এই ওয়েবসাইটে আর আপডেট হবে না। আমাদের নতুন সাইট Parstoday Bangla
সোমবার, 02 মে 2016 17:51

দেশের সবখানে দেশি ও বিদেশি ষড়যন্ত্র শুরু: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

দেশের সবখানে দেশি ও বিদেশি ষড়যন্ত্র শুরু: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী
পাঠক! আমাদের প্রাত্যহিক অনুষ্ঠান কথাবার্তার আসরে স্বাগত জানাচ্ছি। আজ ২ মে রোববারের কথাবার্তার আসরের শুরুতেই বাংলাদেশ ও ভারতের গুরুত্বপূর্ণ দৈনিকের বিশেষ বিশেষ খবরের শিরোনাম। এরপর বাছাইকৃত কিছু খবরের গুরুত্বপূর্ণ অংশ।

প্রথম আলো অনলাইন: ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন ২০১৬ রাজবাড়ীতে ছয়জন গুলিবিদ্ধ, ছয় জেলায় আহত ৫৫

সমকাল অনলাইন: সুন্দরবনে অগ্নিকাণ্ডের মাত্রা প্রচারের তুলনায় অনেক কম'-পরিবেশ ও বনমন্ত্রী

ইত্তেফাক অনলাইন: রাবি শিক্ষক হত্যার প্রতিবাদে কফিন মিছিল

নয়া দিগন্ত: ঘাতকদের খুঁজতে বিদেশী সহায়তার দরকার নেই : স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

ভারতের খবর:

আনন্দবাজার: মালদহে বোমা বানাতে গিয়ে বিস্ফোরণ, মৃত ৪

বর্তমান: সেই ইলিয়াস আর নেই, সেই নন্দীগ্রাম আছে তো?

আজকাল: বাবরি মসজিদ কাণ্ডে বি জে পি, আর এস এস ও ভি এইচ পি–র বিরুদ্ধে সি বি আই–এর আবেদনের শুনানি জুলাই পর্যন্ত স্থগিত রাখল সুপ্রিম কোর্ট।

তো, শ্রেতাবন্ধুরা! শিরোনামের পর এবার বাংলাদেশ ও ভারতের -সবচেয়ে আলোচিত খবরের গুরুত্বপূর্ণ অংশ তুলে ধরছি।

আজ প্রথমেই অর্থনীতি বিষয়ক একটি প্রতিবেদন দিয়ে শুরু করতে চাই। বিশ্বব্যাংক-বিআইডিএস প্রতিবেদন: পোশাক খাতে রফতানি বাড়বে, সামনে তিন চ্যালেঞ্জ- এটি বাংলাদেশ প্রতিদিনের খবরের শিরোনাম।

খবরটিতে বলা হয়েছে, চীনে তৈরি পোশাকের দাম বাড়ার সম্ভাব্য কারণে বাংলাদেশের পোশাক খাতের রফতানি বাড়ার সম্ভাবনা রয়েছে। তবে এজেন্য তিনটি চ্যালেঞ্জ নিয়ে এগুতে হবে। বিশ্বব্যাংক ও বাংলাদেশ উন্নয়ন গবেষণা প্রতিষ্ঠানের (বিআইডিএস) এক যৌথ প্রতিবেদনে এ কথা জানানো হয়েছে।

সোমবার প্রকাশিত ওই প্রতিবেদনে বলা হয়, চীনে তৈরি পোশাকের ১শতাংশ দাম বাড়লে যুক্তরাষ্ট্রের বাজারে বাংলাদেশের তৈরি পোশাকের ১ দশমিক ৩৬ শতাংশ চাহিদা বাড়বে। এ কারণে বাংলাদেশের পোশাক খাতের রফতানি বাড়ানোর ব্যাপক সম্ভাবনা রয়েছে। এক্ষেত্রে নীতি কৌশল বাস্তবায়নের মাধ্যমে শ্রমিকদের নিরাপত্তা, অধিকার ও রফতানি পণ্য বহুমুখী করণের মাধ্যমে রফতানি বাড়ানো যেতে পারে। একই সঙ্গে তিনটি বিষয়কে গুরুত্ব দিতে হবে। এগুলো হলো; শ্রমিক এবং মধ্যবর্তী ব্যবস্থাপকদের দক্ষতা উন্নয়ন, কারখানার অবকাঠামো উন্নয়ন, কারখানাগুলোকে সামাজিক ও পরিবেশগত কমপ্ল্যায়েন্সের আওতায় আনা।

.......

প্রথম আলোসহ বেশ কয়েকটি অনলাইন দৈনিকের খবর- প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ছেলে এবং প্রধানমন্ত্রীর তথ্য ও যোগাযোগপ্রযুক্তি–বিষয়ক উপদেষ্টা সজীব ওয়াজেদ জয় গতকাল রোববার নিজের ফেসবুক স্ট্যাটাসে খালেদা জিয়ার প্রতি প্রশ্ন রেখে বলেছেন, ‘ম্যাডাম, আপনি যদি জানেন যে ৩০০ মিলিয়ন ডলার কোথায়, অনুগ্রহ করে আমাকে জানান। আমি সেই সমস্ত অর্থ এতিমদের দান করে দিতে চাই।’

গত শনিবার রাজধানীতে এক অনুষ্ঠানে খালেদা জিয়া অভিযোগ করেন, প্রধানমন্ত্রীর ছেলে সজীব ওয়াজেদ জয়ের ব্যাংক হিসাবে আড়াই হাজার কোটি টাকা (৩০০ মিলিয়ন ডলার) জমা আছে। যুক্তরাষ্ট্রের আদালতে একটি মামলার নথিতে এটি আছে বলেও দাবি করেন খালেদা জিয়া।

গতকালের স্ট্যাটাসে সজীব ওয়াজেদ জয় উল্লেখ করেন, ‘একজন মহিলা যিনি এতিমের টাকা চুরি করেছেন, যার ছেলে দুর্নীতির কারণে এফবিআই কর্তৃক পলাতক আসামি, তার মতো লোকের অবশ্যই বঙ্গবন্ধুর দৌহিত্রের দিকে কাদা ছোড়া উচিত নয়। সজীব ওয়াজেদ জয় আরও বলেন, ‘আপনার পোষা ভৃত্য মাহমুদুর রহমান এবং শফিক রেহমান এফবিআই–এর গোপন নথি চুরি করে আমার সব ব্যাংক হিসাবের তালিকা পেয়েছে, কিন্তু সেই টাকা খুঁজে পায়নি। ১/১১–এর সামরিক শাসকেরা যারা আমার মাকে আটক করেছিল তারাও সেটি খুঁজে পায়নি। এমনকি এফবিআই সেটি পায়নি। এটা এ জন্য যে, আমি ৩০০ মিলিয়ন ডলারের কাছাকাছিও কোনো সম্পদ কোনো দিন অর্জন করিনি। আমি তত ধনী নই।’

এদিকে যুগান্তরের একটি খবরে লেখা হয়েছে, সরকার সাংবাদিক শফিক রেহমানকে গ্রেফতার করায় কেঁচো খুড়তে সাপ বেড়িয়ে এসেছে বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম খান। তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রীর পুত্র সজিব ওয়াজেদ জয়ের অনেক কথা জনগণ এতদিন জানতো না। সাংবাদিক শফিক রেহমানকে গ্রেফতার করায় এখন জনগণ জয়ের অর্থ পাচারের কথা জেনে গেছে।

আর ইত্তেফাকের শিরোনাম-নিজের দুর্নীতি ঢাকতে জয়ের বিরুদ্ধে খালেদা জিয়া মিথ্যাচার করেছে বলে মন্তব্য করেছেন হাছান মাহমুদ।’

.......

নিহত অধ্যাপক রেজাউল করিম সিদ্দিকী সম্পর্কিত খবর ছাপা হয়েছে যুগান্তরে। সেখানে- শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক অধ্যাপক ড. মুহম্মদ জাফর ইকবাল বলেছেন, খুনিদের ধরতে সরকার আন্তরিক নয়। এভাবে একটি দেশ চলতে পারে না। তিনি বলেন, আগে তো বিভিন্ন সময়ে ব্লগার, লেখক ইত্যাদি বলে বলে মানুষ খুন করতো। এখন একজন শিক্ষক যিনি কিনা সংস্কৃতিমনা, তিনি নিজেও সংগীত পছন্দ করতেন, সেতার বাজাতেন তাকেও হত্যা করা হল। বাংলাদেশ শিক্ষক সমিতি ফেডারেশনের ডাকা দেশব্যপী পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষকদের অর্ধদিবস কর্মবিরতি পালনকালে শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে এসব কথা বলেন তিনি। রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের ইংরেজি বিভাগের অধ্যাপক এএফএম রেজাউল করিম সিদ্দিকী হত্যার বিচার দাবিতে সারাদেশের বিশ্ববিদ্যালয়ের সঙ্গে একাত্মতা পোষণ করে অর্ধদিবস কর্মবিরতি পালন করেছে শাহজালাল বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতি। অধ্যাপক এএফএম রেজাউল করিম সিদ্দিকী হত্যার বিচার দাবিতে দেশের সব সরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকরা আজ অর্ধদিবস কর্মবিরতি পালন করেছেন।

.......

দেশে সংঘটিত হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে জড়িতদের খুঁজে বের করতে বিদেশি সহায়তার কোনো দরকার নেই বলে মন্তব্য করেছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল। নয়া দিগন্তের এ খবরটিতে বলা হয়েছে, রোববার রাতে নরসিংদী স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ‘উন্নয়নের সঙ্গে সঙ্গে সবখানে দেশি ও বিদেশি ষড়যন্ত্র শুরু হয়েছে। আইএস সন্ত্রাস শুরু হয়েছে, মানুষ হত্যার একটা অভিনব কৌশল শুরু করেছে। কতখানি জঘন্য, কতখানি ঘৃণ্য যে আমাদের সম্মানিত শিক্ষকরা তার শিকার হয়েছেন। তিনি বলেন, আমরা একে একে সব আইডেন্টিফাই করেছি। এ কারণেই বলব যে, কোন সাহায্য আমাদের দরকার নাই, আমরাই বের করতে পারব, আমরা বের করেছি ও করব। আমরা সব ষড়যন্ত্র উদঘাটন করেছি। সঠিক লোক ও সঠিক দলটিকে চিহ্নিত করতে পেরেছি। একে একে এসব অপরাধীদেরকে আইনের আওতায় এনে বিচারের মুখোমুখি করছি।

.......

বাংলাদেশের পর এবার ভারতের বাংলা দৈনিকের গুরুত্বপূর্ণ খবরের অংশ

মমতা বচন এক নজরে-দৈনিক আনন্দবাজারের এ শিরোনামের খবরে লেখা হয়েছে, তিনি বলেছেন, কলকাতায় যে ভাবে সেন্ট্রাল পুলিশ নিয়ে এসে ভোট করানো হল, সেটা এক কথায় চ্যাংড়ামো। যা যা হয়েছে সব কিছুর উত্তর আমি বুঝে নেব।’’

তিনি আরো বলেছেন, ‘‘সারা জেলায় ১৪৪ ধারা জারি করে দিল। যারা করল, আগামী দিনে তাদের ভুগতে হবে। ১৫ দিনের জন্য দায়িত্ব পেয়ে কেউ যদি ভাবে আমার মাথায় (পুলিশের মাথায়) স্বর্ণমুকুট পরিয়ে দেবে, তা হলে সেটা ভুল।

দৈনিক বর্তমানের খবর-চপার কেলেঙ্কারি নিয়ে রাজ্যসভায় শোরগোল ফেলতে গিয়ে বিপাকে তৃণমূল সংসদ সদস্য সুখেন্দুশেখর রায়। তার বিরুদ্ধে রাজ্যসভার ২৫৫ রুল জারি করে তাকে কক্ষত্যাগের নির্দেশ সংসদের উচ্চকক্ষের চেয়ারম্যান মহম্মদ হামিদ আনসারির।

তো পাঠক! এই ছিল আমাদের কথাবার্তার আসরে সর্বশেষ খবরের গুরুত্বপূর্ণ অংশ। এতক্ষণ আমাদের সাথে থাকার জন্য অনেক অনেক ধন্যবাদ এবং সবাই ভালো থাকবেন।

গাজী আবদুর রশীদ/২

মন্তব্য লিখুন


Security code
রিফ্রেস দিন