এই ওয়েবসাইটে আর আপডেট হবে না। আমাদের নতুন সাইট Parstoday Bangla
মঙ্গলবার, 19 এপ্রিল 2016 18:43

ষড়যন্ত্র করে বিচার বন্ধ করা যাবে না: প্রধানমন্ত্রী

ষড়যন্ত্র করে বিচার বন্ধ করা যাবে না: প্রধানমন্ত্রী

‘পাঠক! আমাদের প্রাত্যহিক অনুষ্ঠান কথাবার্তার আসরে স্বাগত জানাচ্ছি। আজ ১৯ এপ্রিল মঙ্গলবারের কথাবার্তার আসরের শুরুতেই বাংলাদেশ ও ভারতের গুরুত্বপূর্ণ দৈনিকের বিশেষ বিশেষ খবরের শিরোনাম। এরপর বাছাইকৃত কিছু খবরের গুরুত্বপূর্ণ অংশ।

 

প্রথম আলো অনলাইন: জয়কে হত্যার ষড়যন্ত্র: যুক্তরাষ্ট্রে যাচ্ছে তদন্তদল

ইত্তেফাক অনলাইন: বিএনপি আন্তর্জাতিক সন্ত্রাসবাদের সাথে জড়িত'

মানবজমিন অনলাইন: ইমরান এখন যুদ্ধাপরাধী’

যুগান্তর অনলাইন: শফিক রেহমানের বাসায় অভিযান, জয়কে হত্যাচেষ্টার নথি জব্দ

বাংলাদেশ প্রতিদিন অনলাইন: সরকারি দলের বিদ্রোহীদের কারণে প্রাণ ঝরছে

নয়া দিগন্ত অনলাইন: সরকারের বিরুদ্ধে কথা বললেই গ্রেফতার করা হচ্ছে : ফখরুল

 

ভারতের বাংলা দৈনিকের শিরোনাম:

 

আনন্দবাজার অনলাইন: সৌরভ হত্যায় ৮ জনের ফাঁসি, বাকিদের যাবজ্জীবন ও পাঁচ বছরের সাজা

সংবাদ প্রতিদিন অনলাইন: জনস্রোতই জবাব, সংক্ষিপ্ত উত্তর মমতার

বর্তমান অনলাইন: সুপ্রিম কোর্টে জানিয়ে দিল কেন্দ্র কোহিনুর হিরে ইংরেজরা চুরি করেনি, উপহার হিসেবেই তাদের দেওয়া হয়েছিল।

 

আজকাল অনলাইন: দাম্পত্য ধর্ষণকে অপরাধ তকমা দেওয়ার কথা ভাবছে সরকার। জানালেন কেন্দ্রীয় মহিলা ও শিশু কল্যাণ মন্ত্রী মানেকা গান্ধী।

 

শিরোনামের পর এবার বাংলাদেশ ও ভারতের-সবচেয়ে আলোচিত খবরের গুরুত্বপূর্ণ অংশ তুলে ধরছি।

 

আজও প্রতিটি দৈনিকের পাতা জুড়ে স্থান করে নিয়েছে জয়কে অপহরণ চেষ্টায় সিনিয়র সাংবাদিক শফিক রেহমানকে গ্রেফতার এবং ফলোআপ।

 

দৈনিক যুগান্তর অনলাইন লিখেছে, সাংবাদিক শফিক রেহমানের বাসায় অভিযান চালিয়ে প্রধানমন্ত্রীর তথ্য প্রযুক্তি উপদেষ্টা ও তার ছেলে সজীব ওয়াজেদ জয়কে হত্যাচেষ্টা সংক্রান্ত নথিপত্র জব্দ করার দাবি করেছে ডিএমপির অতিরিক্ত কমিশনার মনিরুল ইসলাম। এ মামলা তদন্তের জন্য গোয়েন্দা পুলিশের (ডিবি) তিন সদস্যের একটি প্রতিনিধিদল যুক্তরাষ্ট্রে যাচ্ছে।

 

‘শফিক রেহমানদের ষড়যন্ত্র মার্কিন আদালতে প্রমাণিত’প্রধানমন্ত্রী-এ শিরোনামটি দৈনিক ইত্তেফাকের।

 

খবরটিতে বলা হয়েছে, প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, আমেরিকাই সজীব ওয়াজেদ জয়কে অপহরণ করে হত্যার ষড়যন্ত্রকারীদের ধরেছে, বিচার করেছে। এটা আমাদের করা না, আমেরিকার কোর্টে প্রমাণিত।

 

গতকাল বিকালে ঐতিহাসিক মুজিবনগর দিবস উপলক্ষে আওয়ামী লীগ আয়োজিত আলোচনা সভায় সভাপতির বক্তৃতায় সাংবাদিক শফিক রেহমানকে গ্রেফতার প্রসঙ্গে প্রধানমন্ত্রী আরো বলেন, অপরাধীকে গ্রেফতার করলেও এখন অপরাধ হয়! যদি অপরাধীকে গ্রেফতার করলেই অপরাধ হয়, তাহলে এদেশে কী করে বিচার হবে? তারা শুধু সাংবাদিক দেখলো, দেখলো না অপরাধী। ষড়যন্ত্রও হচ্ছে আমাদের বিরুদ্ধে, আর সমালোচনারও শিকার আমরা। সবার মানবাধিকার আছে, আমাদের কী কোন মানবাধিকার নেই? ষড়যন্ত্রকারীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার পর যারা মানবাধিকারের কথা বলেন, তাদেরই লজ্জা হওয়া উচিত।

 

জয়কে অপহরণ করে হত্যার চেষ্টার ঘটনা তুলে ধরে শেখ হাসিনা বলেন, যারা ষড়যন্ত্র-চক্রান্তকারী, যারা এতিমের টাকা মেরে খায়, মানুষকে পুড়িয়ে হত্যা করে, তাদের বিচার বাংলাদেশের মাটিতে হবেই। শত কথা বলেও এ বিচার বন্ধ করা যাবে না। তিনি বলেন, দেশ এখন এগিয়ে যাচ্ছে, এগিয়ে যাবে। কোন অপশক্তিই দেশের এই অগ্রযাত্রাকে রূখতে পারবে না ইনশাল্লাহ।

 

...........

 

‘ইসি হাল ছেড়ে দিল’দৈনিক বাংলাদেশ প্রতিদিনের অনুসন্ধানী প্রতিবেদনের শিরোনাম এটি।

 

প্রতিবেদনে তৃতীয় দফার ইউপি নির্বাচনকে সামনে রেখে মাঠে ময়দানের চিত্র ও নির্বাচন কমিশনের অবস্থা তুলে ধরা হয়েছে।

 

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ডিসি, এসপি, রিটার্নিং অফিসার ও ওসিরা ক্ষমতাসীনদের নিয়ন্ত্রণেই স্থানীয় পর্যায়ে নির্বাচনের দায়িত্ব পালন করছেন বলে অভিযোগ উঠেছে। রিটার্নিং অফিসাররা ক্ষমতাসীন দলের নেতাদের কথায় চলছেন। ডিসি-এসপিরাও ক্ষমতাসীনদের প্রার্থী বিজয়ী করতে ব্যস্ত। ভোটের দিন নির্দ্বিধায় ক্ষমতাসীনদের হাতে ব্যালট তুলে দিচ্ছেন সিল দেয়ার জন্য। চলমান স্থানীয় সরকার নির্বাচনের এ চিত্র পাল্টাতে বার বার কেন্দ্র থেকে নির্দেশনা, হুঁশিয়ারি দিয়েও ব্যর্থ হচ্ছে নির্বাচন কমিশন (ইসি)।

 

এমন পরিস্থিতিতে দুই দফা ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন শেষে এখন হাল ছেড়ে দিয়েছে ইসি। এখন কোনোভাবে নির্বাচন সম্পন্ন করে আগামী বছর মেয়াদ শেষে বিদায় নিতে চাইছেন বর্তমান কমিশনাররা। ইসির কর্মকর্তাদের সঙ্গে কথা বলে এ মনোভাব জানা গেছে।

 

ইউপি নির্বাচনের এমন পরিস্থিতিতে ইসির দায়িত্বশীল কর্মকর্তারা মনে করছেন, মাঠপ্রশাসনের ওপর নির্বাচনের সব দায়িত্ব দিয়ে ইসি হাঁপ ছেড়ে বাঁচতে চাইছে। তাই তারা নির্বাচনী হাল ছেড়ে দিয়েছেন। যে যেমনে পারছেন, সিল মেরে নিচ্ছেন। অনেক মাঠ কর্মকর্তা ফলাফলও পাল্টিয়ে দিচ্ছেন, ইসি কিছুই বলছে না। অনেকে আক্ষেপ করে বলেন, কী দরকার টাকা দিয়ে ব্যালট ছাপানোর। চেয়ারম্যানদের বললেই তারা নিজেদের প্রতীকে সিল দিয়ে ব্যালট ছাপিয়ে নিতেন!

 

এ বিষয়ে নির্বাচন বিশ্লেষক ও সুশাসনের জন্য নাগরিক—সুজন সম্পাদক ড. বদিউল আলম মজুমদার বাংলাদেশ প্রতিদিনকে বলেছেন, এ নির্বাচনে সংঘাত-সহিংসতায় মৃত্যুর সংখ্যা দিন দিন বাড়ছে। নির্বাচন কমিশন তাদের নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে ফেলেছে। তারা ব্যর্থ-তাদের উচিত সরে দাঁড়ানো।

 

.............

 

এবারে মর্মান্তিকভাবে দেড়বছরের এক শিশু হত্যার ঘটনা। দৈনিক নয়া দিগন্তের শিরোনাম: উত্তরখানে দেড় বছরের শিশুর লাশ উদ্ধার: অভিযোগের আঙুল মায়ের দিকে

 

রাজধানীর উত্তরখান এলাকার একটি বাসা থেকে দেড় বছরের এক শিশুর লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। তার শরীরে ধারালো অস্ত্রের আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। এ ঘটনায় জিজ্ঞাসাবাদের জন্য শিশুটির মা-বাবাকে হেফাজতে নিয়েছে পুলিশ। গতকাল সোমবার রাত সাড়ে ১১টার দিকে উত্তরখানের মাস্টারপাড়া সোসাইটি রোডের চারতলা একটি বাড়ির ফ্ল্যাট থেকে নিহাল সাদিক নামের শিশুটির লাশটি উদ্ধার করা হয়। ওসি শেখ সিরাজুল হক জানান, দীর্ঘদিন ধরে স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে কলহ ছিল। স্বামীর ধারণা ছিল নিহাল তার বাচ্চা না। এই নিয়ে প্রায়ই তাদের ঝগড়া ঝাটি হতো।

 

গত দু'দিন স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে প্রচণ্ড ঝগড়া হয়। বাড়িওয়ালা তাদের বাড়ি ছাড়ার নোটিশ দেয়। গতকাল সন্ধ্যায় বাসায় শিশু সন্তানকে নিয়ে একাই বাসায় ছিলেন মা। রাত সাড়ে ১১টার দিকে স্বামী বাসায় ফিরে দেখেন বাচ্চা বিছানায় মরে পড়ে আছে। তার শরীরে ধারালো ছুরির আঘাত। পাশেই ছিলেন মা। তার গলাতেও দাগ পাওয়া গেছে। ধারণা করা হচ্ছে, শিশুকে হত্যার পর আত্মহত্যার চেষ্টা করেছিলেন মা। তাকে আটক করে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে। শিশুর বাবাকেও জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক করা হয়েছে।

 

 

এছাড়া চট্টগ্রামে মেয়েকে হত্যার পর মা আত্মহত্যা করেছে এমন খবর এসেছে মানবজমিন অনলাইনে।

 

এর আগে রাজধানীর বনশ্রীতে সহোদর ভাইবোনকে তাঁদের মা হত্যা করেছেন বলে জানায় র‍্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‍্যাব)।

 

সাম্প্রতিক সময়ে বেশ কয়েকটি শিশু হত্যার ঘটনা ঘটেছে। আর এসবের জন্য বাবা মাকে অভিযুক্ত করা হয়েছে। এ ব্যাপারে সমাজবিজ্ঞানীরা উদ্বেগ প্রকাশ করেছে এবং কেন এমনটি হচ্ছে তা খতিয়ে দেখা দরকার বলে মনে করছে।

 

...........

 

‘খরা কবলিত লাতুরে সেলফি, প্রবল সমালোচনার মুখে পঙ্কজা মুন্ডে’

 

দৈনিক বর্তমান প্রকাশিত খবরে বলা হয়েছে, শুল্কমন্ত্রী একনাথ খাদসের পর এবার পঙ্কজা মুন্ডে। খরা কবলিত লাতুরে গিয়েছিলেন মহারাষ্ট্রের গ্রামোন্নয়নমন্ত্রী পঙ্কজা মুন্ডে। একটি জলশূন্য ফেটে চৌচির নদী দেখে সখ হয়েছিল সেলফি তোলার! তখন একবারও মাথাতেও আসেনি, শুধুমাত্র একটা সেলফি তাকে এতটা বিতর্কের মধ্যে ফেলবে। বিরোধীরা বললে তাও ঠিক ছিল। কিন্তু জোটসঙ্গী শিবসেনাও তাকে একহাত নিয়েছেন। পরিস্থিতি সামলাতে একটি যুক্তি পেশ করেছেন গোপীনাথ মুন্ডের কন্যা। যা আরও হাস্যকর বলে মনে করছে রাজ্যের বিরোধীরা। পঙ্কজা মুন্ডে বলেছেন, ওই শুকিয়ে যাওয়া নদীর একটি দিকে নালার মধ্যে জল দেখে তিনি উল্লসিত হয়ে ওঠেন। তাই ছবি তুলে ছিলেন। কিন্তু তার এই ‘শিশুসুলভ’যুক্তি কানে তুলছে না শিবসেনা। এই সেলফি ‘লজ্জাজনক’বলে ব্যাখ্যা করেছেন শিবসেনা নেতৃত্ব।

 

...............

 

তো পাঠক! এই ছিল আজকের কথাবার্তার আসরে সর্বশেষ গুরুত্বপূর্ণ খবরের অংশ।এতক্ষণ আমাদের সাথে থাকার জন্য ধন্যবাদ। আবার কথা হবে আগামীকালের কথাবার্তার আসরে। সবাই ভালো থাকবেন।# গাজী আবদুর রশীদ/১৯

 

মাধ্যম

মন্তব্য লিখুন


Security code
রিফ্রেস দিন