এই ওয়েবসাইটে আর আপডেট হবে না। আমাদের নতুন সাইট Parstoday Bangla
বুধবার, 20 এপ্রিল 2016 18:51

দেশজুড়ে দুদকের অভিযানে গ্রেফতার ৫৩: দুদকের জিরো টলারেন্স নীতি

দেশজুড়ে দুদকের অভিযানে গ্রেফতার ৫৩: দুদকের জিরো টলারেন্স নীতি

‘পাঠক! আমাদের প্রাত্যহিক অনুষ্ঠান কথাবার্তার আসরে স্বাগত জানাচ্ছি। আজ ২০ এপ্রিল বুধবারের কথাবার্তার আসরের শুরুতেই বাংলাদেশ ও ভারতের গুরুত্বপূর্ণ দৈনিকের বিশেষ বিশেষ খবরের শিরোনাম। এরপর বাছাইকৃত কিছু খবরের গুরুত্বপূর্ণ অংশ।

 

প্রথম আলো অনলাইন: রিজার্ভ চুরির ঘটনা ভিন্ন খাতে নিতে শফিক রেহমান গ্রেপ্তার: মির্জা ফখরুল

ইত্তেফাক অনলাইন: শেয়ার কারসাজির দেড় যুগ পর দুই জনের দণ্ড

মানবজমিন অনলাইন: ছাত্রীকে ‘অনৈতিক’ প্রস্তাব, জবি শিক্ষককে অব্যাহতি

যুগান্তর অনলাইন: দরিদ্র মেধাবীদের উচ্চশিক্ষার সুযোগ নিশ্চিতের আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর

নয়া দিগন্ত অনলাইন: মুয়াজ্জিন হত্যা : মূল হোতাসহ ৫ জন গ্রেফতার

 

ভারতের বাংলা দৈনিকের শিরোনাম:

 

আনন্দবাজার অনলাইন: ঘুষ-ভিডিও বিপজ্জনক, নারদায় দোষীদের শাস্তি চান প্রধান বিচারপতি

সংবাদ প্রতিদিন অনলাইন: পিএফের নতুন নিয়েম নিয়ে দেশজুড়ে বিক্ষোভ-

বর্তমান : খরা পরিস্থিতি আরও ঘোরালো মহারাষ্ট্রে,সুপ্রিম কোর্ট জানাল এটা কেন্দ্রের দায়িত্ব

আজকাল অনলাইন: আদৌ জেল থেকে ছাড়া পাবে রাজীব গান্ধীর ৭ খুনী? সেই নিয়ে এখনও ধন্দে খোদ কেন্দ্র।

 

শিরোনামের পর এবার বাংলাদেশ ও ভারতের-সবচেয়ে আলোচিত খবরের গুরুত্বপূর্ণ অংশ তুলে ধরছি।

 

আজও প্রতিটি দৈনিকের পাতা জুড়ে স্থান করে নিয়েছে জয়কে অপহরণ চেষ্টায় সিনিয়র সাংবাদিক শফিক রেহমানকে গ্রেফতার এবং ফলোআপ খবর।

এ সম্পর্কে সরকারের সড়ক ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরের বক্তব্য ছাপা হয়েছে প্রায় সব জাতীয় দৈনিকে। ইত্তেফাক লিখেছে, ওবায়দুল কাদের বলেছেন, 'যুক্তরাষ্ট্রের তদন্ত সংস্থা এফবিআই-এর তদন্তে অনেক বিষয় এখন স্পষ্ট হয়ে আসছে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ছেলে সজীব ওয়াজেদ জয় আওয়ামী লীগের ভবিষ্যৎ নেতৃত্বের দাবিদার হওয়ায় তাকে হত্যার মাধ্যমে আওয়ামী লীগের রাজনীতি হুমকির মুখে ফেলতে চেয়েছিলেন অভিযুক্তরা।

'

এদিকে দৈনিকটির অন্য একটি খবরে বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের বক্তব্য তুলে ধরা হয়েছে। তিনি বলেছেন, তনু হত্যা ও বাংলাদেশ ব্যাংকের রিজার্ভ চুরির ঘটনা ধামাচাপা দিতে সাংবাদিক শফিক রেহমানকে গ্রেফতার করা হয়েছে। আর বিএনপি নেতা নজরুল ইসলাম খান বলেছেন, 'শফিক রেহমানের স্বীকারোক্তি অস্বাভাবিক'। শফিক রেহমানকে গ্রেফতার নিয়ে এখন সরকারি দল এবং বিএনপির মধ্যে পাল্টাপাল্টি ব্ক্তব্য আসছে। কেউ অপরাধি হলে তার বিচার হবে। তবে কেউ যেন রাজনৈতিক প্রতিহিংসার মধ্যে পড়ে হয়রানির শিকার না হয় সেই প্রত্যাশা মানুষের। মানুষ সরকারের কাছ থেকে ন্যায় বিচার প্রত্যাশা করে।

 

............

 

বাংলাদেশের জন্য দুর্নীতি একটি অভিশাপ। বিশ্লেষকমহল বলছে দুর্নীতি সর্বগ্রাসী রুপ ধারণ করেছে।তো দুর্নীতি রোধে দেশের দুর্নীতি দমন কমিশন গঠিত হয়েছে বেশ কয়েক বছর আগে। তাদের কর্মকাণ্ড নিয়েও রয়েছে নানাকথা ও সমালোচনা। তবে দুর্নীতি দমন কমিশনের নতুন চেয়ারম্যান আসার পর তাদের কর্মকাণ্ড নিয়ে আজকের বাংলাদেশ প্রতিদিন অনলাইনের শিরোনাম হচ্ছে-দুর্নীতির বিরুদ্ধে জিরো টলারেন্সে, অভিযান দেশজুড়ে, আটক ৫৩ প্রাতিষ্ঠানিক দুর্নীতিবিরোধী ব্যবস্থা তালিকায় ২০০ বড় দুর্নীতিবাজ। প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, প্রাতিষ্ঠানিক দুর্নীতির বিরুদ্ধে অভিযান শুরু করেছে দুর্নীতি দমন কমিশন-দুদক। সরকারের জিরো টলারেন্সের নীতি মাথায় নিয়েই মাঠে নেমেছেন দুদকের নতুন চেয়ারম্যান ইকবাল মাহমুদ।

 

নতুন চেয়ারম্যান দায়িত্বে আসার এক মাসের মধ্যেই দুর্নীতির বিরুদ্ধে অভিযানে নেমেছে দুদক। অভিযান শুরুর দুই সপ্তাহের মধ্যেই সরকারি বিভিন্ন দফতরের দুর্নীতিবাজ কর্মকর্তা-কর্মচারীসহ ৫৩ জনকে গ্রেফতার করেছে দুদক। আসছে এক সপ্তাহের মধ্যেই গ্রেফতার করতে প্রস্তুত করা হয়েছে আরও দুই শতাধিক ব্যক্তির তালিকা। এরইমধ্যে দেশত্যাগে নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছে ৩২ ব্যাংকার ও ১৯ ব্যবসায়ীসহ শতাধিক ব্যক্তির ওপর।

 

দুর্নীতি নিয়ে দুদকের এসব উদ্যোগ অবশ্যই সাধুবাদ পাওয়ার যোগ্য। তবে তাদের এ অভিযান যেন হয় নিরপেক্ষ এবং সর্বমহলের চাপ মুক্ত এমনটাই প্রত্যাশা দেশের নাগরিক সমাজের।

……

 

‘এক মাসেও তনুর খুনিরা চিহ্নিত হয়নি,সিআইডি টিমের ফের ঘটনাস্থল পরিদর্শন’ দৈনিক ইত্তেফাকে তনু হত্যা সম্পর্কিত প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, কুমিল্লা ভিক্টোরিয়া সরকারি কলেজের ইতিহাস বিভাগের ছাত্রী ও নাট্যকর্মী সোহাগী জাহান তনু হত্যার এক মাস পূর্ণ হচ্ছে আজ। কিন্তু হত্যার পর এ পর্যন্ত সামরিক-বেসামরিক অর্ধশতাধিক ব্যক্তিকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হলেও খুনিদের এখনও চিহ্নিত করতে পারেনি সিআইডি। যদিও সরকারের মন্ত্রীরা প্রধানমন্ত্রীর বরাত দিয়ে বলেছেন- এ হত্যাকাণ্ডের সুরাহা হবে খুব শিগগিরি। তবে বিভিন্নমহল থেকে বলা হচ্ছে- এতদিনেও বিষয়টির তেমন কোনো অগ্রগতি না দেখে জনমনে দ্বিধা দ্বন্দ্ব দেখা দিয়েছে। তারা ভাবছে অন্যান্য আলোচিত বেশ কয়েকটি হত্যাকাণ্ডের মতো এ বিষয়টিও ধীরে ধীরে অধরা রয়ে যেতে পারে।

 

........

 

তৃতীয় দফার নির্বাচন নিয়ে বিভিন্নমুখী খবর ছাপা হয়েছে, তাতে নানাচিত্র উঠে এসেছে। গাজীপুরে ইউপি নির্বাচনের প্রার্থীকে কুপিয়ে হত্যা-মানবজমিনের শিরোনাম। দৈনিকটির অন্য একটি খবর- সুশাসনের জন্য নাগরিক সুজন সম্পাদক বদিউল আলম মজুমদার বলেছেন, সুষ্ঠু নির্বাচনে কমিশনই বড় বাধা। দৈনিকটিতে বলা হয়েছে, বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় আওয়ামী লীগের আরও ৩৩ চেয়ারম্যান। আর গতকাল বাংলাদেশ প্রতিদিনের অনুসন্ধানী প্রতিবেদন ছিল এরকম- ইসি হাল ছেড়ে দিল। এদিকে বিএনপিসহ বিরোধীরা অভিযোগ করছে তাদেরকে নানাভাবে হুমকি-ধমকি এবং হয়রানি করা হচ্ছে।

 

.............

 

বাংলাদেশের কৃষির উন্নয়নে সবাইকে এগিয়ে আসার আহ্বান জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, সব ছাত্রছাত্রীকে মাঠে যেতে হবে। শিক্ষা কার্যক্রমের আওতায় তাদের কৃষিমাঠে নিয়ে যাওয়া উচিত, স্কুল-কলেজে এজন্য যদি অতিরিক্ত নম্বরের ব্যবস্থাও করা লাগে তবে সেটি করতে হবে। দেশের উন্নয়নে যথাযথ পরিকল্পনা গ্রহণ এবং সে অনুযায়ী কাজ বাস্তবায়ন করাই আওয়ামী লীগের ‘দেশপ্রেম’ বলে উল্লেখ করেন তিনি। দৈনিক ইত্তেফাকে প্রকাশিত এ খবরটি অবশ্যই আশা জাগানিয়া।

............

 

ঘুষ-ভিডিও বিপজ্জনক, নারদায় দোষীদের শাস্তি চান প্রধান বিচারপতি,

 

এটি দৈনিক আনন্দবাজারের শিরোনাম। খবরটিতে বলা হয়েছে, কোনও রকম তদন্ত ছাড়াই মঙ্গলবারও মুখ্যমন্ত্রী রায় দিয়েছেন, নারদ নিউজের ঘুষ-ভিডিও জাল, তৃণমূলের বিরুদ্ধে চক্রান্ত। আর মঙ্গলবার কলকাতা হাইকোর্টের প্রধান বিচারপতি মঞ্জুলা চেল্লুর বলেন, ‘‘এই ফুটেজ জাল হলে তা যেমন সমাজের পক্ষে বিপজ্জনক, আবার খাঁটি হলেও তাই। নির্বাচিত জনপ্রতিনিধিদের উপর মানুষের আস্থা নিয়েই প্রশ্ন তুলে দিয়েছে এই ফুটেজ।

 

দৈনিক বর্তমানে পশ্চিমবঙ্গে চতুর্থ দফার ভোট সম্পর্কে লেখা হয়েছে, আজ রাত পোহালেই রাজ্যের চতুর্থ দিনের ভোট। মুর্শিদাবাদ, নদীয়া, কলকাতা উত্তর ও বর্ধমান জেলার মোট ৬২টি বিধানসভা কেন্দ্রের ভোটগ্রহণ হবে।

 

অন্যদিকে, ভোটের আগে ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে পক্ষপাতিত্বের অভিযোগে নদীয়া জেলার শান্তিপুর এবং মুর্শিদাবাদ জেলার ডোমকল থানার অফিসার ইন চার্জকে অপসারণ করেছে নির্বাচন কমিশন। তবে কমিশন এখানেই থেমে থাকছে না। আরও বেশ কয়েকজন শীর্ষস্থানীয় আমলা ও পুলিশ কর্তা নির্বাচন কমিশনের কোপে পড়তে চলেছেন।

 

তো পাঠক! এই ছিল আজকের কথাবার্তার আসরে সর্বশেষ গুরুত্বপূর্ণ খবরের অংশ। এতক্ষণ আমাদের সাথে থাকার জন্য ধন্যবাদ। আবার কথা হবে আগামীকালের কথাবার্তার আসরে। সবাই ভালো থাকবেন।#

 

গাজী আবদুর রশীদ/২০

 

মাধ্যম

মন্তব্য লিখুন


Security code
রিফ্রেস দিন