এই ওয়েবসাইটে আর আপডেট হবে না। আমাদের নতুন সাইট Parstoday Bangla
সোমবার, 18 এপ্রিল 2016 20:09

ভিন্নমত দমনের নোংরা রাজনৈতিক অপকৌশলের অবসান চাই: ইমরান

ভিন্নমত দমনের নোংরা রাজনৈতিক অপকৌশলের অবসান চাই: ইমরান

পাঠক! আমাদের প্রাত্যহিক অনুষ্ঠান কথাবার্তার আসরে স্বাগত জানাচ্ছি। আজ ১৮ এপ্রিল সোমবারের কথাবার্তার আসরের শুরুতেই বাংলাদেশ ও ভারতের গুরুত্বপূর্ণ দৈনিকের বিশেষ বিশেষ খবরের শিরোনাম। এরপর বাছাইকৃত কিছু খবরের গুরুত্বপূর্ণ অংশ।

 

প্রথম আলো অনলাইন: রিজার্ভের অর্থ চুরিতে ২০ বিদেশি শনাক্ত: সিআইডি

ইত্তেফাক অনলাইন: জয়কে অপহরণ চেষ্টা মামলায় মাহমুদুর রহমানকে ১০ দিনের রিমান্ডের আবেদন

যুগান্তর অনলাইন: বান্দরবানে অপহৃত ৩ গরু ব্যবসায়ীর লাশ উদ্ধার

বাংলাদেশ প্রতিদিন অনলাইন: ফের গ্রেফতার আতঙ্ক বিএনপিতে

নয়া দিগন্ত অনলাইন: ইলিয়াস আলী সরকারের গোয়েন্দাদের কাছেই আছে: রিজভী

 

ভারতের বাংলা দৈনিকের শিরোনাম:

 

আনন্দবাজার অনলাইন: জানলে টিকিট দিতাম না, নারদ-ক্রোধে ভাইদের পথে বসালেন দিদি

সংবাদ প্রতিদিন অনলাইন: মোদির বিদেশ সফরের খরচ নিয়ে প্রশ্ন তুললেন মমতা ব্যানার্জী

বর্তমান অনলাইন: হার নিশ্চিত জেনেই মমতার আক্রমণ কমিশনকে: মোদি

আজকাল অনলাইন: রাতভর বোমাবাজি ও গুলিতে উত্তপ্ত পাড়ুই

 

শিরোনামের পর এবার বাংলাদেশ ও ভারতের-সবচেয়ে আলোচিত খবরের গুরুত্বপূর্ণ অংশ তুলে ধরছি।

 

বিশিষ্ট সাংবাদিক শফিক রেহমানকে গ্রেফতার, রিমান্ড এবং আজ মাহমুদুর রহমানকে শ্যোন অ্যারেস্ট দেখিয়ে রিমান্ডের আবেদনের খবরটি টক অব দ্যা কান্ট্রিতে পরিণত হয়েছে।

 

এ সম্পর্কে দৈনিক প্রথম আলোর শিরোনাম-মাহমুদুর রহমানকেও রিমান্ডে নেয়া হবে: শফিক রেহমানের গ্রেপ্তারের নিয়ে নানা মত সাংবাদিকদের

 

খবরে বলা হয়েছে, শফিক রেহমানকে গ্রেপ্তারের কারণ নিয়ে পক্ষে-বিপক্ষে নানা মত রয়েছে। পুলিশ সুনির্দিষ্ট মামলা দেখিয়ে গ্রেপ্তার করলেও বিএনপির নেতারা মনে করছেন, শফিক রেহমানকে যে মামলায় গ্রেপ্তার দেখানো হয়েছে, গ্রেপ্তার করার মূল কারণ সেটি নয়।

 

বিএনপির নেতাদের কেউ কেউ মনে করছেন, বিএনপিপন্থী বুদ্ধিজীবীদের চাপে রাখতে শফিক রেহমানকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। আবার কারও কারও ধারণা, কূটনৈতিক পর্যায়ে শফিক রেহমানের যোগাযোগ থাকায় তাঁকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

 

তবে বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষের মধ্যে এই গ্রেপ্তার নিয়ে মিশ্র প্রতিক্রিয়া আছে। প্রধানমন্ত্রীর ছেলে এবং তাঁর তথ্যপ্রযুক্তি-বিষয়ক উপদেষ্টা সজীব ওয়াজেদ জয়কে অপহরণ ও হত্যার পরিকল্পনায় নাম থাকায় তিনি গ্রেপ্তার হয়েছেন, এটা আওয়ামী লীগের অনেক নেতা-কর্মী বিশ্বাস করেন। আবার তাঁর মতো প্রবীণ সাংবাদিক এমন কাজ করতে পারেন কি না, তা নিয়ে সন্দেহ-সংশয়ও আছে অনেকের মধ্যে।

 

এদিকে জয় অপহরণ চেষ্টার মামলায় -মাহমুদুর রহমানের নামও এসেছে: পুলিশের দায়িত্বশীল একটি সূত্র বলছে, শফিক রেহমানকে জিজ্ঞাসাবাদ করে জয়কে হত্যা ও অপহরণের ষড়যন্ত্রে আমার দেশ পত্রিকার ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক মাহমুদুর রহমানের সম্পৃক্ততার তথ্য পাওয়া গেছে।

 

এ সম্পর্কে নয়া দিগন্তের খবর, জয়কে অপহরণ চেষ্টা মামলায় এবার কারাবন্দি মাহমুদুর রহমানকে শ্যোন অ্যারেস্ট দেখিয়ে ১০ দিনের রিমান্ড আবেদন করেছেন মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা পরিদর্শক ফজলুর রহমানত। আদালত আগামী ২৫ এপ্রিল রিমান্ড শুনানির জন্য দিন ধার্য করেন।

 

এদিকে, বিএনপিতে গ্রেপ্তার আতঙ্ক: শফিক রেহমান ও গাজীপুর সিটি করপোরেশনের মেয়র এম এ মান্নানকে গ্রেপ্তারের পর বিএনপির নেতা-কর্মীদের অনেকের মধ্যে নতুন করে গ্রেপ্তার-আতঙ্ক তৈরি হয়েছে।

 

.............

 

‘ইমরান এইচ সরকারকে ক্ষমতা চাইতে হবে বলেছেন সজীব ওয়াজেদ জয়’ খবরটি মানবজমিনসহ অনেকগুলো দৈনিকে ছাপা হয়েছে।

খবরের বক্তব্য এরকম, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ছেলে এবং তার তথ্য ও প্রযুক্তিবিষয়ক উপদেষ্টা সজীব ওয়াজেদ জয় এক ফেসবুক স্ট্যাটাসে লিখেছেন, যুক্তরাষ্ট্রের ডিপার্টমেন্ট অব জাস্টিস আমাকে অপহরণ ও হত্যার ষড়যন্ত্রে শফিক রেহমানের সরাসরি সংশ্লিষ্টতা উদ্ঘাটন করেছে। তারা এ বিষয়ে প্রমাণাদি আমাদের সরকারের কাছে দিয়েছে। তাকে এই প্রমাণের ভিত্তিতেই গ্রেপ্তার করা হয়েছে। এই প্রমাণ দ্ব্যর্থহীন এবং অখণ্ডনীয়।

 

জয় বলেছেন, আমি আশ্চর্য হয়েছি ইমরান সরকারের বিষয়ে। সম্ভবত শেষ পর্যন্ত তার আসল চেহারাটা উন্মোচিত হলো। সে আমাদের বেশির ভাগ সুশীলের মতোই, আরেকটা সুবিধাবাদী এবং মিথ্যাবাদী। হয়তো বিএনপি তাকে পয়সা দিয়েছে। তাকে তার বক্তব্য প্রত্যাহার করে আমাদের সরকারের কাছে ক্ষমা চাইতে হবে।

 

এর আগে এক ফেসবুক স্ট্যাটাসে ইমরান সরকার বলেছিল, বায়বীয় অভিযোগে শফিক রেহমানকে গ্রেপ্তার হতাশাজনক। শফিক রেহমানের গ্রেপ্তারের নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়ে বলেছিল, শফিক রেহমানের রাজনৈতিক আদর্শের সঙ্গে আমি একমত নই। ভিন্নমতের হলেই তাকে দমন করার যে নোংরা রাজনৈতিক অপকৌশল, এর একটা অবসান চাই।

..............

 

নারী ও শিশু ধর্ষণের ঘটনা প্রায়ই দৈনিকগুলোর পাতায় লক্ষ্য করা যাচ্ছে। আজকের দৈনিকগুলোর অন্তত দুটি শিশু ধর্ষণের কথা তুলে ধরছি।

‘পঞ্চগড়ে প্রতিবন্ধী শিশু ধর্ষণ, আটক ১’ বাংলাদেশ প্রতিদিনের শিরেনাম এটি।

 

খবরটিতে বলা হয়েছে, পঞ্চগড়ে শারীরিক প্রতিবন্ধী এক শিশু (১৪) ধর্ষণের ঘটনা ঘটেছে। গতকাল দুপুরে জেলার পঞ্চগড় সদর উপজেলার চাকলাহাট ইউনিয়নের শিংরোড এলাকায় ওই প্রতিবন্ধী শিশুটি ধর্ষণের শিকার হয়। এ ঘটনায় ধর্ষক কাইমুল ইসলাম ওরফে কায়মলকে (৫০) আটক করেছে পুলিশ।

অপর ঘটনাটি হচ্ছে-

 

‘রাজধানীতে শিশু ধর্ষণের অভিযোগ, গ্রেপ্তার ১’ প্রথম আলোর এ শিরোনামের খবরে লেখা হয়েছে, পশ্চিম নন্দীপাড়ায় এক রিকশাচালকের মেয়েশিশু ধর্ষণের শিকার হয়েছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ ঘটনায় একজনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

 

তো শিশু ও নারী ধর্ষণের ঘটনা বেড়ে যাওয়াও সমাজবিজ্ঞানীরা উদ্বেগ প্রকাশ করেছে।

 

.............

 

এবার একটি দুর্নীতি বিষয়ক খবর: ‘কারারক্ষী নিয়োগে জালিয়াতি’

 

মানবজমিনে প্রকাশিত এ প্রতিবেদনে লেখা হয়েছে, কারাগারগুলোর নিরাপত্তাসহ বিভিন্ন বিষয়ে তারা অতন্ত্র প্রহরীর মতো কাজ করছেন। এবার স্পর্শকাতর এ ‘কারারক্ষী’ নিয়োগে ভয়ঙ্কর জালিয়াতির অভিযোগ উঠেছে। অনুসন্ধানে জানা গেছে, সাধারণ কোটা, মুক্তিযোদ্ধা কোটা ও এতিম কোটায় কারারক্ষী নিয়োগে ভয়াবহ অনিয়ম, দুর্নীতি ও জালিয়াতি হয়েছে। দেশের শীর্ষ এক গোয়েন্দা সংস্থা অনুসন্ধান করে জালিয়াতির প্রমাণও পেয়েছে। স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে পাঠানো এক প্রতিবেদনে বিস্তারিত তুলে ধরা হয়েছে।

........

 

মানবজমিনের শিরোনাম: ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন: ৩য় ধাপ নিয়েও শঙ্কা ইসির

 

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ইউপি নির্বাচনের তৃতীয় ধাপ নিয়েও ব্যাপক সহিংসতার আশঙ্কা নির্বাচন কমিশনের। এরই মধ্যে অভিযোগের পাহাড় জমেছে ইসিতে। রিটার্নিং কর্মকর্তার কার্যালয়েও জমেছে সংঘাত, সংঘর্ষের আশঙ্কা জানিয়ে নানা অভিযোগ। প্রথম ও দ্বিতীয় ধাপের তিক্ত অভিজ্ঞতা নিয়ে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সঙ্গে বৈঠকও করেছে ইসি। কিন্তু থেমে নেই সহিংসতা। ইসি কর্মকর্তারা বলছেন, প্রথম দুই ধাপের নির্বাচনে ইসি কোনো শক্ত পদক্ষেপ না নেয়ায় তৃতীয় ধাপে সহিংসতার আশঙ্কা কয়েকগুণ বেড়ে গেছে। আগামী ২৩শে এপ্রিল তৃতীয় ধাপে দেশের ৬২০টি ইউনিয়ন পরিষদে ভোট

............

 

ছেলের গুলিতে বাবার মৃত্যু, মায়ের মামলা

 

প্রথম আলোসহ কয়েকটি দৈনিকে প্রকাশিত এ সম্পর্কিত খবরে লেখা হয়েছে, মাদক কেনার জন্য টাকা না পেয়ে কেরানীগঞ্জ উপজেলার হযরতপুর ইউনিয়নের জগন্নাথপুর গ্রামের মো. মন্তাজউদ্দিন (৬৬) নামের এক ব্যক্তিকে তার ছেলে তমিজউদ্দিন ওরফে তনু (২৩) গতকাল গুলি করে হত্যা করেছে। এ হত্যার ঘটনায় ছেলের বিরুদ্ধে মামলা করেছেন মা।

 

নিহত ব্যক্তির স্ত্রী আফিলা বেগম (৫০) জানান, তার ছেলে তমিজউদ্দিন মাদকসেবী। সে কোনো কাজকর্ম করে না। গতকাল দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে তিনি বাবা মন্তাজউদ্দিনের কাছে ৫০০ টাকা চান। বাবা টাকা দিতে অস্বীকৃতি জানান এবং মাদক ছেড়ে দিতে বলেন। এ কথায় ক্ষিপ্ত হয়ে কোমরে থাকা পিস্তল বের করে মন্তাজকে লক্ষ্য করে গুলি ছোড়েন তমিজউদ্দিন। ছেলের ছোড়া গুলি বুকে বিদ্ধ হলে মন্তাজউদ্দিন ঘটনাস্থলেই মারা যান।

 

মাদকাসক্ত ছেলের হাতে বাবা হত্যার ঘটনা সত্যিই মর্মান্তিক। সমাজে মাদক একভয়াবহ রুপ ধারণ করেছে। তারই ফলশ্রুতিতে যুব সমাজ মারাত্মক অবক্ষয়ের দিকে ধাবিত হচ্ছে বলে মনে করেন মনোবিজ্ঞানীরা। তারা মনে করেন খুবই দ্রুত সমাজকে মাদকমুক্ত করা না গেলে সামনে ভয়াবহ অশনি অপেক্ষা করছে।

.....................

 

বাংলাদেশের পর এবার ভারতের গরুত্বপূর্ণ খবরের অংশ:

 

আনন্দবাজারের খবর-ভোট মিটতেই হামলা, রাতভর গুলি-বোমায় রক্তাক্ত পাড়ুই।

দৈনিক আজকাল অনলাইন লিখেছে, সহিংসতা রুখতে ব্যর্থ হওয়ায় সাসপেন্ড পাড়ুই থানার ওসি দেবব্রত সিংহ।

আর দৈনিক বর্তমানের খবরে বলা হয়েছে, কয়েকটি বিক্ষিপ্ত ঘটনা ছাড়া রোববার সাত জেলার ৫৬টি আসনে মোটামুটি শান্তিতেই ভোটগ্রহণ শেষ হয়।

 

সংবাদ প্রতিদিন অনলাইনের নির্বাচন সম্পর্কিত খবরে বলা হয়েছে, প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিকে এবার দুর্নীতি ইস্যুতেই পাল্টা আক্রমণ করলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়৷ সামনে আনলেন গুজরাটের গ্যাস-কাণ্ড। অন্যদিকে রাজ্যে তৃতীয় দফার প্রচারে এসে আগের মতোই তৃণমূলের পাশাপাশি কংগ্রেস-বাম জোটকে কড়া ভাষায় আক্রমণ করলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি৷ তিনি মমতার তীব্র সমালোচনা করলেন।

 

...........

 

তো পাঠক! এই ছিল আজকের কথাবার্তার আসরে সর্বশেষ গুরুত্বপূর্ণ খবরের অংশ। এতক্ষণ আমাদের সাথে থাকার জন্য ধন্যবাদ। আবার কথা হবে আগামীকালের কথাবার্তার আসরে। সবাই ভালো থাকবেন।# গাজী আবদুর রশীদ/১৮

 

মাধ্যম

মন্তব্য লিখুন


Security code
রিফ্রেস দিন