমুসলিম 'সের্গেই অফানাসিভ' ইসলাম ধর্ম গ্রহণের পর নিজের অনুভূতি তুলে ধরতে গিয়ে বলেছেন:

 

'আমি একজন বিশ্বাসী মুমিনে পরিণত হয়েছি। অবশ্য মাঝে মধ্যে আমার কোনো কোনো ঘনিষ্ঠ বন্ধু ও আপনজন আমাকে এ জন্য তিরস্কারও করেন। কিন্তু আমি তাদেরও সৌভাগ্য কামনা করছি যাতে তারাও আল্লাহর প্রতি বিশ্বাসের অনুভূতি তথা ঈমানের সুমিষ্টতা উপভোগ করতে পারেন। আমি মনে করি প্রতিপালক স্রস্টা তথা মহান আল্লাহর প্রতি আনুগত্য মানুষের আত্মার সবচেয়ে গভীরে অবস্থান করছে। তাই মানুষ কখনও আল্লাহ থেকে ও তাঁর বিধান  থেকে বিচ্ছিন্ন হওয়ার ক্ষমতা রাখে না। মহান আল্লাহর বিধান না মানাই হল বর্তমান বিশ্বের সমস্ত সংকট, যুদ্ধ ও দ্বন্দ্বের উৎস।' #

১০ মে (রেডিও তেহরান): আজ বিশ্বনবী হযরত মুহাম্মাদ (সা.)'র পবিত্র আহলে বাইতের অন্যতম সদস্য ও আহলে বাইতের ধারায় নবম ইমাম হযরত জাওয়াদ (আ.)'র পবিত্র জন্ম-বার্ষিকী। ইরানসহ বিশ্বব্যাপী পালিত হচ্ছে পবিত্র এই দিবস। 

 

পিতা ইমাম রেজা (আ.)'র শাহাদতের পর তিনি মাত্র ৮ বছর বয়সে ইমামতের দায়িত্ব পান এবং ১৭ বছর এই পদে দায়িত্ব পালনের পর মাত্র ২৫ বছর বয়সে শাহাদত বরণ করেন। তাঁর জন্ম হয়েছিল আজ হতে ১২৪০ চন্দ্রবছর আগে ১৯৫ হিজরির এই দিনে (১০ই রজব) পবিত্র মদীনায়। আহলে বাইতের অন্য ইমামগণের মত ইমাম জাওয়াদ (আ.)ও ছিলেন উচ্চতর নৈতিক গুণ, জ্ঞান ও পরিপূর্ণতার অধিকারী। তাক্বি বা খোদাভীরু ছিল তাঁর আরেকটি উপাধি। 

 

ইমাম জাওয়াদ (আ) মাত্র আট বছর বয়সে ইমামতির দায়িত্ব গ্রহণ করেন। এতো অল্প বয়সে তাঁর ইমামতিত্বের বিষয়টি ছিল যথেষ্ট বিস্ময়কর। ফলে অনেকেই এ বিষয়ে সন্দেহ করতেন। অথচ আল্লাহর তো এই শক্তি আছে যে তিনি মানুষকে তার বয়সের স্বল্পতা সত্ত্বেও পরিপূর্ণ বিবেক-বুদ্ধির পর্যায়ে পৌঁছাতে পারেন। কোরানের আয়াতের ভিত্তিতে পূর্ববর্তী উম্মাতের মধ্যেও এরকম উদাহরণ বহু আছে। যেমন শিশুকালে হযরত ইয়াহিয়া (আ) এর নবুয়্যত প্রাপ্তি, মায়ের কোলে নবজাতক ঈসা (আ) এর কথা বলা ইত্যাদি আল্লাহর সবর্শক্তিমান ক্ষমতারই নিদর্শন। 

 

ইমাম জাওয়াদ (আ) শৈশব-কৈশোরেই ছিলেন জ্ঞানে-গুণে, ধৈর্য ও সহনশীলতায়, ইবাদাত-বন্দেগিতে, সচেতনতায়, কথাবার্তায় শীর্ষস্থানীয় মহামানব। একবার হজের সময় বাগদাদ এবং অন্যান্য শহরের বিখ্যাত ফকীহদের মধ্য থেকে আশি জন মদীনায় ইমাম জাওয়াদ (আ) এর কাছে গিয়েছিলেন। তাঁরা ইমামকে বহু বিষয়ে জিজ্ঞেস করে অত্যন্ত যুক্তিযুক্ত ও সন্তোষজনক জবাব পেলেন। ফলে জাওয়াদ (আ) এর ইমামতিত্বের ব্যাপারে তাদের মনে যেসব সন্দেহ ছিল-তা দূর হয়ে যায়। 



ইমাম জাওয়াদ (আ) বড়ো বড়ো পণ্ডিতদের সাথে এমন এমন তর্ক-বাহাসে অংশ নিতেন যা ছিল রীতিমতো বিস্ময়কর। একদিন আব্বাসীয় খলিফা মামুন ইমাম জাওয়াদ (আ) এর জ্ঞানের গভীরতা পরীক্ষা করার জন্যে একটি মজলিসের আয়োজন করে। সেখানে তৎকালীন জ্ঞানী-গুণীজনদেরকে আমন্ত্রণ জানানো হয়। ঐ মজলিসে তৎকালীন নামকরা পণ্ডিত ইয়াহিয়া ইবনে আকসাম ইমামকে একটি প্রশ্ন করেন। প্রশ্নটি ছিল এই: যে ব্যক্তি হজ পালনের জন্যে ইহরাম বেঁধেছে, সে যদি কোনো প্রাণী শিকার করে,তাহলে এর কী বিধান হবে? ইমাম জাওয়াদ (আ) এই প্রশ্নটিকে বিভিন্ন ভাগে ভাগ করে মূল প্রশ্নের সাথে সংশ্লিষ্ট ২২টি দিক তুলে ধরে উত্তরের উপসংহার টানেন। উত্তর পেয়ে উপস্থিত জ্ঞানীজনেরা অভিভূত হয়ে যান এবং ইমামের জ্ঞানগত অলৌকিক ক্ষমতার প্রশংসাও করলেন।  


একটি বর্ণনামতে পুরো ঘটনা ছিল এ রকম:


খলিফা মামুন যখন সিদ্ধান্ত নিল নিজ কন্যা উম্মুল ফযল কে আবু জাফর মুহাম্মদ ইবনে আলী আল রেযা তথা ইমাম জাওয়াদ (আ.) এর সাথে বিবাহ দিবেন তখন তার নিকট আত্মীয়রা তাকে এ কাজে বাধা দেয়ার জন্য বললেন : আপনার কন্যা ও নয়নের মণিকে আপনি এমন এক শিশুর সাথে বিবাহ দিচ্ছেন যার এখনো আল্লাহর দ্বীনে জ্ঞান চক্ষু ফোটেনি, যে দ্বীনের হালাল হারাম ও মুস্তাহাব ওয়াজিবকে এখনো চেনে না, (নবম ইমামের বয়স সে সময় নয় বছর ছিল) সুতরাং যদি কিছুদিন অপেক্ষা করতেন যাতে জ্ঞান ও শিষ্টাচার শিখে নিত এবং কোরআন পাঠ করতো, হালাল ও হারামকে বুঝতো। মামুন বললেন : আল্লাহ সম্পর্কে ও তাঁর রাসুলের (সা.) সুন্নাত আর হুকুম আহকামের ক্ষেত্রে সে এখনো তোমাদের চেয়ে বেশি পণ্ডিত ও জ্ঞানী। সে তোমাদের চেয়ে আল্লাহর কোরআনকে উত্তমরূপে পড়ে ও জানে এর মুহকাম ও মুতাশাবিহ, নাসেখ ও মানসুখ, যাহের ও বাতেন, খাস ও আম, তানযীল ও তাবীল সব বিষয়ে তোমাদের চেয়ে বেশি জ্ঞানী। তাকে প্রশ্ন করো। যদি ব্যাপার এমন হয় যেমনটা তোমরা বলছ, তাহলে তোমাদের কথা মেনে নিব।

তারা সেখান থেকে চলে গেল এবং ইয়াহিয়া ইবনে আকসামের কাছে গেল যে সে সময়ে ছিল প্রধান বিচারপতি। তারা তার কাছে তাদের দরকারি কথাটি বললো এবং তাকে নানা উপঢৌকনের প্রলোভন দেখালো যাতে আবু জাফর (আ.) তথা শিশু ইমাম জাওয়াদের মোকাবেলায় উপায় খুঁজে বের করে। তারা তাঁকে এমন এক মাসআলা জিজ্ঞেস করতে বলল যার উত্তর তাঁর জানা না থাকে।

যখন সবাই উপস্থিত হলো এবং নবম ইমামও উপস্থিত হলেন, তারা বাদশাহ মামুনকে বললো : এ হলো বিচারপতি। যদি অনুমতি দেন, তিনি প্রশ্ন করবেন! মামুন বললেন : হে ইয়াহিয়া! একটি ফেকহি মাসআলা আবু জাফরের কাছে জিজ্ঞেস করো যাতে বুঝতে পারো তার ফেকাহর জ্ঞান কোন্ স্তরে।

ইয়াহিয়া বললেন : হে আবু জাফর! আল্লাহ তোমাকে কল্যাণ দিন। (হজের সময় পশু শিকার নিষিদ্ধ হওয়া সত্ত্বেও) ইহরাম পরিধানকারী বা সেই ইহরামকারীর ব্যাপারে তোমার বক্তব্য কি যে কোন শিকার হত্যা করেছে তথা পশু শিকার করেছে? ইমাম বললেন : শিকারটিকে হিল্লা এ (হারামের বাইরে) হত্যা করেছে নাকি হারামের (কাবার চারপাশের নিষিদ্ধ সীমার) মধ্যে? সে মাসআলা জানতো নাকি অজ্ঞ ছিল? ইচ্ছা করে হত্যা করেছে নাকি ভুলবশত? সে ইহরামকারী গোলাম ছিল নাকি আজাদ (মুক্ত)? ছোট (অপ্রাপ্তবয়স্ক) ছিল নাকি বড়? এটা তার প্রথম শিকার ছিল নাকি ইতোপূর্বেও সে শিকার করেছিল? শিকারটি কি পাখী ছিল নাকি অন্য কিছু? ছোট পাখী ছিল নাকি বড় পাখী? ইহরামকারী কি পুনরায় শিকার করার জেদ পোষণ করে নাকি অনুতপ্ত? এ শিকার রাতের বেলায় পাখীদের বাসা থেকে ছিল নাকি দিনের আলোয় প্রকাশ্যে? ইহরাম হজের জন্যে বেঁধে ছিল নাকি ওমরাহর জন্যে? বলা হয় যে ইয়াহিয়া এমনভাবে হতভম্ব হয়ে গেল যে সবার কাছে তা প্রকাশ হয়ে পড়লো। সবাই নবম ইমামের মাথা ঘুরে আসা উত্তরে বিস্মিত হয়ে গেল।

মামুন ঐ মজলিসেই নবম ইমামের কাছে নিজের কন্যাকে বিয়ে দেন ও বিয়ের অনুষ্ঠান সম্পন্ন করেন এবং বিশিষ্টজন, আত্মীয়-স্বজন, সাধারণ লোক, অভিজাত ও কর্মচারী সকলকেই পদবী অনুসারে উপহার দিয়েছিলেন।


যখন বেশিরভাগ লোক চলে গেল তখন মামুন বললেন : হে আবা জাফর! যদি আমাদেরকে বলে দিতে এই সব ধরনের শিকারের জন্য কি কি কাজ করা বা কাফফারা দেয়া ওয়াজিব হয়? উত্তরে ইমাম (আ.) বললেন : ইহরামকারী যখন হিল্লা-এ (হারামের বাইরে) শিকারকে হত্যা করে আর শিকারটি হয় বড় প্রজাতির পাখী বিশেষ তাহলে তার ওপর ওয়াজিব হল একটি দুম্বা। আর যদি তাকে হত্যা করে হারামের মধ্যে তাহলে তার কাফফারা হবে দ্বিগুণ। আর যদি কোন পক্ষী-ছানাকে হিল্লা-এ হত্যা করে তাহলে তার কাফফারা হলো সদ্য দুধ ত্যাগ করা একটি মেষ-শাবক। তার ওপর মূল্য ওয়াজিব নয় এবং যেহেতু এটা হারামের মধ্যে ঘটেনি। আর যদি হারামের সীমার মধ্যে হয়ে থাকে তাহলে মেষ-শাবক ও ছানার মূল্য দুটোই তার ওপর ওয়াজিব হবে। আর যদি সে শিকার কোন বন্যপ্রাণী হয়ে থাকে তাহলে জেব্রা হলো একটি গরু, আর উটপাখী হলে একটি উট কাফফারা দিতে হবে। আর যদি সক্ষম না হয় তাহলে ৬০ জন গরীবকে খাবার দিবে। আর যদি তাও না পারে তাহলে ১৮ দিন রোযা রাখবে। আর শিকার যদি গরু হয় তাহলে তার কাফফারা হবে একটি গরু। যদি সক্ষম না হয় তাহলে ৩০ জন মিসকিনকে খাবার দিবে। যদি তাও না পারে তাহলে ৯ দিন রোজা রাখবে। আর যদি হরিণ হয় তাহলে একটি দুম্বা তার ওপর ওয়াজিব হবে। যদি সক্ষম না হয় তাহলে ১০ জন মিসকিনকে খাওয়াবে। যদি তাও না পারে তাহলে ৩ দিন রোজা রাখবে। আর যদি হারামের সীমায় তাকে শিকার করে থাকে তাহলে কাফফারা হবে দ্বিগুণ এবং সেটা কাবায় পৌছাতে হবে ও কুরবানি করতে হবে। এটা হলো ওয়াজিব হক। যদি হজের ইহরামে থাকে তাহলে কাফফারাকে মিনায় জবেহ করবে যেখানে কুরবানি করার জায়গা রয়েছে। আর যদি ওমরাহর ইহরামে থাকে তাহলে মক্কায় এবং কাবার কাছে। আর তার মূল্যের পরিমাণে সদকাও প্রদান করবে যাতে দ্বিগুণ হয়।


তদ্রূপ যদি কোন খরগোশ বা শিয়ালকে শিকার করে, তার ওপরে একটি দুম্বা ওয়াজিব হবে এবং তার মূল্যের পরিমাণে সদকাও প্রদান করবে। আর যদি হারাম শরীফের সীমায় কোন কবুতরকে হত্যা করে তাহলে এক দেরহাম সদকা প্রদান করবে এবং আরেক দেরহাম দ্বারা খাদ্য ক্রয় করবে হারামের অন্যান্য কবুতরদের জন্যে। আর যদি হারাম ছাড়া অন্য স্থানের হয়ে থাকে তাহলে অর্ধ দেরহাম। আর যদি ডিম হয়ে থাকে তাহলে সিকি দেরহাম। আর ইহরামকারী কোন বরখেলাফ কাজ যদি অজ্ঞতাবশত কিংবা ভুলক্রমে করে থাকে তাহলে কাফফারা নেই কেবল ঐ শিকার ব্যতীত যার কাফফারা রয়েছে, অজ্ঞ থাকুক আর জানা থাকুক, ভুলক্রমে হয় আর ইচ্ছাকৃতভাবে হোক। আর দাস যদি কোন বরখেলাপ করে তাহলে তার কাফফারা পুরোপুরি তার মনিবের ওপরে। আর নাবালেগ শিশু কোন বরখেলাপ করলে তার ওপরে কিছু বর্তাবে না, আর যদি তার দ্বিতীয় বার শিকারের ঘটনা হয় তাহলে আল্লাহ তার থেকে প্রতিশোধ গ্রহণ করবেন। আর ইহরামকারী যদি অন্যকে শিকার দেখিয়ে দেয় এবং সে তাকে হত্যা করে তাহলে তার ওপর কাফফারা নেই। আর যে জেদ করে ও তওবা করেনি তার জন্যে দুনিয়ায় কাফফারার পরে পরকালেও রয়েছে শাস্তি। আর যদি অনুতপ্ত হয় তাহলে দুনিয়ার কাফফারার পরে পরকালে শাস্তি নেই। যদি রাত্রে পাখির বাসা থেকে ভুলক্রমে শিকার করে থাকে তাহলে তার কোনো কাফফারা নেই, যদি না তার মনে শিকারের সংকল্প থাকে। আর যদি ইচ্ছাকৃতভাবে শিকার করে থাকে তাহলে দিনে হোক আর রাতে হোক তার ওপরে কাফফারা বর্তাবে। আর যে হজের জন্যে ইহরাম বেঁধেছে তার উচিত কাফফারাকে মক্কায় কুরবানি করবে। 



 মামুন নবম ইমাম (আ.) থেকে এ বিধানগুলো লিপিবদ্ধ করে রাখার নির্দেশ দেন। এরপর তার পরিজনদের দিকে ফিরলেন যারা ইমাম (আ.) এর সাথে রাজকন্যার বিয়ের বিরোধী ছিল, তারপর বললেন : তোমাদের মধ্যে কেউ কি ছিল যে এরূপ উত্তর দিবে? তারা বললো : খোদার কসম! না। বিচারপতিরও সে সাধ্য ছিল না। তখন বলল : আপনি তার বিষয়ে আমাদের চেয়ে বেশি অবগত। মামুন বললেন : ধিক্ তোমাদের! জান না যে এই পরিবারের সদস্যরা অন্যান্য লোকদের শ্রেণীভুক্ত নয়, জান না যে রাসুলুল্লাহ (সা.) হাসান ও হুসাইন (আ.) যখন শিশু ছিলেন তখন তাদের বাইয়াত গ্রহণ করেছিলেন! অন্য কোন শিশুর বাইয়াত গ্রহণ করেন নি? জান না যে তাদের পিতা আলী (আ.) নয় বছর বয়সে রাসুলুল্লাহ (সা.) এর প্রতি ঈমান এনেছিলেন এবং রাসুলুল্লাহ (সা.) তাঁর ঈমানকে গ্রহণ করেছিলেন, অন্য কোন শিশুর থেকে গ্রহণ করেননি এবং অন্য কোন শিশুকে ইসলামের প্রতি দাওয়াত করেননি? জান না যে এরা একে অপরের বংশোদ্ভূত, এদের শেষের জন্য হুকুম সেটাই প্রথমের জন্যে যা? #

 

রেডিও তেহরান/এএইচ/১০